Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৭, ১৩ বৈশাখ , ১৪২৪, ২৮ রজব ১৪৩৮ হিজরী।

রূপগঞ্জে মহিলালীগের দু’গ্রুপের সংঘর্ষ, বাড়িঘর ও

ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতির আধিপত্য বিস্তার

| প্রকাশের সময় : ২১ মার্চ, ২০১৭, ১২:০০ এএম

দোকানপাট ভাঙচুর, লুটপাট, আহত ১৫
রূপগঞ্জ উপজেলা সংবাদদাতা : নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ উপজেলার চনপাড়া পুনর্বাসন কেন্দ্র (প্রস্তাবিত রাসেলনগর ইউনিয়ন)-এর আওয়ামী মহিলালীগের সভাপতির এলাকার আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে মহিলালীগের দুই গ্রুপের মাঝে দুই দফা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এ সময় মহিলালীগ নেত্রীসহ নিরীহদের দোকানপাট ও বাড়িঘরে হামলা, ভাঙচুর ও লুটপাট করা হয়। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছেন। রোববার রাতে ও সোমবার দুপুরে ঘটে এ ঘটনা। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয়পক্ষের মাঝে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোন সময় আবারো সংঘর্ষের আশঙ্কা করছে এলাকাবাসী।
প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, চনপাড়া পুনর্বাসন কেন্দ্র (প্রস্তাবিত রাসেলনগর ইউনিয়ন)-এর আওয়ামী মহিলালীগের সভাপতি দাবি করে আসছে মহিলালীগ নেত্রী, ইউপি সদস্য বিউটি আক্তার কুট্রি ও অপর মহিলালীগ নেত্রী নাজমা বেগম। সভাপতির পদ ও এলাকার বিভিন্ন আধিপত্য বিস্তার নিয়ে বিউটি আক্তার কুট্রির সঙ্গে নাজমা বেগমের বেশ কয়েক দিন ধরেই দ্ব›দ্ব চলে আসছে।
রোববার সন্ধ্যায় এবং সোমবার দুপুরে বিউটি আক্তার কুট্রিসহ তার বাহিনীর লোকজন লাঠিসোঁটা ও ধারালো অস্ত্রশস্ত্রে সজ্জিত হয়ে নাজমা বেগমসহ তার লোকজনের উপর হামলা চালায়। এ সময় নাজমা বেগমের লোকজনও পাল্টা হামলা চালায়। এ সময় দুই গ্রæপের মাঝে কয়েক দফা ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া, ইটপাটকেল নিক্ষেপ ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের রহিম, জুয়েল, শাহিন, কামাল, নাঈম, রমজান, জীবনসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়। আহতদের স্থানীয় বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। এদিকে, উভয়পক্ষের লোকজন মহিলালীগ নেত্রী ইয়াছমিনের ৫টি দোকানঘর ও বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর করে লুটপাট চালায়। পরে রিমি বেগম, রহিম, মোকসেদ, রহিমুনের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে স্বর্ণালংকার, নগদ টাকাসহ মালপত্র লুট করেছে বলে অভিযোগ রয়েছে।
এলাকাবাসী অভিযোগ করে জানিয়েছে, বিউটি আক্তার কুট্রি ও নাজমা বেগমের দ্ব›েদ্বর কারণে নিরীহ মানুষকে মামলা-হামলা, ভাঙচুর, লুটপাট ও আহতের শিকার হতে হচ্ছে। এলাকায় মাদক ব্যবসা থেকে শুরু করে অপরাধমূলক কর্মকাÐ দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। বিউটি আক্তার কুট্রি আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে অপরাধমূলক কর্মকাÐ করে আসলেও পুলিশ প্রশাসন নীরব ভূমিকা পালন করছেন। বর্তমানে ওই দুই নেত্রীর হুমকি-ধমকিতে দিশেহারা হয়ে উঠেছে। তাদের কথা মতো কাজ না করলেই দোকানপাট ও বাসা বাড়িতে হামলা চালানো হচ্ছে। এ সব সন্ত্রাসী কর্মকাÐের ব্যাপারে পুলিশ প্রশাসনের সহযোগিতা চাইতে গেলে উল্টো ফাঁসিয়ে দিচ্ছে নিরীহদের। তাই এখন প্রতিবাদ করার সাহসটুকুও পাচ্ছে না।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।