Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সিরিয়ায় ক্ষেপণাস্ত্র হামলার কথা জানতো রাশিয়া!

| প্রকাশের সময় : ৮ এপ্রিল, ২০১৭, ১২:০০ এএম

নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠকের দাবি
ইনকিলাব ডেস্ক : সিরিয়ার হোমস প্রদেশের আল-শায়রাত বিমান ঘাঁটিতে মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র হামলার আগেই তা রাশিয়াকে জানিয়েছিল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। পেন্টাগনের বিবৃতির বরাত দিয়ে এই তথ্য জানিয়েছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান। মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগনের বিবৃতিতে বলা হয়, ভ‚মধ্যসাগরে অবস্থান করা যুক্তরাষ্ট্রের দুটি যুদ্ধজাহাজ ইউএসএস পোর্টার এবং ইউএসএস রস থেকে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ নিয়ন্ত্রিত ওই বিমান ঘাঁটিতে ৫৯টি টমাহক ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে। হামলায় ঘাঁটিতে রাখা যুদ্ধবিমান ও হেলিকপ্টারসহ অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলেও দাবি করা হয়। ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, হামলার আগে এ সম্পর্কে সামরিক পর্যায়ে মার্কিন কর্তৃপক্ষ রাশিয়াকে জানিয়েছে। তবে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন দাবি করেন, হামলার আগে বা পরে রাশিয়ার সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করা হয়নি। এ সম্পর্কে রুশ কর্তৃপক্ষ এখনও কোনও মন্তব্য করেনি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় অঞ্চল ইদলিবে বিমান থেকে চালানো রাসায়নিক গ্যাস হামলার জবাবেই মার্কিন বাহিনী ওই হামলা চালিয়েছে। এক বিবৃতিতে ট্রাম্প বলেন, ‘সিরিয়ার চালানো রাসায়নিক হামলার জবাবে আমি সামরিক স্থাপনায় ওই হামলা চালানোর নির্দেশ দিয়েছি। এই মারাত্মক রাসায়নিক অস্ত্র যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তার জন্য হুমকি।’ উল্লেখ্য, ইদলিবে ওই রাসায়নিক গ্যাস হামলায় ৮৬ জন নিহত হয়। আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বলছে, ২০১৩ সালের আগস্টে সারিন গ্যাস হামলার অভিযোগ ওঠার পর এটিই সবচেয়ে ভয়াবহ রাসায়নিক হামলা। আসাদবিরোধী বিদ্রোহীরা এই হামলায় সরকারী বাহিনী ও রাশিয়াকে দুষলেও এই দাবি অস্বীকার করেছে সিরীয় সেনাসূত্র ও রুশ কর্তৃপক্ষ। হামলায় প্রাণহানির ঘটনায় বুধবার জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের জরুরি বৈঠক হয়। বৈঠকে তোপের মুখে পড়ে রাশিয়া। ওই হামলায় সিরিয়ার বিদ্রোহীদের দায়ী করে রাশিয়া। মস্কোর দাবি, বিদ্রোহীরা ওই রাসায়নিক গ্যাস মজুত করে রেখেছিল। সিরীয় বিমান হামলায় সেই গুদাম আক্রান্ত হলে বিস্ফোরণ ঘটে। তবে রাশিয়ার এমন দাবি জোরালোভাবে প্রত্যাখ্যান করে নিরাপত্তা পরিষদের অন্য সদস্য দেশগুলো। তারা আসাদকে থামাতে রাশিয়ার প্রতি আহŸান জানায়। এদিকে, সিরিয়ার হোমস প্রদেশের আল-শায়রাত বিমান ঘাঁটিতে মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর রাশিয়া জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠকের দাবি জানাবে। রাশিয়ান ফেডারেশন কাউন্সিলের প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা বিষয়ক কমিটির প্রধান ভিক্টর অজেরভের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানিয়েছে রুশ সংবাদমাধ্যম স্পুটনিক। গত শুক্রবার মার্কিন হামলার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে অজেরভ বলেন, রাশিয়া প্রথমে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদে জরুরি বৈঠকের দাবি জানাবে। এ কর্মকাÐ জাতিসংঘের একটি সদস্য রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে মার্কিন আগ্রাসন বলেই বিবেচিত হবে। রাশিয়ার পার্লামেন্টের প্রতিরক্ষা কমিটি জানিয়েছে, ক্ষেপণাস্ত্র হামলার পর ওয়াশিংটন-মস্কো সম্পর্কের অবনতি ঘটতে পারে। আর এর ফলে মধ্যপ্রাচ্যে সামরিক সংঘাত বাড়তে পারে। মার্কিন প্রতিরক্ষা দফতর পেন্টাগনের বিবৃতিতে বলা হয়, বৃহস্পতিবার রাতে ভ‚মধ্যসাগরে অবস্থান করা যুক্তরাষ্ট্রের দুটি যুদ্ধজাহাজ ইউএসএস পোর্টার এবং ইউএসএস রস থেকে সিরিয়ার প্রেসিডেন্ট বাশার আল-আসাদ নিয়ন্ত্রিত আল-শায়রাত বিমানঘাঁটিতে ৫৯টি টমাহক ক্ষেপণাস্ত্র ছোড়া হয়েছে। হামলায় ঘাঁটিতে রাখা যুদ্ধবিমান ও হেলিকপ্টারসহ অবকাঠামোর ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলেও দাবি করা হয়। ওই বিবৃতিতে আরও বলা হয়, হামলার আগে এ সম্পর্কে সামরিক পর্যায়ে মার্কিন কর্তৃপক্ষ রাশিয়াকে জানিয়েছে। তবে মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেক্স টিলারসন দাবি করেন, হামলার আগে বা পরে রাশিয়ার সঙ্গে কোনও যোগাযোগ করা হয়নি। এ সম্পর্কে রুশ কর্তৃপক্ষ এখনও কোনও মন্তব্য করেনি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের দাবি, উত্তর-পশ্চিমাঞ্চলীয় অঞ্চল ইদলিবে বিমান থেকে চালানো রাসায়নিক গ্যাস হামলার জবাবেই মার্কিন বাহিনী ওই হামলা চালিয়েছে। বিবিসি, রয়টার্স ও দ্য গার্ডিয়ান।



 

Show all comments
  • Azad ৮ এপ্রিল, ২০১৭, ১১:২৬ এএম says : 0
    এই হামলায় প্রমাণিত হলো যে ISS আমেরিকার সৃষ্টি.যখন ISS প্রায় বিলুপ্ত হতে চলেছে আর আসাদ বাহিনী হারানো অঞ্চল দখল নিয়েছে তখন আমেরিকার প্ল্যানমাফিক সিরিয়ান রেবেল এই গ্যাস হামলা চালা য় এটা ছিল একটা অজুহাত. মুসলিমদের ধ্বংস করাটাই হিন্দু, খ্রিস্টান ইহুদিদের প্রধান uddesyo
    Total Reply(0) Reply
  • Atic Rahoman ৮ এপ্রিল, ২০১৭, ১০:২০ এএম says : 0
    যুদ্ধ করছে রাসিয়া আর এমেরিকা , আর যুদ্ধের ময়দান হয়েছে সিরিয়া, আফগান আর ইরাক । আশ্চর্য, এই বোকা মুসলিম তা বুঝতে পারছে না ? নাকি কোনো মোনাফেক গুশঠি শক্তি সালদের পা চাটছেন ( রাজাকার ) । অথচ কোরান বলছে যারা এক আল্লাহর উপর বিশ্বাস স্থাপন করে তারাই প্রকৃত বুদ্ধিমান । এই মুসলিম দেশে
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ