Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭, ০৯ কার্তিক ১৪২৪, ০৩ সফর ১৪৩৯ হিজরী

পথ নির্দেশ : ইমাম মাহদী (আ:)-এর আত্মপ্রকাশ

| প্রকাশের সময় : ২০ এপ্রিল, ২০১৭, ১২:০০ এএম | আপডেট : ১০:২৪ পিএম, ২০ এপ্রিল, ২০১৭

মাওলানা মুফতী মোহাম্মদ তাহির মাসউদ
কিয়ামতের বৃহৎ আলামতসমূহের প্রথম নির্দশন হল হযরত ইমাম মাহদী (আ:)-এর আত্মপ্রকাশ। হাদীসসমূহে বিস্তারিতভাবে ইমাম মাহদী (আ:)-এর আলোচনা স্থান লাভ করেছে। হযরত ইমাম মাহদী (আ:) নবী তনয়া বিবি ফাতিমা (রা:)-এর অধস্তন পুরুষ হবেন। নাম হবে মুহাম্মাদ, পিতার নাম হবে আব্দুল্লাহ। রাসূল (স:)-এর সাথে আকৃতিগত যথেষ্ট মিল থাকবে। ললাট দেশ প্রশস্ত, নাক সুউচ্চ হবে। ভূপৃষ্ঠ ইনসাফ ও ন্যায়পরায়ণতায় ভরে দিবেন। প্রথমত: তাঁর হুকুমাত আরবে প্রতিষ্ঠিত হবে। অতঃপর সারা পৃথিবী বিস্তৃত হবে। সাত বছর পর্যন্ত তাঁর হুকুমাত চলতে থাকবে। হাদীস শরীফ এসেছে :
(ক) হযরত আবু সাঈদ খুদরী (রা:) বলেন, রাসূলুল্লাহ (স:) বলেছেন : ইমাম মাহদী আমার বংশে জন্মলাভ করবে। পেশানী উন্মুক্ত, নাক দীর্ঘ। ভূপৃষ্ঠ ইনসাফ ও ন্যায়বিচারে কানায় কানায় ভরে দিবেন। যেমন তার পূর্বে অত্যাচার-নিপীড়নে পূর্ণ থাকবে। তিনি সাত বছর সাম্রাজ্য পরিচালনা করবেন। (সুনানু আবু দাউদ : ২/৫৮৮) (খ) হযরত উম্মে সালমা (রা:) বলেন, আমি রাসূল (স:)কে ইরশাদ করতে শুনেছি, ইমাম মাহদী আমার বংশের ফাতিমা (রা:)-এর উত্তর পুরুষদের অন্তর্ভুক্ত হবে। (সুনানু আবু দাউদ-২/২৩৯) আরবী ভাষায় হেদায়েতপ্রাপ্ত, পথপ্রাপ্ত ব্যক্তিকে “মাহদী” বলে। আভিধানিক দৃষ্টিভঙ্গিতে সঠিক, বিশুদ্ধ ই’তিকাদ লালনকারী, দ্বীনের ইলম অনুযায়ী আমলকারী, দৃঢ় আকীদা বিশ্বাসের সৎ মুসলমানকে “মাহদী” বলা যায়। এ প্রসঙ্গে বলা হয়েছে : অভিধানে আলমাহদী অর্থ আল্লাহপাক যাকে সত্যের প্রতি পথ প্রদর্শন করেছেন। কখনো শব্দটি “নাম” হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছে। এমনকি এটি নাম বলে পরিচিত হয়ে গেছে। এ শব্দ দ্বারাই ঐ ব্যক্তির নাম “ইমাম মাহদী” নামকরণ করা হয়েছে যার সম্পর্কে মহানবী (সা:) সুসংবাদ দিয়েছেন যে, তিনি আখেরী যামানায় আগমন করবেন। (লিসানুল আরব-১৫/৪১৩) এখানে ইমাম মাহদী বলে এক বিশেষ ব্যক্তিকে বোঝানো হয়েছে। ইমাম মাহদী মদীনায় জন্মলাভ করবেন। আখেরী যামানায় যখন মুসলমানগণ সকল দিক হতে পরাজিত-বিধ্বস্ত হতে থাকবে, একের পর এক যুদ্ধ দামামা বাজতে থাকবে, সিরিয়াতেও খ্রিস্টানদের আধিপত্য প্রতিষ্ঠিত হবে, সর্বত্র কাফির-মুশরিকদের জুলুম-নিপীড়ন বৃদ্ধি পেতে থাকবে এমনকি আরব ভূখন্ডের শান-শওকত ও শৌর্য-বীর্য সম্পন্ন নিয়মিত ইসলামী শাসন ব্যবস্থা থাকবে না, খয়বরের কাছাকাছি পর্যন্ত খ্রিস্টানগণ পৌঁছে যাবে এবং তাদের হুকুমাত প্রতিষ্ঠিত হবে। বাচ্চা-কাচ্ছা স্বল্পসংখ্যক মুসলমান মদীনা মনোয়ারায় আশ্রয় গ্রহণ করবে। সে সময় ইমাম মাহদী মনোয়ারাতেই অবস্থান করবেন। মানুষের অন্তরে এ দাবী জাগ্রত হবে যে, এখন ইমাম মাহদীর অন্বেষণ একান্ত প্রয়োজন। তাঁর হাতে ইমামতের শপথ গ্রহণ করা অত্যাবশ্যক। সে কালের সৎলোক, ওলী, আবদাল সকলেই ইমাম মাহদীর অনুসন্ধানে ব্যস্ত থাকবে। এ সুযোগে কিছু ভন্ড, প্রতারক ইমাম মাহদী হওয়ার মিথ্যা দাবীদারের উদ্ভব হবে। জনগণ ইমাম মাহদীকে ইমাম ও হাকিম বানানোর চিন্তায় ও প্রচেষ্টায় রত দেখে ইমাম মাহদী আত্মগোপন অবস্থায় মক্কায় প্রস্থান করবেন। একদা বাইতুল্লাহ শরীফ তওয়াফরত অবস্থায় হাজরে আসওয়াদ ও মাকামে ইবরাহীমের মাঝখানে কতিপয় বিশেষ ব্যক্তি তাঁকে চিনে ফেলবেন ও তাঁকে ঘিরে ধরে ইমাম ও শাসক মেনে সকলে তাঁর হাতে আনুগত্যের শপথ গ্রহণ করবেন। ঐ শপথ অনুষ্ঠানের সময় উপস্থিত সকলে আসমান হতে আগত একটি ধ্বনি শুনবে যে, এ ব্যক্তি ইমাম মাহদী, যিনি আল্লাহ পাকের মনোনীত খলিফা এবং জনগণের শাসক। যখন তাঁর বাইয়াতের বার্তা প্রচারিত হবে তখন মদীনা শরীফে সমবেত সেনাদল মক্কা মুকাররমায় এসে একত্রিত হবে। শাম, ইরাক এবং ইয়ামানের সকল ওলি আল্লাহ, কুতুব, আবদাল তাঁর খেদমতে হাজির হয়ে বাইয়্যাত হবেন তথা আনুগত্যের ঘোষণা দিবেন। হাদীস শরীফে এসেছে :
(ক) হযরত উম্মে সালমা (রা:) হতে বর্ণিত, মহানবী (সা:) ইরশাদ করেন, তৎকালীন খলিফার ইন্তিকালে জনগণের মাঝে মতানৈক্য পরিদৃশ্য হবে। মদীনার জনৈক বিশেষ ব্যক্তি (ইমাম মাহদী) নিজের পরিচয় গোপন রেখে মক্কায় পাড়ি জমাবেন। মক্কাবাসীরা ইমাম মাহদীকে খলিফা বানানোর জন্য অন্বেষণ করতে গিয়ে তাঁকে বের করে ফেলবেন। যদিও তিনি এ দায়িত্ব গ্রহণ করতে সন্তুষ্টচিত্ত থাকবেন না। তা সত্ত্বেও লোকেরা রুকনে হাজার ও মাকামে ইবরাহীমের মাঝে তার হাতে আনুগত্যের বাইয়্যাত করবেন। ... লোকেরা জানতে ও দেখতে পেরে শামের আবদালগণ, ইরাকের জনগণ দলে দলে তাঁর হাতে উক্ত স্থানে আনুগত্যের শপথ নিবেন। (সুনানু আবু দাউদ-২/২৩৯) (খ) জনৈক ঘোষক আসমান থেকে ঘোষণা দিবেন হে লোক সকল! আল্লাহ তাওয়ালা অত্যাচারী, মুনাফিক ও তৎসম গোষ্ঠীসমূহকে তোমাদের থেকে বিচ্ছিন্ন করে দিয়েছেন ও মুহাম্মদ (স:)-এর উম্মাতের শ্রেষ্ঠ ব্যক্তিকে তোমাদের অভিভাবক নিযুক্ত করেছেন, তোমরা তার সাথে মিলিত হও। সে ইমাম মাহদী। নাম তার মুহাম্মদ বিন আব্দুল্লাহ। (শরহে আকীদায়ে সিফারিনিয়্যাহ-২/৮০, ৮১) ইমাম মাহদীর সঙ্গে যুদ্ধ করতে একটি সেনাদল আসতে থাকবে। মক্কা ও মদীনার মাঝামাঝি একটি জনবসতিহীন স্থানে তারা এসে একটি পাহাড়ের নিচে অবস্থান নিবে। মাত্র দুজন লোক ব্যতীত সকলে উক্ত স্থানে ভূমিধসে খতম হয়ে যাবে। ইমাম মাহদী মক্কা হতে মদীনায় আগমন করবেন। অতঃপর শামের দিকে রওয়ানা করবেন। দামিশ্ক উপনীতি হলে খ্রিস্টানদের সাথে এক রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ সংঘটিত হবে যাতে বহুসংখ্যক মুসলমান শহীদ হলেও শেষপর্যন্ত বিজয় মুসলমানদের পদচুম্বন করবে। ইমাম মাহদী দেশের সার্বিক ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব সম্পন্ন করে কুস্তুনতুনিয়া বিজয়ের অভিলাষে বের হবেন। হাদীস শরীফ এসেছে (ক) হযরত আবু হুরাইরা (রা:) হতে বর্ণিত, রাসূল (সা:) বলেছেন : কিয়ামত কায়েম হবে না, যতক্ষণ না রোমবাসীগণ আ’মাক বা দাবিকে অবতরণ করবে। অনন্তর তৎকালীন ভূপৃষ্ঠের শ্রেষ্ঠতম লোকদের একটি সেনা দল মদীনা হতে তাদের মোকাবেলায় বের হবে। অতঃপর তারা কুস্তুনতুনিয়া বিজয় করবে। হযরত হুযাইফাতুবনুল ইয়ামান (রা:) হতে বর্ণিত হাদীসে হযরত রাসূল (স:) একটি ফিতনার কথা বললেন যা প্রাচ্য ও পাশ্চাত্যের অধিবাসীদের মধ্যে মাথাচাড়া দিবে। তাদের মধ্যেই অতিদ্রুত শুষ্ক প্রান্তর হতে সিফয়ানী দল আগমন করবে অন্য একটি সেনাদল মদীনাতে প্রবেশ করবে। (চলবে)

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।