Inqilab Logo

শনিবার, ০২ জুলাই ২০২২, ১৮ আষাঢ় ১৪২৯, ০২ যিলহজ ১৪৪৩ হিজরী
শিরোনাম

বরিশালে চাল পাচারের অভিযোগে তিন নিরাপত্তা রক্ষী গ্রেফতার

| প্রকাশের সময় : ১০ মে, ২০১৭, ১২:০০ এএম

আটক কর্মকর্তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে তদন্ত কমিটি গঠন
বরিশাল ব্যুরো : বরিশাল সদরের এলএসডি খাদ্য গুদাম থেকে প্রায় ২০টন সরকারী চাল পাচারের অভিযোগে র‌্যাবের হাতে আটক ৫ জনের মধ্যে তিন নিরাপত্তা রক্ষীকে গ্রেফতার করে পুলিশে সোপার্দের পরে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে। এসময় আটককৃত ৫০কেজি ওজনের ৩৮৫বস্তা চালসহ ট্রাকটিও বরিশাল কোতয়ালী পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে র‌্যাব। আঞ্চলিক খাদ্য দফ্তর থেকে ভারপ্রাপ্ত জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের নেতৃত্বে ৩সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে তিন কার্য দিবসের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দিতে বলা হয়েছে। খাদ্য অধিদফতর থেকেও বিষয়টি নিয়ে সার্বক্ষনিক মনিটরিং করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।
একটি সরকারী বাহিনীর রেশনের জন্য ঐসব চাল বরিশাল ও জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রকের দফ্তর সংলগ্ন এলএসডি থেকে বের করার কথা কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছিল গুদামের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা। কিন্তু র‌্যাব গোপন সূত্রে জানতে পারে ঐসব চাল খুলনার ফুলতলা এলাকার কোন এক চাল ব্যাবসায়ীর কাছে পাচার করা হচ্ছে। এ তথ্যের ভিত্তিতে গত সোমবার দুপর থেকে অভিযান চালিয়ে র‌্যাবÑ৮’এর বরিশাল স্পেলাইজড কোম্পানী যশোর-ট ১১-২৯৭৬ নম্বরের ট্রাকে বোঝাই করা প্রায় ২০টান চাল আটক করে। এসময় র‌্যাব ওসি এলএসডি আবদুল্লাহ আল মামুন, সহকারী উপ-খাদ্য পরিদর্শক আবদুর রহিম হাওলাদার, নিরাপত্তা প্রহরী আরিফুল ইসলাম, শাহাবুদ্দিন সিকদার ও কবির খান ছাড়াও ট্রান্সপোর্ট এজন্সীর ব্রোকার কবিরকে আটক করে।
তবে সোমবার রাতেই তিন নিরারপত্তা রক্ষী ছাড়া অন্য সকলকে ছেড়ে দিয়ে কোতয়ালী থানায় একটি মামলা দায়ে করা হয়েছে। বিষয়টি সম্পর্কে গতকাল আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকের সাথে তার ল্যান্ড ফোন ও সেল ফোনে যোগাযোগের বহু চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি। তবে খাদ্য বিভাগের একটি দায়িত্বশীল সূত্র নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, আটককৃত ঐসব চাল কোথায় যাচ্ছিল এবং কেন বরাদ্বের ভিত্তিতে গুদাম থেকে বের করা হচ্ছিল তদন্ত না করে তা বলা যাবে না। বিষয়টি পূর্ণাঙ্গ তদন্তে ৩ সদস্যের একটি কমিটি গঠনের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, মঙ্গলবারই তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেছে। আগামী রবিবার নাগাদ ঐ কমিটি প্রতিবেদন দাখিলের পরে বিষয়টি সম্পর্কে সচ্ছ ধারণা পাওয়া যাবে। তদন্তে যে কেউ দোষি সাব্যস্ত হলে তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ও সরকারী বিধি মোতাবেক শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলেও জানায় সূত্রটি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ