Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭, ০৯ কার্তিক ১৪২৪, ০৩ সফর ১৪৩৯ হিজরী

প্রধানমন্ত্রী থেরেসার নির্বাচনের ঘোষণা পার্লামেন্টে অনুমোদন

ব্রিটেনে ৮ জুন আগাম নির্বাচন, রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে প্রস্তুতি শুরু

| প্রকাশের সময় : ২১ এপ্রিল, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের আগাম সাধারণ নির্বাচন আয়োজনের ঘোষণা অনুমোদন করেছে পার্লামেন্ট। ফলে ৮ জুনই হবে এই নির্বাচন। নির্বাচনে লড়াইয়ের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে দলগুলো। গত বুধবার যুক্তরাজ্যের হাউস অব কমন্সে এ নিয়ে ভোটাভুটি হয়। আগাম নির্বাচনের পক্ষে পড়েছে ৫২২টি ভোট এবং বিপক্ষে পড়েছে মাত্র ১৩টি। লেবার পার্টি ও লিব ডেম পার্টি সমর্থন দেয়ায় অনুমোদনের জন্য প্রয়োজনীয় দুই-তৃতীয়াংশের অনেক বেশি ভোট পড়েছে থেরেসা মের আগাম নির্বাচনের পক্ষে। পার্লামেন্ট এ সমর্থন দেয়ার পরপরই শুরু হয়ে গেছে নির্বাচনী প্রচারাভিযানও। যদিও মে মাসের আগে পার্লামেন্ট ভাঙছে না। পার্লামেন্টে থেরেসা বলেছেন, জাতির জন্য অতীব গুরুত্বপূর্ণ এ সময়টিতে এখানে ওয়েস্টমিনস্টারে একতাই থাকা চাই, বিভক্তি নয়। তিনি বলেন, সাধারণ নির্বাচনের ফলে দেশ পাঁচ বছরের জন্য একটি বলিষ্ঠ এবং স্থিতিশীল নেতৃত্ব পাবে, যাতে করে ব্রেক্সিট আলোচনা গতি পাবে এবং এর ফলে যুক্তরাজ্য সাফল্য বয়ে আনতে পারবে। আর এ বিষয়টিই গুরুত্বপূর্ণ। উল্লেখ্য, প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে গত মঙ্গলবার সবাইকে অবাক করে দিয়ে আগাম নির্বাচনের ঘোষণা দেন। ব্রিটেনের বর্তমান সংসদের মেয়াদ ২০২০ সাল পর্যন্ত থাকলেও মে এবছর ৮ জুন নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য পার্লামেন্টে প্রস্তাব রাখেন তার এ সিদ্ধান্তকে সমর্থন করে বিবিসি কে থেরেসা মে বলেছিলেন, অনেক অনিচ্ছা সত্তে¡ও সা¤প্রতিক দিনগুলোতে তিনি মন বদলেছেন। বিবিসি রেডিও ফোর’স টুডে-কে তিনি বলেন, কোনো রাজনীতিবিদই কেবল এই একটি কারণে নির্বাচন করতে চায় না এবং এটি করতে গেলে ঝুঁকি আছে। কিন্তু তারপরও দৃঢ়কণ্ঠে থেরেসা বলেছিলেন, তিনি ব্রিটিশ জনগণকে বিশ্বাস করেন, আর একারণেই তিনি জনগণকেও তার ওপর আস্থা রাখার অনুরোধ জানাচ্ছেন। দু’বছরের ব্রেক্সিট (ইইউ থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়া) প্রক্রিয়া সফলভাবে শেষ করতে যে কোনো সময়ের চেয়ে এখন একটি বলিষ্ঠ নেতৃত্ব দরকারÑ এমনটিই বিশ্বাস করেন বলে জানিয়েছিলেন থেরেসা। যুক্তি দেখিয়ে তিনি বলেছিলেন, ব্রেক্সিট প্রক্রিয়ার সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে এ নির্বাচন তার অবস্থানকে আরো শক্তিশালী করবে এবং ব্রেক্সিট প্রক্রিয়া সফল করতে সহায়ক হবে। গত বুধবার থেরেসার আগাম নির্বাচনের এ প্রস্তাব হাউজ অব কমন্সে ভোটাভুটিতে শেষপর্যন্ত প্রয়োজনীয় দুই-তৃতীয়াংশ ভোটেই পাস হয়েছে। প্রসঙ্গত, গতবছর গণভোটে যুক্তরাজ্যের জনগণ ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে বেরিয়ে যাওয়ার পক্ষে ভোট দিলে তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ডেভিড ক্যামেরন পদত্যাগ করেন, তিনি ইইউ’য়ে থেকে যাওয়ার পক্ষে ছিলেন। ক্যামেরনের পদত্যাগের পর সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এবং কনজারভেটিভ পার্টির নতুন নেতা থেরেসা মে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব নেন।
প্রতিশ্রæতি অনুযায়ী, গত ২৯ মার্চ ইউরোপী ইউনিয়নে চিঠি পাঠিয়ে তিনি ২৮ দেশের এই পরিবার থেকে যুক্তরাজ্যের বেরিয়ে যাওয়ার আনুষ্ঠানিক প্রক্রিয়াও শুরু করেন। এর আগে একাধিকবার আগাম নির্বাচনের সম্ভাবনা নাকচ করে আসা থেরেসা তার মন পরিবর্তনের ব্যাখ্যায় বলেন, ব্রেক্সিট নিয়ে আলোচনার সময় তার নিজেকে শক্তিশালী অবস্থানে নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন ছিল। কারণ ব্রেক্সিট আলোচনা ব্রিটেনকে নতুন রূপ দেবে এবং ইইউ’র ঐক্যের পরীক্ষা নেবে। বিবিসি রেডিওকে দেয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমি এ (আগাম নির্বাচন) সিদ্ধান্ত নিয়েছি, কারণ আমি সত্যিই বিশ্বাস করি এর সঙ্গে পুরো জাতির স্বার্থ জড়িত। এদিকে, যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মে’র আগাম নির্বাচন ঘোষণায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের (ইইউ) ব্রেক্সিট পরিকল্পনা বদলাচ্ছে না বলে জানিয়েছে ইইউ নেতাদের প্রতিনিধিত্বশীল ইউরোপীয় কাউন্সিল। ইতোপূর্বে ২০২০ সালের আগে নির্বাচন না ডাকার প্রতিশ্রæতি দিলেও এখন মন বদলে ৮ জুনেই আগাম নির্বাচন ডাকার পরিকল্পনা জানিয়েছেন। তবে ইউরোপীয় কাউন্সিলের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড টাস্কের মুখপাত্র বলেছেন, ইইউ এর বাকি ২৭টি দেশ পরিকল্পনা মতোই এগিয়ে যাবে। বিবিসি।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।