Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ১৮ চৈত্র ১৪২৬, ০৬ শাবান ১৪৪১ হিজরী

আবারও ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হলেন ড. হাসান রুহানি

| প্রকাশের সময় : ২১ মে, ২০১৭, ১২:১৫ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : দ্বিতীয় মেয়াদে ইরানের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছেন ড. হাসান রুহানি। এবারের নির্বাচনে মোট ৫ কোটি ৬৫ লাখ ভোটারের মধ্যে ভোট দিয়েছেন ৪ কোটি ১২ লাখ ২০ হাজার ১৩১ জন। এর মধ্যে বর্তমান প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি পেয়েছেন ২ কোটি ৩৫ লাখ ৪৯ হাজার ৬১৬ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রায়িসি পেয়েছেন ১ কোটি ৫৭ লাখ ৮৬ হাজার ১৩১ ভোট। ইরানের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী রাহমানি ফাজলি গতকাল আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে নির্বাচিত ঘোষণ করেন। এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আল জাজিরা।
ড. হাসান রুহানি পেয়েছেন মোট ভোটের ৫৭ শতাংশ। তার নিকটতম প্রতিদ্ব›দ্বী সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রায়িসি পেয়েছেন প্রদত্ত ভোটের ৩৮.৫ শতাংশ। ইরানের একজন পদস্থ কর্মকর্তা জানিয়েছেন, এখন আর কোনও অনিশ্চয়তা নেই। রুহানি নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন।
৬৮ বছর বয়সী রুহানি গতবার প্রেসিডেন্ট হওয়ার পর ছয় শক্তিধর দেশের সঙ্গে পারমাণবিক চুক্তি করে আন্তর্জাতিক আর্থিক নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে পদক্ষেপ রাখেন। বিভিন্ন সংস্কারের মাধ্যমে নাগরিকদের আগের চেয়ে বেশি স্বাধীনতা দিয়েছেন বলে ইরানি তরুণদের কাছে তার জনপ্রিয়তা বেড়েছে বলে মনে করা হয়।
স্থানীয় সময় শুক্রবার সকাল ৮টায় ভোটগ্রহণ শুরু হয়, বিকেল ৬টায় ভোটগ্রহণ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও ভোটারদের দীর্ঘ লাইনের কারণে তা চলে রাত ১২টা পর্যন্ত। ৬৩ হাজার ৫০০ ভোটকেন্দ্রে একযোগে ভোটগ্রহণ চলে। বিশ্বের ১০২টি দেশে অবস্থানরত প্রবাসী ইরানি নাগরিকরাও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোট দিয়েছেন। এজন্য বিভিন্ন দেশে স্থাপন করা হয়েছে ৩১০টি ভোটকেন্দ্র।
ইরানের ১২তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে চারজন প্রার্থী প্রতিদ্ব›িদ্বতা করেছেন। তারা হলেন, বর্তমান প্রেসিডেন্ট ড. হাসান রুহানি, ইরানের বিচার বিভাগের সাবেক উপ-প্রধান সাইয়্যেদ ইব্রাহিম রায়িসি, ইরানের বিশেষজ্ঞ পরিষদের সদস্য আগা মিরসালিম এবং সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট মোস্তফা হাশেমি তাবা। তবে মূল প্রতিদ্ব›িদ্বতা হয় হাসান রুহানি এবং ইব্রাহিম রায়িসির মধ্যে। সূত্র : রয়টার্স।




 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন