Inqilab Logo

ঢাকা রোববার, ২৯ নভেম্বর ২০২০, ১৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৩ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী

ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের বাইরে অবস্থান কর্মসূচি

ইসরাইলি কারাগারে অনশনরত ফিলিস্তিনিদের প্রতি সমর্থন

| প্রকাশের সময় : ৩০ এপ্রিল, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : ইসরাইলের কারাগারে অনশনরত দেড় হাজার ফিলিস্তিনি রাজবন্দির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেছেন ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টের একদল সদস্য। গত বৃহস্পতিবার বন্দিদের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়ে তারা ব্রাসেলসের ইউরোপীয় পার্লামেন্টের বাইরে এক অবস্থান কর্মসূচিতে অংশ নেন। ইউরোপিয়ান পার্লামেন্টে ফিলিস্তিনের সঙ্গে সম্পর্ক বিষয়ক প্রতিনিধি দলের প্রধান নিওক্লিস সাইলিকিওটিস এ কর্মসূচির আয়োজন করেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে মধ্যপ্রাচ্যভিত্তিক সংবাদমাধ্যম মিডল ইস্ট মনিটর। অবস্থান কর্মসূচিতে সুইডেন, গ্রিস, ফ্রান্স, ইতালি, স্পেন, যুক্তরাজ্য, অস্ট্রিয়া, ডেনমার্ক ও পর্তুগালের অনেক এমপি অংশ নেন। অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে আইরিশ রাজনীতিক মার্টিনা অ্যান্ডারসনও উপস্থিত ছিলেন। নিজের টুইটার অ্যাকাউন্টে এ অবস্থান কর্মসূচির একাধিক ছবিও পোস্ট করেছেন তিনি। কর্মসূচিতে অংশ নিয়ে আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান বেলজিয়ামে ফিলিস্তিনি দূতাবাসের প্রতিনিধি আদেল আতিয়েহ। এর আগে চলতি মাসেই ফিলিস্তিনি বন্দিদের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রকাশ করেন ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির পাঁচ শিক্ষার্থী। তারা ইসরাইলকে সমর্থনকারী কোম্পানিগুলোর সঙ্গে সম্পর্ক ছিনড়ব করতে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান। চলতি বছর ১৭ এপ্রিল থেকে গণঅনশন শুরু করেছেন ইসরাইলের কারাগারে থাকা এক হাজার ৫০০ ফিলিস্তিনি রাজবন্দি। কারাগারে মৌলিক অধিকার আদায় এবং বিদ্যমান মানবেতর পরিস্থিতি উনড়বয়নের দাবিতে তারা এই অনশন শুরু করেন। এর আগে বন্দিদের সঙ্গে সংহতি প্রকাশ করে ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির এই পঁাঁচ শিক্ষার্থী বলেন, ন্যায়বিচারের লড়াইয়ে ওই বন্দিদের সঙ্গে আমরা একাত্মতা প্রকাশ করছি। ওই শিক্ষার্থীদের মুখপাত্র হুদা আমোরি। তিনি জানান, তারা চান ইসরাইলকে সমর্থন ও সহায়তাকারী কোম্পানিগুলোকে যেন ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটি কর্তৃপক্ষ বর্জন করে। ফিলিস্তিনি পরিসংখ্যান অধিদফতরের হিসাব অনুযায়ী, ১৯৬৭ সালের পর থেকে ইসরাইলের কারাগারে চিকিৎসার অভাবে এখন পর্যন্ত অর্ধশতাধিক ফিলিস্তিনির মৃত্যু হয়েছে। অনেক বন্দি স্বাস্থ্যজনিত সমস্যায় ভোগেন। কারাগার থেকে আদালতে নিয়ে যাওয়ার সময়ও বন্দিদের সঙ্গে বাজে আচরণ করা হয়। বস্তা নামের একটি কালো গাড়িতে তাদের আদালতে নিয়ে যাওয়া হয়। বন্দিরা বলছেন, ওই গাড়িতে তাদের অন্ধকারে শেকল দিয়ে বেঁধে রাখা হয়। মিডল ইস্ট মনিটর।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন