Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৯ মে ২০১৭, ১৫ জ্যৈষ্ঠ , ১৪২৪, ০২ রমজান ১৪৩৮ হিজরী

কুবিতে ছাত্র হলের কয়েক হাত দূরেই ছাত্রী হল

| প্রকাশের সময় : ১৯ মে, ২০১৭, ১২:০০ এএম

পরিকল্পিত ভবন নির্মাণের দাবি শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের
কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয় সংবাদদাতা : কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্র হলের মাত্র কয়েক হাত দূরেই নির্মিত হচ্ছে ছাত্রীদের জন্য একটি আবাসিক হল। সুপরিকল্পিতভাবে স্থাপনা নির্মাণ হচ্ছে না বলে ক্ষোভ প্রকাশ করে পরিকল্পিত অবকাঠামোগত উন্নয়নের দাবি জানান বিশ্ববিদ্যালয় পরিবারের সদস্যরা। দুইটি ছাত্র হলের লাগোয়া নতুন ছাত্রী হল নির্মাণ কাজ শুরু হওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষার্থীদের মাঝে বেশ কয়েকদিন ধরেই মিশ্র প্রতিক্রিয়া এবং ক্ষোভ দেখা দিয়েছে।
জানাযায়, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলের মূল ফটক সংলগ্ন সড়কের উপর শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত ও কাজী নজরুল ইসলাম হলের কয়েক হাত দূরেই ১৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ছাত্রীদের জন্য নির্মাণ করা হচ্ছে ৩০০ শয্যা বিশিষ্ট নতুন একটি আবাসিক হল।
নির্মাণের জায়গা সরেজমিনে পরিদর্শনে দেখা যায়, শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলের সড়ক কেটে ছাত্রী হল নির্মাণ কাজের প্রক্রিয়া চলছে। নতুন এই ছাত্রী হলটি ছাত্র ও ছাত্রীদের গোপনীয়তাকে চরমভাবে বিনষ্ট করবে বলে মনে করছেন শিক্ষার্থীরা। ছাত্রদের হলের এত কাছে ছাত্রী হল নির্মাণ হলে ছাত্র বা ছাত্রীদের হলের ছাদে কেউই স্বাচ্ছন্দে উঠতে পারবে না। দত্ত হল, শিক্ষক ডরমেটরি, উপাচার্যের বাসভবন, নওয়াব ফযজুন্নেছা হলের মাঝে এ জায়গাটি নতুন কোন স্থাপনা নির্মাণের জন্য উপযোগী নয়। এ সংকুচিত জায়গায় নতুন হল নির্মাণ না করে ভূমি অধিগ্রহণের দিকে দৃষ্টি দিতে প্রশাসনের প্রতি দাবি জানান শিক্ষার্থীরা। দত্ত এবং নজরুল ইসলাম হলের কাছেই নতুন হল নির্মাণ করলে এসব স্থাপনাকে ঘিরে কোন ফাঁকা জায়গাই আর অবশিষ্ট থাকবে না। সুদুর পরিকল্পনা থাকলে কর্তৃপক্ষ এমনটি কিভাবে চিন্তা করতে পারে বলে ক্ষোভ জানান দত্ত ও নজরুল হলের আবাসিক শিক্ষার্থীরা। এদিকে নতুন হল নির্মাণের জন্য ধীরেন্দ্রনাথ দত্ত হলের সড়ক কাটা পড়ায় দত্ত হলের জন্য সড়কটি ঘুরিয়ে টিলার উপর দিয়ে খাড়া করে নামিয়ে দেওয়ার কাজ চলছে যা নির্মিতব্য ছাত্রী হলের প্রাচীর ঘেষা হবে।
বেশ কয়েকটি দালানের মাঝে খুবই স্বল্প জায়গায় ছাত্রী হল নির্মাণের প্রক্রিয়া শুরু করায় শিক্ষক এবং শিক্ষার্থীদের মাঝে বেশ ক্ষোভ এবং মিশ্র প্রতিক্রিয়াও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইজবুকেও এ নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।
এমন জায়গায় কোন স্থাপনা নির্মাণ বিশেষ করে ছাত্রী হল নির্মানের কথা শিক্ষার্থীরা চিন্তাই করতে পারেননি। দুটি ছাত্র হল এবং শিক্ষক ডরমেটরির পাশে ছাত্রী হল নির্মাণ কতটা যৌক্তিক এমন প্রশ্ন ছাত্রীদের মাঝে।
ছাত্র হল গুলোর পাশেই ছাত্রী হল নির্মাণ প্রসঙ্গে শিক্ষক সমিতির সভাপতি ড.আবু তাহের বলেন, ‘ছাত্র হলের পাশেই ছাত্রী হল নির্মাণ হলে অচিরেই ছাত্র-ছাত্রীদের উপর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। আর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন দীর্ঘ মেয়াদী পরিকল্পনা না করেই যত্রতত্র ভবন নির্মাণ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সৌন্দর্য ও অবকাঠামো নষ্ট করছে। ভূমি অধিগ্রহনের প্রতি কর্তৃপক্ষের নজর দেওয়া উচিত।’
ছাত্র হলের সাথে কিভাবে ছাত্রী হল নির্মাণ হয় এমন প্রশ্নে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোঃ আলী আশরাফ বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয়ে জায়গা নেই তাই এখানে হল নির্মাণ করা হচ্ছে।’ তিনি আরও অবাক করে দিয়ে জানান, শিক্ষক ডরমেটরির পাশে নিচু যে জায়গাটি আছে সেখানে ছাত্রীদের জন্য আরও একটি হল নির্মাণ করা হবে।

 


Show all comments
  • S. Anwar ১৯ মে, ২০১৭, ২:৩৮ পিএম says : 2
    ছাত্র হল আর ছাত্রী হল পাশাপাশি হলেইবা সমস্যা কি? মহাবিদ্যালয়ের গন্ডি পার হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে পা রাখতেই ছেলে-মেয়েরা হয়ে উঠে মুক্তমনা ও প্রগতিবাদী। তাদের চিন্তাধারা হয়ে যায় মুক্ত আকাশের মতো বিশাল। তাই ছেলে-মেয়েদের হলগুলো পাশাপশি হলেও সমস্যা হবে না বরং আকারে ইঙ্গিতে এবং ভাব-ভঙ্গিতে মুক্ত মনের সীমাহীন আবেগের আদান-প্রদান করা সহজ হবে।
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।