Inqilab Logo

শুক্রবার, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৭ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

মাহে রমজানকে ঘিরে রাজশাহীতে ব্যাপক প্রস্তুতি

| প্রকাশের সময় : ২৭ মে, ২০১৭, ১২:০০ এএম

রাজশাহী ব্যুরো : মাহে রমজানকে সামনে রেখে সর্বত্র শুরু হয়েছে প্রস্তুতি। সেহরী ও ইফতারির প্রস্তুতি চলছে বাড়ি বাড়ি। মহল্লার মসজিদে মসজিদে তারাবীহসহ সকল ওয়াক্তের নামাজের জন্য নেয়া হচ্ছে বিশেষ ব্যবস্থা। বিশেষ করে রমজান জুড়ে মুসল্লিদের সংখ্যা বেড়ে যায় কয়েকগুন। কোন কোন মসজিদে জোহর ও আছরের নামাজ স্থানের অভাবে দু’বার আদায় করতে হয়। তারাবীহ নামাজের জন্য বিশেষ ব্যবস্থা রাখতে হয়। জামাত মসজিদের আঙ্গিনা ছাড়িয়ে বাইরের খোলা স্থান ও রাস্তা পর্যন্ত গড়ায়। মুসল্লিদের কথা ভেবে মসজিদের ব্যবস্থাপনা কমিটিগুলো বেশ তৎপর। বিদ্যুতের অসম্ভব রকমের লোডশেডিংয়ের কারনে কোন কোন মসজিদে নতুন ভাবে আইপিএস লাগাতে দেখা যায়। যাতে করে তারাবীহ নামাজটা সুষ্ঠুভাবে আদায় করা যায়। মাইক অজুর পানির লাইন পানির আধার সবকিছু ফের একটু পরখ করে নেয়া চলছে। সব মিলিয়ে নামাজ আদায়ের জন্য মসজিদগুলো প্রস্তুত। তারাবীহ নামাজ পড়ানোর জন্য ইতোমধ্যেই দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে হাফেজ ক্বারী এসেছেন। ইফতারি সামগ্রী নিয়ে ছোট বড় সব হোটেল রেস্তরা ফাষ্টফুড এমনকি মহল্লার চায়ের দোকান গুলো প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছে। ফুটপাত ও বাধের উপর অস্থায়ী দোকান গুলোও বসে নেই। সাধ আর সাধ্যের মধ্যে সমন্বয় ঘটিয়ে রোজাদাররা ইফতারি কিনবেন। তাছাড়া বাড়িতে বানানোর আয়োজন রয়েছে। ফাষ্টফুডের দোকান গুলো ইফতারি নিয়ে প্রতিযোগিতায় নামবে। ইতোমধ্যে তারা নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের সামনে রকমারী ইফতারি পন্যের তালিকা টানিয়েছে। ইফতারিতে নতুন কিছু সংযোগ করার প্রতিযোগিতা রয়েছে তাদের মধ্যে। নগরীর সাহেব বাজার জিরো পয়েন্টে অবস্থিত এলিট বাংলা রেস্তরা রোজাদারদের বিনামুল্যে সেহরী খাওয়ানোর ঘোষনা দিয়ে ব্যানার টানিয়েছে। এক্ষেত্রে কেউ দান করলে সেটিও বিনামুল্যে সেহেরির জন্য খরচ করা হবে। নগরীর পশ্চিমাঞ্চলে ‘‘আমরা নতুন প্রজম্ম’’ নামে একটি স্বেচ্ছসেবী প্রতিষ্ঠান পথচারী রোজাদারদের জন্য ইফতারের আয়োজন করবে রমজান জুড়ে। নগরীর মসজিদে মসজিদে থাকছে ইফতারির ব্যবস্থা। নগরীর ঐতিহ্যবাহী রহমানীয়া হোটেল এবারো রাখছে তাদের ফিরনী। অনেক হোটেল রেস্তরা ইতোমধ্যে তাদের প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। মধ্যবিত্ত থেকে বিত্তবানদের জন্য রয়েছে রকমারী আইটেম। তবে ফুটপাত থেকে বড় বড় রেস্তরা সর্বত্র থাকছে মুড়ি, পেয়াজু, ছোলা, জিলাপী। বিভিন্ন রাজনৈতিক সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠনের মাসজুড়ে থাকছে ইফতার মাহফিলের আয়োজন। আর ক’দিনের মধ্যে মন্ত্রী এমপি মেয়র প্রশাসনের কর্মকর্তাদের ডাইরী ভরে যাবে ইফতাররির সুচিতে। জাতীয় নির্বাচনের সময় ঘনিয়ে আসছে। আর তাই এবার ইফতারী রাজনীতিও বেশী হবে। এমন কথা বলছেন রাজনীতিকরা মানুষগুলো। রমজানকে সামনে রেখে স্বাস্থ্য সচেতন মানুষ ভীড় করছেন বড় বড় ডাক্তারদের চেম্বারে। বিশেষ করে হৃদরোগ ও ডায়াবেটিস রোগীরা। যাদের নিয়মিত ঔষধ খেতে হয়। তারা উচ্চ রক্তচাপ ইসিজি ইত্যাদি করে রমজান মাসে ঔষধ খাওয়ার সুচি তৈরী করে নিচ্ছেন। যাতে রমজানে রোজা রাখতে পারেন ঠিকমত। ডায়াবেটিস রোগীদের ভীড় প্রচন্ড দেখা যায় ডায়াবেটস কল্যাণ কেন্দ্রে। এদুটি স্থানে পর্যবেক্ষন করে দেখা যায় রোগীদের প্রচন্ড ভীড়। সবার লক্ষ্য রমজানের রোজাটা যাতে নির্বিঘেœ রাখা যায়। সেজন্য চিকিৎসকের পরামর্শ। অনেকে হেলথ চেকআপ করিয়ে নিচ্ছেন। সেহেরি ও ইফতারের সময়সুচি সম্বলিত প্রচারপত্র বিতরন করছে বিভিন্ন সংস্থা। 

গতকাল শুক্রবার ছিল ছুটির দিন। এরপর প্রতিদিনই বাজার খোলা থাকবে। তাই ছুটির এ দিনটিতে দোকানপাট খুলে সাফ সুতরো করতে দেখা যায় প্রধান বাজার সাহেব বাজারের কাপড় ব্যবসায়ীদের। ঈদকে সামনে রেখে এখনি তারা প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছেন। সব মিলিয়ে শুরু হয়ে গেছে মাহে রমজানকে খোশ আমদেদ জানানো। রমজানের পবিত্রতা রক্ষা ও আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতি ঠিক রাখতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীও বিশেষ পরিকল্পনা নিয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ