Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৫ আগস্ট ২০২০, ৩১ শ্রাবণ ১৪২৭, ২৪ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

দুর্নীতির প্রধান কারণ হচ্ছে প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতা -দুদক চেয়ারম্যান

| প্রকাশের সময় : ১৫ মে, ২০১৭, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, দুর্নীতির প্রধান কারণ হচ্ছে প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতা। ২০১৬ সালের এপ্রিল মাসেই হাওরের ছোট্ট একটি সংবাদের ভিত্তিতে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ে আমরা প্রতিবেদন চেয়েছিলাম। সেই প্রতিবেদন পেতে আমাদের দশ মাস সময় লেগেছে।এক্ষেত্রে পর্যবেক্ষণ পদ্ধতি কাজ করেনি। পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা এমনভাবে করা উচিত যাতে সময়াবদ্ধ সময়ে কাজ না করলে শাস্তি নিশ্চিত করা যায়। গতকাল রোববার বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল মিলনায়তনে দুর্নীতি ও অনুসন্ধানী সাংবাদিকতা শীর্ষক সেমিনারে  দুদক চেয়ারম্যান এসব কথা বলেন।
কমিশন বিভিন্ন উৎস থেকে দুর্নীতির হাজারো অভিযোগ পায়। এসকল অভিযোগের প্রায় ৯০ থেকে ৯৫ ভাগই কমিশন আইনের তফসিল বহির্ভূত অথবা প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্তবিহীন। তাই দুর্নীতি নিয়ে অনুসন্ধানী প্রতিবেদন, দুর্নীতি প্রতিরোধে খুবই কার্যকর ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি বলেন, সাংবাদিকদের দীপ্ত পদচারণায় ুর্নীতিপরায়নরা সবসময় ভীত থাকে। দুর্নীতিপরায়নরা নৈতিকভাবে দুর্বল। তাই সাংবাদিকদের নৈতিক মূল্যবোধ যত উন্নত হবে দুর্নীতিপরায়নরা ততই অবনমিত হবে।  দুদক চেয়ারম্যান আরো বলেন, প্রতিটি প্রতিষ্ঠান যদি সুশাসনের লক্ষ্যে চাপসৃষ্টিকারী গোষ্ঠী হিসেবে কাজ করে তাহলে অবশ্যই দেশের দুর্নীতি সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসবে।
দুর্নীতি দমন কমিশনের কার্যক্রমে যদি কোনো ত্রæটি থাকে, তাহলে সাংবাদিকরা নিঃসংকোচে লিখতে পারবেন। দুর্নীতি দমন কমিশন কোনো মরুদ্যান নয়।
প্রেস কাউন্সিলের চেয়ারম্যান বিচারপতি মোহাম্মদ মমতাজ উদ্দীন আহমেদের সভাপতিত্বের সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএফইউজে সভাপতি মনজুরুল আহসান বুলবুল।



 

Show all comments
  • Mohammed Shah Alam Khan ১৫ মে, ২০১৭, ৮:০৪ এএম says : 3
    দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ বলেছেন, দুর্নীতির প্রধান কারণ হচ্ছে প্রাতিষ্ঠানিক দুর্বলতা এই কথাটাই মূল কথা এর উপর ভিত্তি করে সরকার পদক্ষেপ নিলে আমি মনে করি দেশের আমূল পরিবর্তন ঘটবে এতে কোন সন্দেহ নেই। কিন্তু দূর্ভাগ্য হচ্ছে ভাল কথা আমাদের সরকারের কানে যায়না। আমি আমার অনেক লিখায় বলেছি দেশের সাংবাদিক এরপর আইনজীবী এনারা যদি সঠিক পথে থেকে নিজ নিজ দায়িত্ব সঠিক ভাবে পালন করেন তাহলে দেশে দূর্নীতিবাজ থাকতে পারেনা এবং আইনের শাসন সুপ্রতিষ্ঠিত হতে বাধ্য। আজ ইকবাল মাহমুদ সাহেব বলেছেন, “সাংবাদিকদের দীপ্ত পদচারণায় দূর্নীতিপরায়নরা সবসময় ভীত থাকে। দুর্নীতিপরায়নরা নৈতিকভাবে দুর্বল। তাই সাংবাদিকদের নৈতিক মূল্যবোধ যত উন্নত হবে দুর্নীতিপরায়নরা ততই অবনমিত হবে।“ এটাই মহা সত্য দেশ ও জাতীর জন্য। কাজেই সাংবাদিকদেরকে বুঝতে হবে তাদের দায়িত্ব কি এবং তাদের উপর দেশ ও সমাজ কতটা নির্ভরশীল তাহলেই তারা তাদের মর্যাদা ও দায়িত্ব বুঝবে এবং সেইভাবে কাজ করবে। সাংবাদিকদের জীবন আয়েশ করার জীবন নয় কাজেই যারা এই পেশায় আসতে চান তাদেরকে বুঝতে হবে তাদেরকে সারাটা জীবন শুধুই দেশ ও জাতিকে দিয়ে যেতেই হবে। বিনিময় বলতে আমরা যা বুঝি সেটা এই পেশায় যারা নিয়জিত তারা পাবেন না এটাই সত্য। তবে সাংবাদিকরা পাবেন জাতীর কাছে স্বীকৃতি এবং সম্মান কিন্তু পয়সা তেমন পাবেন না তাই তাদের জীবন আয়েশের জীবন হবে না। তাই সাংবাদিকদেরকে সেইভাবেই প্রস্তুতি নিয়েই এই পেশায় আসা উচিৎ। এখানে দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ আরো বলেন, প্রতিটি প্রতিষ্ঠান যদি সুশাসনের লক্ষ্যে চাপসৃষ্টিকারী গোষ্ঠী হিসেবে কাজ করে তাহলে অবশ্যই দেশের দুর্নীতি সহনীয় পর্যায়ে নেমে আসবে। ওনার এই কথাটা কঠিন ভাবে সত্য কথা কিন্তু এটাকি হচ্ছে??? আবশ্যই না, এদেশে কোন প্রতিষ্ঠানই সুশাসনের জন্য চাপ সৃষ্টিকারী হিসাবে কাজ করছে না এবং করবেও না কারন ঐ পকেট বানিজ্য। এটাই আমরা বহু বছর ধরে দেখে আসছি তাই না??? পরিশেষে আমি বলতে চাই ইকবাল মাহমুদ সাহেব তার দায়িত্ব প্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানটিকে যেভাবে এগিয়ে নিচ্ছেন এবং বিভিন্ন পদ্ধতীতে আলোচনার মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছেন এভাবে করতে থাকলে দেশের পরিবর্তন আসতে বাধ্য। আল্লাহ্‌ ইকবাল মাহমুদ সাহেবকে দেশের ও জাতীর জন্য কাজ করার নিমিত্তে ওনাকে দীর্ঘায়ু ও সুসাস্থ দান করেন। আমীন
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: দুদক চেয়ারম্যান


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ