Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৭, ০৮ আশ্বিন ১৪২৪, ০২ মুহাররম ১৪৩৮ হিজরী

দৈনন্দিন জীবনে ইসলাম

| প্রকাশের সময় : ২১ মার্চ, ২০১৭, ১২:০০ এএম

প্র:- মাসবূক যদি ইমামের সালাম ফিরানোর আগেই দাঁড়িয়ে নিজের অবশিষ্ট নামায আদায় করতে শুরু করে, তাহলে কোন অসুবিধা আছে কি?
উ:- ইমামের সালাম ফিরানোর আগে তাশাহ্হুদ-পরিমাণ না বসেই কোন কারণে দাঁড়িয়ে গেলে নামায ফাসিদ হয়ে যাবে। আর তাশাহ্হুদ-পরিমাণ বসার পর সালাম ফিরানোর আগে বিনা কারণে দাঁড়িয়ে যাওয়া মাকরূহে তাহরীমী। তবে কোন উযরবশতঃ দাঁড়ালে নামায আদায় হয়ে যাবে। (আলমগীরী)
প্র:- কোন্ কোন্ কারণে তাশাহ্হুদ-পরিমাণ বসার পর মাসবূক ব্যক্তি সালাম ফিরানোর আগেই দাঁড়িয়ে নামায পড়ে ফেলতে পারবে?
উ:- ১. ওযু ভেঙ্গে যাওয়ার আশংকা থাকলে।
২. নামাযের ওয়াক্ত ফুরিয়ে যাওয়ার আশংকায়।
৩. মোজার উপর মাসেহ করার মেয়াদ পূর্ণ হয়ে যাওয়ার আশংকায়।
৪. নামায দীর্ঘ হলে পর সামনে দিয়ে মানুষ চলে যাওয়ার আশংকা থাকলে।
প্র:- উপরোক্ত কারণসমূহের কোন একটার জন্যে মাসবূক যদি সালাম ফিরানোর আগেই দাঁড়িয়ে যায়; এরপর দেখে যে, ইমাম সাহু সিজদাহ করছেন, তখন তাকে কী করতে হবে?
উ:- সাহু সিজদার কথা জানা পর্যন্ত মাসবূক যদি তার নামাযের কোন সিজদাহ না করে থাকে, তাহলে দ্রæত ইমামের সংগে সাহু সিজদায় শামিল হবে। এরপর বাকি নামায পড়বে। আর যদি ইতিমধ্যে মাসবূক কোন সিজদাহ করে ফেলে থাকে, তাহলে নামাযের শেষে একা একাই সাহু সিজদাহ আদায় করে ফেলবে।
-মুফতী ওয়ালীয়ুর রহমান খান

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।