Inqilab Logo

শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৭ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

হৃদয় জুড়ে আলোকিত রমজান

| প্রকাশের সময় : ২৭ মে, ২০১৭, ১২:০০ এএম

মিযানুর রহমান জামীল : মানবিক সেতুবন্ধনে নতুন সংযোগ কায়েম করতে মাহে রমজানের আগমন। শাশ্বত দীনের প্রেমময় ছোঁয়ায় ঈমানের সামিয়ানা সাজাতে স্বাগত বার্তা নিয়ে আগমন ঘটে প্রতিটি রমজানের। বিশ্বাসের সৌধচূড়ায় হুকুমতে ইলাহীর শিলালিপিতে ঈমানের কালি দিয়ে জীবনসমৃদ্ধির স্রোতধারাকে গতিশীল ও চলমান রাখার দাবীতে রমজানের এ্যালবাম হয়ে ওঠে চির সুন্দর ও দৃষ্টিনন্দিত। এতে উৎসবমূখর হয়ে ওঠে বিশ্বপাড়া। কারণ প্রতি বছরের ৩৩০ দিনের শূন্যতা কাটিয়ে রমজানের সাথে আমাদের সাক্ষাত। এ যেন প্রেয়সির স্পর্শে কাতর হওয়া চন্দ্রিমা।
মাহে রমজান আসে মানুষের বিভেদ ভেঙ্গে দিতে। রহমত মাগফিরাত আর নাজাতের সৌরভ বিলিয়ে গোটা বিশ্বপাড়াকে নতুনের ছোঁয়ায় উদ্ভাসিত করতেই রমজান। রমজানের সোনালী পরশে খোদাপ্রদত্ব বরকতের প্রভাবে আপাদ দৃষ্টিতে গজবে ইলাহীর কোনো নিদর্শন পৃথিবীতে প্রভাব বিস্তার করে না। সর্বপরি রমজান মুহাজিরের প্রতিচ্ছবি হয়ে আগমন করে আর গোটা কায়েনাত পালন করে আনসারের ভূমিকা। রমজানের ভূমিকায় ঘরে ঘরে পড়ে যায় ইবাদতের নির্মণ আবহ। শহর-নগরের পুরো এলাকা আর গ্রাম-গঞ্জের পাড়া-মহল­াসহ সর্বত্রই বিস্তার করে ভিন্ন আমেজ। তিনি তো (আল­াহ তাআলা) বলেছেন, রমজান আমার জন্য, এবং আমি নিজ হাতে এর প্রতিদান দেব।’ এছাড়াও তাওবাহকারীর জন্য এ রমজান মাস-ই গুনাহ মার্জনার মোক্ষম সময়। বিশেষ করে রমজানের শেষ রাতে যখন তাহাজ্জুদের ওয়াক্ত হয় তখন আল­াহর রহমতের দরিয়া উত্তাল থাকে।
তাই গুনাহ বর্জনের পাশাপাশি মাহে রমজান আমাদের প্রতি তাকওয়া অর্জনের আহবান করে থাকে। কারণ অন্যান্য বিশেষত্বের পাশাপাশি আল­াহর সাথে সম্পর্ক কায়েমও রমজানের অন্যতম দাবী। বান্দার আমলনামায় ঈমানের আলোকরশ্মি পৌঁছতে হেদায়েত অনিবার্য, আর হেদায়েত আসবে আল­াহর সাথে সেতুবন্ধনেন মাধ্যমে। একমাত্র তাকওয়া অর্জনের ভিত্তিতে এই সেতুবন্ধন সম্ভব। সুতরাং যে কোনো মুসলমান যদি আল­াহর সাথে সম্পর্ক কায়েম করতে চায় তবে তাকে মাহে রমজানের যথাযথ মূল্যায়ন ও তার কাক্সিক্ষত দাবী পূরণ করা আবশ্যক। এ ক্ষেত্রে অন্যান্য দায়েমী আমলের সাথে রমজানের ৩০ আমলের প্রতিও সর্বাধিক মূল্যায়ন অপরিহার্য। নিম্নে তা উলে­খ করা হলো।
১.সিয়াম পালন করা। ২. সময় মতো সালাত আদায় করা। ৩. সহিহভাবে কোরআন শেখা। ৪. অপরকে কুরআন পড়া শেখানো। ৫. সাহরি খাওয়া। ৬. সালাতুত তারাবিহ পড়া। ৭. শুকরিয়া আদায় করা। ৮. কল্যাণকর কাজ বেশি করা। ৯. তাহাজ্জুদ পড়া। ১০. বেশি বেশি দান। ১১. সদকা করা। ১২. উত্তম চরিত্র গঠনের অনুশীলন করা। ১৩. ইতিকাফ করা। ১৪. দাওয়াতে দীনের কাজ করা। ১৫. সামর্থ্য থাকলে ওমরা পালন করা। ১৬. লাইলাতুল কদর তালাশ করা। ১৭. বেশি বেশি দোআ ও কান্নাকাটি করা। ১৮. ইফতার করা। ১৯. ইফতার করানো। ২০. তাকওয়া অর্জন করা। ২১. ফজরের পর সূর্যদয় পর্যন্ত মসজিদে অবস্থান করা। ২২. ফিতরা দেওয়া। ২৩. অপরকে খাবার খাওয়ানো। ২৪. আত্মীয়তার সম্পর্ক উন্নীত করা। ২৫. কোরআন মুখস্থ ব হিফজ করা। ২৬. আল­াহর জিকির করা। ২৭. মিসওয়াক করা। ২৮. বেশি বেশি কোরআন তিলাওয়াত করা। ২৯. পরষ্পর কোরআন শেখানো। ৩০. কোরআন বোঝা ও আমল করা।
মাহে রমজানকে মহিমান্বিত করতে যেমনিভাবে শরিয়তসিদ্ধ জীবন যাপন ও আমল বাঞ্ছনীয় তেমনি জরুরী খোদা প্রেমিক আউলিয়ারা বর্ণিত রোজার তিনটি স্তর বজায় রাখা।
১. রোযার দিনে পানাহার ও স্ত্রীর মেলামেশা থেকে বিরত থাকা। সাধারণ মানুষ এভাবে রোযা রাখে। ২. রোযার দিনে পানাহার ও স্ত্রীর মেলামেশা থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি চোখ, কান, নাক, মুখ, হাত-পা এবং সমস্ত অঙ্গ প্রত্যঙ্গকে ছগীরা ও কবীরা গুনাহ থেকে বিরত রাখা। নেককার ফরহেজগার মুমিনরা এ রোযা রাখে। ৩. পানাহার ইত্যাদি ও ছগীরা-কবীরা গুনাহ থেকে বিরত থাকার পাশাপাশি অন্তরকে জাগতিক চিন্তা ও কর্মসর্মহ থেকে বিরত রেখে কেবল আল­াহর ধ্যানে মগ্ন থাকা। মহান আল­াহর নির্বাচিত বিশেষ বান্দারা এ রোযা রাখেন। [ফাতাওয়ায়ে রহিমিয়া : ৫/১৯৬]
আসুন আমরা রোজাকে সোভামণ্ডিত করতে আমলের মাত্রা বাড়িয়ে দেই। এতে দীর্ঘ এগারো মাসের স্থবির ও তৃষিত ঈমান যেমনি তাজা ও সমৃদ্ধ হবে তেমনি জীবন হবে চির-সজীব ও প্রাণবন্ত। মাহে রমজান আমাদের অঙ্গনকে ঈমান আমল ও আলোকিত চেতনায় উদ্ধুদ্ধ করুন। পুলকিত বিশ্বে ছড়িয়ে পড়–ক প্রজ্বলিক দীপশিখা। জীবন ও সমাজের সকল সেক্টরে জ্বলে উঠুক হেদায়াতের চেরাগ। মাহে রমজানের এই প্রত্যাশ্য এবং স্বপ্ন নিয়েই হোক মুসলিম বিশ্বের অনাগত দিনের পথচলা।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন