Inqilab Logo

ঢাকা সোমবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৬ আশ্বিন ১৪২৭, ০৩ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

বাংলা নববর্ষ উদযাপনকে কেন্দ্র করে সারা দেশে নিরাপত্তা জোরদার

| প্রকাশের সময় : ১২ এপ্রিল, ২০১৭, ১২:০০ এএম


রাজধানীর ট্রাফিকব্যবস্থা নিয়ে ডিএমপির নতুন নিদের্শনা : ৫টার মধ্যে অনুষ্ঠান শেষ করতে হবে
স্টাফ রিপোর্টার : বাংলা নতুন বছর উদযাপনকে সামনে রেখে সারা দেশে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। এ লক্ষ্যে নতুন বছরে সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্বপালন করার জন্য দেশের ৬৪ জেলায় বার্তা পাঠিয়েছে পুলিশ সদর দফতর। পহেলা বৈশাখ বর্ষবরণের দিনে নির্মল আন্ন্দ উদযাপনে সর্বস্তরের মানুষকে সহায়তা করার কথাও বলা হয়েছে বার্তায়। এছাড়া পহেলা বৈশাখে রাজধানীর ট্রাফিক ব্যস্থাকেও ডেলে সাজানো হয়েছে। রাজধানীর পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে ডিএমপিও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করেছে।
জানাগেছে, ঈদ, পূজা বড় দিন এসব ধর্মীয় উৎসবের দিনগুলোতে বিভিন্ন ধর্মাবলম্বীরা স্ব-স্ব ধর্ম উৎসব পালন করে। ১ বৈশাখ এমন একটি দিন যা বাঙ্গালি সংস্কৃতির অংশ। দলমত ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে পুরো বাঙ্গলি জাতি এই দিনে আনন্দ উৎসব পালন করে। গান-বাদ্য, আনন্দ শোভাযাত্রার মাধ্যমে সর্বস্তরের মানুষ বাংলা নববর্ষকে স্বাগত জানায়।
সাম্প্রতিককালে জঙ্গিদের উৎপাত বেড়েগেছে। অতিসম্প্রতি রাজধানীর আশকোনায় র‌্যাবের প্রস্তাবিত সদর দফতরে আত্মঘাতী হামলায় একজন এবং বিমানবন্দর পুলিশ চেকপোস্টের সামনে আত্মঘাতী বোমা বিস্ফোরণের ঘটনায় একজন নিহত হওয়া ছাড়াও চট্টগ্রাম, সিলেটের দক্ষিণ সুরমার আতিয়া মহল, মৌলভী বাজার ও সর্বশেষ কুমিল্লায় জঙ্গি আস্তানার সন্ধান পাওয়া যায়।
জঙ্গিরা কর্তব্যরত পুলিশকে টার্গেট করে হামলা করতে পারে। এ আশঙ্কা উড়িয়ে দেয়া যায় না বলে জানিয়েছে পুলিশ। এসব কারণ বিবেচনায় রেখেই পুলিশ সদর দফতর থেকে দেশের ৬৪ জেলায় পুলিশ সুপারদের কাছে পাঠানো বার্তায় নববর্ষের নিরাপত্তায় নিয়োজিত পুলিশ বাহিনীর সদস্যদেরকে অধিকতর সতর্কতার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করার ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়। তাতে কর্তব্যে অবহেলা বা দায়িত্বহীনতার অভিযোগ পাওয়া গেলে সেই পুলিশের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেয়ার কথাও বলা হয়েছে বার্তায়।
এ ব্যাপারে পুলিশ সদর দফতরের ডিআইজি ক্রাইম হুমায়ুন কবীর বলেন, এটা একটা রুটিন ওয়ার্ক। পুলিশ সদর দফতর থেকে নানা সময় নানা কারণে বার্তা পাঠানো হয়। তিনি বলেন, সতর্ক করা হয়েছে এ জন্যে যে দিন যত যাচ্ছে জঙ্গিরা ততই কৌশল বদলাচ্ছে। দেখা গেল বর্ষবরণের অনুষ্ঠানস্থলের বা জনসমাগমস্থলের নিরাপত্তায় যে পুলিশ থাকে সেই পুলিশকেই টার্গেট করা হলো। এটা মাথায় রাখতে হবে। সতর্ক থাকতে হবে। সতর্কতার কোনো বিকল্প নেই।
এদিকে গতকাল পুলিশ কমিশনার বলেছেন, পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠান শান্তিপূর্ণভাবে উদযাপনের জন্য নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার থাকবে। মহনগরবাসীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে বেশ কিছু পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। তিনি বলেছেন, বিকেল ৫টার মধ্যে অনুষ্ঠান শেষ করতে হবে। তবে ইনডোর এবং সংরক্ষিতস্থানে কর্তৃপক্ষের অনুমোদনক্রমে সূর্যাস্তের পরেও অনুষ্ঠান করা যাবে। কেউ মুখোশ পড়ে মঙ্গল শোভাযাত্রায় অংশগ্রহণ করতে পারবে না, এমনকি মঙ্গল শোভাযাত্রায় আয়োজক সংস্থা চারুকলা ইনস্টিটিউটের সদস্যরাও মুখোশ ব্যবহার করতে পারবেন না। তবে হাতে করে মুখোশ বহন করা যাবে। গতকাল ডিএমপির এক সংবাদ সম্মেলনে পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান এ কথা জানিয়েছেন।
সংবাদ সম্মেলনে জনসাধারণের উদ্দেশে জানানো হয়, যে কোনো প্রয়োজনে পুলিশের সহায়তা নিন। সর্বসাধারণের সহায়তায় পুলিশ কন্ট্রোলরুম, রমনা পার্ক, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও রবীন্দ্র সরোবরে সাব-কন্ট্রোলরস্থম স্থাপিত হয়েছে। এছাড়া পুলিশ কন্ট্রোলরুম, শাহবাগ থানা ও ধানমন্ডি থানায় যোগাযোগ করুন। শৃঙ্খলা বজায় রাখুন। প্রবেশপথে তল্লাশি করার ক্ষেত্রে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা পুলিশ সদস্যকে সহায়তা করুন।
কমিশনার বলেন, আপনার সঙ্গীয় কেউ হারিয়ে গেলে রমনা পার্ক ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে অবস্থিত পুলিশ সাব-কন্ট্রোলরুমে তাৎক্ষণিকভাবে যোগাযোগ করুন। আপনার সাথে শিশু-কিশোর থাকলে অবশ্যই তাদের পকেটে চিরকুটে আপনার বাসার ঠিকানা ও প্রয়োজনীয় মোবাইল নম্বর লিখে রাখুন। প্রয়োজনে পুলিশের সাহায্য গ্রহণের পরামর্শ দিন।  ভিড়ের মধ্যে হারিয়ে গেলে পূর্বেই নির্ধারণ করে রাখুন কোথায় এবং কখন একত্রিত হবেন। এছাড়া নিরাপত্তার স্বার্থে হ্যান্ডব্যাগসহ যে কোনো ধরনের ব্যাগ বহন করা যাবে না। অনাকাক্সিক্ষত পরিস্থিতি এড়াতে পান্তা-ইলিশ কিংবা যে কোনো খাদ্য গ্রহণের পূর্বে খাবারের মান পরীক্ষার পাশাপাশি মূল্য সম্পর্কে নিশ্চিত হন।
মোবাইল চোর এবং ছিনতাইকারীদের বিষয়ে সতর্ক থাকুন।
পহেলা বৈশাখে রাজধানীর যেসব সড়কে যান চলাচল করবে না
পহেলা বৈশাখে জননিরাপত্তা ও শৃঙ্খলা বজায় রাখতে রাজধানীর বেশ কয়েকটি সড়কে যান চলাচলে ডাইভারশন ও নিয়ন্ত্রণ আরোপ করেছে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) ট্রাফিক বিভাগ। গতকাল মঙ্গলবার ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে পহেলা বৈশাখের নিরাপত্তার বিষয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান ডিএমপি কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, পহেল বৈশাখ উপলক্ষে রাজধানীর রমনা বটমূল, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, শিশু পার্ক, চারুকলা ইনস্টিটিউট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলা একাডেমি, দোয়েল চত্বর, শিশু একাডেমি, হাইকোর্ট ও আশপাশের এলাকায় প্রচুর জনসমাগম হবে। এসব এলাকায় সুষ্ঠু যানবাহন চলাচলের লক্ষ্যে ডিএমপির পক্ষ থেকে বিশেষ ট্রাফিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এর জন্য ১৩ এপ্রিল সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১৪ এপ্রিল রাত ৯টা পর্যন্ত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টিকারযুক্ত গাড়ি ব্যতীত সকল প্রকার যানবাহন প্রবেশ বন্ধ থাকবে। ১৪ এপ্রিল ভোর ৫টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত বিশেষ ট্রাফিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এবার রাজধানীর ২৬টি পয়েন্টে থাকছে যানবাহনের ডাইভারশন।
ডিএমপি কমিশনার বলেন, পহেলা বৈশাখের দিন ডিএমপির ট্রাফিক ব্যবস্থাপনার এই নির্দেশনা মেনে চলার জন্য সকলকে অনুরোধ করছি। মোটরসাইকেলে চালক ছাড়া কোনো আরোহী বহন করতে পারবেন না। তবে যদি কেউ তার স্ত্রী ও নাবালক সন্তানকে নিয়ে যান, সেক্ষেত্রে ছাড় দেওয়া যেতে পারে।
যে সব রাস্তায় ডাইভারশন
মিরপুর হতে বিভিন্ন রুটের যেসব বাস ফার্মগেট হয়ে গুলিস্থান কিংবা সায়েদাবাদ-যাত্রাবাড়ী যাবে, সেসব বাস হোটেল সোনারগাঁও থেকে বামে মোড় নিয়ে রেইনবো ক্রসিং হয়ে মগবাজার দিয়ে সোজা মালিবাগ মোড় হয়ে গন্তব্যে যাবে এবং অন্যান্য গাড়ি হোটেল সোনারগাঁও থেকে সোজা এসে বাংলামটরে বামে মোড় নিয়ে মগবাজার থেকে শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী সরণি হয়ে কাকরাইল চার্চের বামে মোড় নিয়ে গন্তব্যে যাবে এবং আসবে।
এদিকে, মোহাম্মদপুর হতে যেসব রুটের বাস মতিঝিল হয়ে সায়েদাবাদ-যাত্রাবাড়ী-শ্যামপুর যাবে, সেসব রুটের বাস মোহাম্মদপুর-সায়েন্স ল্যাবরেটরি-নিউমার্কেট-বেবি আইসক্রীম মোড়-ঢাকেশ্বরী মন্দির-বকশীবাজার-চাঁনখারপুল দিয়ে গুলিস্থান হয়ে গন্তব্যে যাবে এবং আসবে। তবে প্রাইভেটকার সায়েন্স ল্যাবরেটরি থেকে কাঁটাবন পর্যন্ত আসতে পারবে এবং কাঁটাবন থেকে ডানে ও বামে যেতে পারবে।
টঙ্গী-এয়ারপোর্ট হতে যেসব রুটের বাস গুলিস্থান ও সায়েদাবাদ যাতায়াত করে, সেসব রুটের বাস টঙ্গী-বিমানবন্দর-প্রগতি সরণির বামে মোড় নিয়ে বিশ্বরোড ধরে মালিবাগ রেলক্রসিংয়ের বামে মোড় নিয়ে খিলগাঁও ফ্লাইওভার ধরে গন্তব্যে যাবে-আসবে এবং অন্যান্য গাড়ি মহাখালী হয়ে মগবাজার-কাকরাইল চার্চের বামে মোড় নিয়ে গন্তব্যে যাবে এবং আসবে।
ধামরাই, মানিকগঞ্জ, গাবতলী হতে যেসব রুটের বাস এবং অন্যান্য গাড়ি গুলিস্থান, ফুলবাড়ীয়া যাতায়াত করে, সেসব রুটের বাস ও অন্যান্য গাড়ি মানিকগঞ্জ-ধামরাই-গাবতলী-মিরপুর রোড ধরে সায়েন্সল্যাব ধরে সোজা নিউমার্কেট-আজিমপুর-বেবী আইসক্রীম মোড়-ঢাকেশ্বরী মন্দির-বকশিবাজার-চাঁনখারপুল হয়ে গন্তব্যে যাবে এবং আসবে।
যেসব রাস্তায় যানচলাচল বন্ধ থাকবে
বাংলামটর-পুরাতন এলিফ্যান্ট রোড ও টেলিযোগাযোগ ভবন ক্রসিং-পরিবাগ ক্রসিং-রূপসীবাংলা ক্রসিং, শাহবাগ ক্রসিং-মৎস্য ভবন-কদম ফোয়ারা ক্রসিং-হাইকোর্ট ক্রসিং, জিরো পয়েন্ট হতে হাইকোর্ট ক্রসিং এবং ইউবিএল থেকে কদম ফোয়ারা, হোটেল রূপসী বাংলা ক্রসিং-মিন্টো রোড-বেইলি রোড-হেয়ার রোড কাকরাইল মসজিদ ক্রসিং বামে মোড়-চার্চ ক্রসিং মৎস্য ভবন ক্রসিং পর্যন্ত সড়কগুলোতে যানচলাচল বন্ধ থাকবে।
এদিকে, নীলক্ষেত ক্রসিং হতে টিএসসি ক্রসিং, পলাশী মোড় হতে শহীদ মিনার হয়ে দোয়েল চত্বর ক্রসিং, বকশিবাজার হতে জগন্নাথ হল হয়ে টিএসসি ক্রসিং, হাইকোর্ট ক্রসিং-দোয়েল চত্বর ক্রসিং-শহিদুল্লাহ হল ক্রসিং এবং নৌবাহিনী ভর্তি তথ্যকেন্দ্র হতে হলি ফ্যামিলি হাসপাতাল পর্যন্ত যানচলাচল বন্ধ থাকবে।
পার্কিংয়ের স্থান
নৌ-বাহিনী ভর্তি তথ্যকেন্দ্র হতে হলি ফ্যামিলি হাসপাতাল পর্যন্ত (উত্তর দিকের গাড়ি, জিরো পয়েন্ট থেকে ইউবিএল এবং ইউবিএল থেকে দৈনিক বাংলা, কার্জন হল থেকে বঙ্গবাজার হয়ে ফুলবাড়িয়া (দক্ষিণ দিকের গাড়ি), মৎস্য ভবন থেকে সেগুনবাগিচা (আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়ি), শিল্পকলা একাডেমির গলি (আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর গাড়ি), সুগন্ধা হতে অফিসার্স ক্লাব (ভিআইপি গাড়ি ও মিডিয়ার গাড়ি পার্কিং), কাঁটাবন হতে নীলক্ষেত হয়ে পলাশী (দক্ষিণ-পশ্চিম দিকের গাড়ি)।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন