Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৭, ১৫ রবিউস সানি ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

ক্ষমতায় নয়, বিরোধী দলও হতে পারবে না বিএনপি এনামুল হক শামীম

| প্রকাশের সময় : ৮ মে, ২০১৭, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার: আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এনামুল হক শামীম বলেছেন, ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় যেতে বিএনপি নেতারা নতুন খোয়াব দেখছেন। তাই তাদের দলের নেতারা প্রায়ই বলছেন-‘কিছুদিনের মধ্যে বিএনপি ক্ষমতায় আসবে।’ ক্ষমতায় নয়, আগামী নির্বাচনে বিএনপি বিরোধী দলেও আসতে পারবে না। কারণ তাদের দুর্নীতি, লুটপাপট, মানুষ হত্যার রাজনীতি দেশের জনগণ ভুলে যায়নি। জঙ্গিবাদ-সন্ত্রাসের মদদদাতাদের মানুষ ক্ষমতায় বসাবে না। গতকাল দুপুরে ধানমন্ডিতে জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
এনামুল হক শামীম বলেন, বিএনপি ক্ষমতায় থেকে দেশের সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন চালায়। দুর্নীতি করে অর্থ বিদেশে পাঁচার করে। খালেদা জিয়া প্রধানমন্ত্রী হয়ে এতিমের মেরে খায়। আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশুন্য করতে রাষ্ট্রীয় মদদে গ্রেনেড হামলা চালায়। বিরোধী দলে থেকে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠাতার নামে মানুষ হত্যা করে আগুনতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করে। আর যাইহোক দেশের মানুষ কখনোই ভোট দিয়ে বিএনপিকে ক্ষমতায় বসাবে না। তাদের জন্য মুসলিম লীগের পরিণতি অপেক্ষা করছে।
বিএনপি নেতাদের প্রতি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও সাবেক জাকসু ভিপি শামীম বলেন, রাজনীতি করলে মাঠে নামুন। এসি রুমে বসে সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করবেন না। বাংলাদেশের মাটিতে আপনাদের ষড়যন্ত্র সফল হবে না। দেশের গণতন্ত্রকামী মানুষ অতীতে যেমনভাবে বিএনপি ষড়যন্ত্র রুখে দিয়েছে। আগামীতেও রুখে দাড়াবে। তিনি বলেন, বিএনপি কখনোই গণতন্ত্র ও স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব বিশ্বাস করে না। তাদের দেশের জনগণের প্রতি আস্থা নেই। ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে ক্ষমতায় আসতে চায়। আগে বিদেশীদের দিকে তাকিয়ে থাকতো। শক্তিশালী কোন একটি দেশের নির্বাচন হলেই তারা আনন্দে আত্মহারা হয়ে যেত। এই মনে হয় তাদের ক্ষমতায় বসিয়ে দিচ্ছে। কিন্তু সেই দেশের নেতারা যখন তাদের গতিতে বসাননি, তখন ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। জঙ্গিদের মদদ দিচ্ছে-সরকারকে অস্থিতীশীল করার চেষ্টা করছে।
এসময় জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতির মধ্যে মেহেদী হাসান জামিল, রাশেদুল ইসলাম সাফিন, সাবেক সাধারণ সম্পাদকদের মধ্যে নূর হোসেন সৈকত, মাহমুদুল নাসের জনি, রাজিব আহমেদ রাসেল, সাবেক ছাত্রনেতা জহির শিকদারসহ শতাধিক সাবেক ছাত্রনেতা উপস্থিত ছিলেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ