Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭, ০৬ কার্তিক ১৪২৪, ৩০ মুহাররম ১৪৩৯ হিজরী

লোহাগড়ায় মাদরাসাছাত্রীকে ধর্ষণ ভিডিও ধারণ : থানায় মামলা

| প্রকাশের সময় : ২১ এপ্রিল, ২০১৭, ১২:০০ এএম

নড়াইল জেলা সংবাদদাতা : নড়াইলের লোহাগড়ায় এক মাদরাসার ছাত্রীকে তার লম্পট প্রেমিক জোর করে ধর্ষণ করেছে। এ সময় ধর্ষকের সহযোগীরা ধর্ষণের দৃশ্য ও ছবি মোবাইলে ধারণ করে। এ ঘটনায় ধর্ষিতার পিতা বাদী হয়ে পাঁচজনকে আসামি করে লোহাগড়া থানায় মামলা দায়ের করেছে।
জানা যায়, উপজেলার মল্লিকপুর ইউনিয়নের পাঁচুড়িয়া গ্রামের নজরুল ইসলামের মেয়ে সোনাদাহ পাঁচুড়িয়া ফারিয়া দাখিল মাদরাসার সপ্তম শ্রেণির ছাত্রীর (১৪) সাথে পাশ^বর্তী মল্লিকপুর গ্রামের নুরুজ্জামান শেখের লম্পট ছেলে মোজাহিদ শেখ (১৭) কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিল।
মোজাহিদের কুপ্রস্তাবে সাড়া না দেয়ায় গত ১৬ এপ্রিল দুপুরে মাদরাসা ছুটির পর ওই ছাত্রী বাড়ি ফেরার সময় লম্পট প্রেমিকসহ তার সহযোগী জিসান, সজিব, চঞ্চল ও রোমান ওই ছাত্রীকে ফিল্মি স্টাইলে জোর করে মাদরাসার নিকটবর্তী চাঁনমিয়া শরিফের বাগানে নিয়ে মোজাহিদ তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে। এ সময় মোজাহিদের চার বন্ধু ধর্ষণের দৃশ্য ও ছবি মোবাইলে ধারণ করে এবং ওই ছাত্রীর বইখাতা কেড়ে নিয়ে বিষয়টি কাউকে জানালে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।
এ ঘটনায় ছাত্রীর পিতা নজরুল শেখ বাদী হয়ে বুধবার লোহাগড়া থানায় একটি মামলা দায়ের করে। গতকাল বৃহস্পতিবার ধর্ষিতার ডাক্তারি পরীক্ষা নড়াইল সদর হাসপতালে সম্পন্ন হয়েছে। তবে পুলিশ ধর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি।

 


Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ২১ এপ্রিল, ২০১৭, ৭:৪৭ এএম says : 0
    সারা বাংলাদেশের আনাচে কানাচে ধর্ষকদের বসবাস। এখন কথা হচ্ছে মেয়েরা লেখা পড়া শিখতে চাইলে স্কুলে যেতেই হবে আর তখন তাকে রাস্তাদিয়ে হেটেই যেতে হবে। গ্রামের রাস্তা ক্ষেতে বা বাগানের বা বাড়ি ঘরের পাশ দিয়েই হয়ে থাকে। আর এই কারনে বদমাশ ছেলেরা ফন্দী এটে ঐ রকম যায়গার কাছে আসলেই আক্রমণ করে মেয়েকে নিয়ে ধর্ষন করে থাকে। আমি মনে করি এখন গ্রামের স্বেচ্ছা সেবক এবং মেয়েদের অভিভাগকগন একত্রিত হয়ে এসব অপকর্ম বন্ধের জন্য নিরিবিলি এলাকার উপর নজর দারির (বিশেষ করে স্কুলে যাতায়তের সময়) ব্যবস্থা করা দরকার। সাথে সাথে আমি এই বিশেষ ঘটনার পরবর্তি কি ব্যবস্থা গ্রহণ হচ্ছে তার উপরও লোহাগাড়ার সাংবাদিকের ক্রমান্বয় সংবাদ পত্রিকার দপ্তরে পাঠিয়ে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করছি। তাহলে কোন মহল বা দেশের রাজা পুলিশ এই ঘটনাকে কোন ভাবেই টুইষ্ট করে মামলার দিক ঘুড়িয়ে কিংবা আপোষ নিষ্পত্তির নামে মামলার সাজা থেকে আসামিকে বাঁচাতে না পারবেনা। সমাজ আরো একটা বিহিত করতে পারে সেটা হচ্ছে এইসব দুস্কৃতিকারির পিতা মাতা সহ পরিবারের সবাইকে সমাজ চুত্ত করা। এটা করতে পারলে এসব দুষ্ট ছেলেদের বাবা মার টনক নড়বে এবং সামনের দিকে অঘটন ঘটার আর সম্ভবনা থাকবেনা এটাই সত্য। আল্লাহ্‌ আমাদের দেশের অভিভাবকদেরকে তাদের সন্তানদের সঠিক পথে পরিচালনা করার ক্ষমতা দান করুন। আমীন
    Total Reply(0) Reply
  • পারভেজ ২১ এপ্রিল, ২০১৭, ১১:০৭ এএম says : 0
    তবে পুলিশ ধর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে আটক করতে পারেনি। - ?????
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।