Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার ২০ জুলাই ২০১৯, ০৫ শ্রাবণ ১৪২৬, ১৬ যিলক্বদ ১৪৪০ হিজরী।

নাজিবের অ্যাকাউন্টে ৮ হাজার কোটি টাকা এসেছে দুই বছরে

প্রকাশের সময় : ৩ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের বিরুদ্ধে ওঠা অর্থ কেলেঙ্কারিকে ঘিরে রহস্য আরো ঘনীভূত হচ্ছে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল চাঞ্চল্যকর এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী নাজিব রাজাকের ব্যাংক হিসাবে মাত্র দুই বছরে ১০০ কোটি ডলারের বেশি অর্থ (প্রায় ৮ হাজার কোটি টাকা) এসেছে। এর আগে ওয়ান মালয়েশিয়া ডেভেলপমেন্ট বারহাদ (ওয়ানএমডিবি) তহবিলের যে পরিমাণ অর্থ নাজিবের ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসাবে স্থানান্তরের কথা বলা হয়েছিল, এই অর্থ তার চেয়ে আরো অনেক বেশি। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল গত সোমবার নাজিবের ব্যাংক হিসাবের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এবং ওয়ানএমডিবির ঘটনায় তদন্তকারী দুই বিদেশি কর্মকর্তার বরাত দিয়ে জানিয়েছে, ২০১১ থেকে ২০১৩ সালের মধ্যে নাজিবের ব্যাংক হিসাবে ১০০ কোটি ডলারের বেশি অর্থ স্থানান্তর করা হয়েছে। সংবাদমাধ্যমটির দাবি, বিদেশি তদন্ত সংস্থার মতে, এই অর্থের সিংহভাগই ওয়ানএমডিবি তহবিল থেকে আসা। তবে বাকি অর্থ কোন উৎস থেকে এসেছে কিংবা এগুলো পরবর্তীকালে কোথায় সরানো হয়েছে, এ ব্যাপারে কোনো তথ্য জানা যায়নি। এ ব্যাপারে বার্তা সংস্থার পক্ষ থেকে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরে ফোন করা হলেও সেখান থেকে কোনো তথ্য জানানো হয়নি। মালয়েশিয়ার নতুন অর্থনৈতিক খাত এবং সামাজিক উন্নয়নে বড় আকারে বিনিয়োগের জন্য ওয়ানএমডিবি তহবিল চালু করা হয়। বৈশ্বিক সম্পর্কোন্নয়ন এবং সরাসরি বৈদেশিক বিনিয়োগের ব্যবস্থা করে দেশের দীর্ঘ মেয়াদি অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য ২০০৮ সালে এই প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হয়। ২০১৪ সালে এসে দেখা যায়, ওয়ান এমডিবি বাবদ সরকার ১১ বিলিয়ন ডলার ঋণ নিয়েছে, যা শোধ করতে পারছে না। এছাড়া আরো দেখা যায়, বিভিন্ন খাতে প্রয়োজনের অতিরিক্ত পরিমাণ অর্থ খরচ করেছে এই তহবিল। আলোচিত-সমালোচিত ওয়ান মালয়েশিয়ান ডেভেলপমেন্ট বেরহাদ (ওয়ানএমডিবি) নিয়ে বিতর্ক সৃষ্টি হয় ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত একটি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনের মাধ্যমে। ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল, রয়টার্স।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন