Inqilab Logo

শুক্রবার, ১২ আগস্ট ২০২২, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৯, ১৩ মুহাররম ১৪৪৪
শিরোনাম

প্রতিটা ম্যাচই লেস্টারের কাছে ফাইনাল

প্রকাশের সময় : ৭ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক : পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে অবস্থান করেও এতদিন মুখে কুলুপ এঁটে ছিলেন ক্লাদিও রেনিয়েরি। শিরোপা নিয়ে কোন মন্তব্যই করেননি লেস্টার সিটি কোচ। ক্রিস্টমাসের বিরতিতে একবার বলেছিলেনÑ তাঁর দলের লক্ষ্য নাকি শুধুই পয়েন্ট তালিকার অবনমন এড়ানো! লিগে বাকি আর মাত্র ৯ ম্যাচ। এখনো পয়েন্ট তালিকার শীর্ষে তাঁর দল। আর কত? এবার তাই মুখ না খুলে পারলেন না। ওয়াটফোর্ডের মাঠে জয়ের পর নীরবতা ভেঙে লেস্টার গুরু বলেনÑ ‘আমরা বিশেষ কিছুর জন্য এগুচ্ছি।’ আর এজন্য শিষ্যদের কানে তিনি বাতলে দিয়েছেন এক বিশেষ মন্ত্রÑ ‘প্রত্যেক ম্যাচই আমাদের কাছে ফাইনাল।’
ওয়াটফোর্ডের বিপক্ষে তাঁর দল লেস্টার সিটির জয়টা ছিল ১-০ গোলের। ১৮ গজ দূর থেকে এদিন লিগে রিয়াদ মাহরেজের করা ১৫তম গেলটি জয় নিশ্চিত করে লেস্টারের। তার গোলের প্রসংসায় দলের ইতালিয়ান কোচ বলেনÑ ‘গোলটি ছিল অসাধারণ।’ পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা টটেনহ্যামের চেয়ে পরিস্কার ৫ পয়েন্টে এগিয়ে লেস্টার। মৌসুমে এ পর্যন্ত মাত্র তিন ম্যাচে হেরেছে ফক্সরা, জয় ১৭ ম্যাচে। তবে শীর্ষে থেকেও যে তারা আত্মতুষ্টিতে ভুগছেন না সেটা জানান দিল রেনিয়েরির সতর্ক কন্ঠÑ ‘প্রিমিয়ার লিগের প্রতিটা ম্যাচই যুদ্ধের সমতুল্য। এখানে ৫ পয়েন্ট কোন ব্যপারই না।’ তা সত্ত্বেও মনের গহীনে লালিত শিরোপা স্বপ্নের কথা সাবেক চেলসি কোচ জানালেন এভাবেÑ ‘ভক্তরা স্বপ্ন দেখছে আর আমরা এজন্য লড়ে যাচ্ছি, যা অসাধারণ এক সমন্বয়। খেলোয়াড়দের আমি বলে দিয়েছি, প্রতিটা ম্যাচই আমাদের জন্য ফাইনাল।’
শিরোরপর দৌড়ে লেস্টার সাথে ব্যবধান কমানোর সুবর্ণ সুযোগ ছিল এদিন টটেনহ্যামের সামনে। কিন্তু ঘরের মাঠে ১০ জনের আর্সেনালকে পেয়েও সুযোগটা কাজে লাগাতে পারেনি মৌরিকো পচেত্তিনোর দল। ম্যাচটা ড্র হয়েছে ২-২ গোলে। জিততে না পারায় হতাশা ঝরেছে দুই কোচের কণ্ঠেই। ম্যাচ পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে পচেত্তিনো বলেনÑ ‘আমরা হতাশ, কারণ ১০ জনের বিপক্ষে ১১ জনের দল নিয়ে আপনি ফলটাই আশা করবেন।’ গানার গুরু আর্সেন ওয়েঙ্গারের দুঃখটাও একই। প্রথমার্ধে এগিয়ে যাওয়ার পর ম্যাচের ৫৫তম মিনিটে কোকুইলিনের জোড়া হলুদ কার্ড লালে পরিণত হলে ১০ জনের দলে পরিণত হয় সফরকারী আর্সেনাল। সেই সুযোগে ৫ ও ৭ মিনিট বাদেই অ্যালডেরওয়্যারেল্ড ও কেনের গোলে এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। ওয়েঙ্গারের দুঃখটা এখানেই। ১১ জনের দলে নিয়ন্ত্রণ ছিল তো গানারদেরই। একটি লাল কার্ডই সব এলোমেলো করে দিল। এরপরও সফরকারীরা যে গুরুত্বপূর্ণ একটি পয়েন্ট নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারল এজন্য সাবেক বার্সা স্ট্রাইকার অ্যালিক্সিস সানচেসকে বিশেষ ধন্যবাদ দিতেই পারেন ওয়েঙ্গার। সমান ২৯ ম্যাচে পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় ও তৃতীয় নম্বরে যথাক্রমে টটেনহ্যামের (৫৫) ও আর্সেনাল (৫২)। একই ম্যাচে ৬০ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে লেস্টার সিটি।
টানা তিন ম্যাচ হেরে শিরোপা দৌড়ে অনেকটা পিছিয়ে পড়েছিল শীর্ষ চারের আরেক দল ম্যানচেস্টার সিটি। পরাজয়ের বৃত্ত ভেঙে এদিন জয়ে দেখা পেয়েছে আকাশী নীলরা। ঘরের মাঠে আগুয়েরোর জোড়া গোলের পাশাপাশি ইয়াইয়া তোরে ও স্টার্লিংয়ের গোলে অ্যাস্টল ভিলাকে ৪-০ গোলের বড় ব্যবধানে হরায় সিটি। অথচ ম্যাচের প্রথমার্ধ ছিল গোলশূন্য ড্র। চারটি গোলই আসে দ্বিতীয়ার্ধে। পেনাল্টি মিস না করলে এদিন হ্যাটট্রিকও পেতে পারতেন আর্জেন্টাইন ফরোয়ার্ড আগুয়েরো। শীর্ষে থাকা লেস্টারের সাথে এখনো ১০ পয়েন্টের ব্যবধান ইতিহাদের দলটির।
আসরের বর্তমান চেলসি অবশ্য এবার শিরোপা দৌড়ের অনেক বাইরে। তাদের বর্তমান লক্ষ্য শীর্ষ ছ’য়ে থেকে ইউরোপা লিগে জায়গা করে নেয়া। টানা তিন ম্যাচ জয়ের পর সেই পথে আবার হোঁচট খেল স্ট্যামফোর্ড ব্রিজের দল। স্টোক সিটির বিপক্ষে ১-১ গোলে ড্র করেছে তারা। তরুণ ব্লু মিডফিল্ডার বাট্রেন্ড ট্রাওরের গোলে এগিয়ে গিয়েও শেষ সময়ে ডিউফের গোলে ম্যাচে সমতায় ফেরে স্টোক। দল হোঁচট খেলেও একটা রেকর্ড গড়ে ফেলেছেন চেলসি কোচ গুচ হিডিঙ্ক। দলের দায়িত্ব নেয়ার পর প্রিমিয়ার লিগে টানা ১২ ম্যাচে এখনো অপরাজিত হিডিঙ্ক। এই লক্ষ্যে তিনি পিছনে ফেলেন ১১ ম্যাচ অপরাজিত থাকা নটিংহ্যাম ফরেস্টের কোচ ফ্রাঙ্ক ক্লার্ককে। ২৯ ম্যাচে ৪০ পয়েন্ট নিয়ে দশম অবস্থানে হিডিঙ্কের চেলসি।

এক নজরে ফল
টটেনহ্যাম ২-২ আর্সেনাল
চেলসি ১-১ স্টোক
এভারটন ২-৩ ওয়েস্ট হ্যাম
ম্যানসিটি ৪-০ অ্যাস্টন ভিলা
নিউক্যাসল ১-৩ বোর্নমুথ
সাউদাম্পটন ১-১ সান্ডারল্যান্ড
সোয়ানসি ১-০ নরউইচ
ওয়াটফোর্ড ০-১ লেস্টার



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: প্রতিটা ম্যাচই লেস্টারের কাছে ফাইনাল
আরও পড়ুন