Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ আগস্ট ২০১৭, ৭ ভাদ্র, ১৪২৪, ২৮ যিলকদ ১৪৩৮ হিজরী

লন্ডনে মুসল্লীদের ওপর কাভার্ড ভ্যান চালিয়ে ১ জনকে হত্যা : আহত ১০

| প্রকাশের সময় : ২০ জুন, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : লন্ডনে তারাবী শেষে মসজিদ থেকে বের হওয়া মুসল্লীদের ওপর সন্ত্রাসবাদী হামলায় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মোকরুম আলী নিহত এবং অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন। হতাহতরা সবাই মুসলিম। স্থানীয় সময় রোববার রাতে উত্তর লন্ডনের সেভেন সিস্টার্স রোডের ফিনসবারি পার্কে অবস্থিত মুসলিম ওয়েলফেয়ার মসজিদের সামনে এ হামলার ঘটনা ঘটে।
৪৮ বছর বয়সী হামলাকারী ডারেন ওসবর্ন ‘আমি সব মুসলিমকে হত্যা করব’ বলে তারাবী পড়ে মসজিদ থেকে বের হওয়া মুসল্লিদের ওপর দ্রæতগতির একটি কাভার্ড ভ্যান উঠিয়ে দেয়। এ ঘটনায় এক প্রবীণ ব্যক্তি নিহত হন। তিনি বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত মোকরুম আলী বলে পরে জানা যায়। বাংলাদেশে তার বাড়ি ছিল সিলেটে। তিনি (নিহত ব্যক্তি) রোববার সন্ধ্যায় ইফতার শেষে মাগরিবের নামাজ পড়তে ওই মসজিদে গিয়েছিলেন। সেখান থেকে তারাবির নামাজ শেষে ফেরার পথে ‘হেইট ক্রামই’-এর শিকার হয়ে শাহাদাত বরণ করেন।
সুলতান আহমেদ নামে এক দাতব্য কর্মী জানান, তার চাচা মুসল্লিদের ওপর হামলার ঘটনার একজন প্রত্যক্ষদর্শী। সুলতান বলেন, আমার চাচা মসজিদ থেকে বের হয়ে সামনে যাচ্ছিলেন। এ সময় তার সামনের একজন প্রবীণ মুসল্লি অসুস্থ হয়ে মাটিতে পড়ে যান। এ ঘটনা দেখে অন্য মুসল্লিরা তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে যান। ঠিক সেই সময়েই মুসল্লিদের ওপর কাভার্ড ভ্যানটি চালিয়ে দেয়া হয়। অতর্কিত এ হামলায় ঘটনাস্থলেই তিনি নিহত হন। এছাড়া আরও অন্তত দুজন মুসল্লি মারাত্মকভাবে আহত হয়েছেন। নামাজ পড়ার সময় কাভার্ড ভ্যানটি রাস্তার এক পাশে দাঁড় করানো ছিল। নামাজ শেষে মুসল্লিরা বের হওয়ার পরপরই গাড়িটি তাদের ওপর চালিয়ে দেয়া হয়।
এদিকে এক বিবৃতিতে লন্ডন মেট্রোপলিটন পুলিশ জানায়, রাত ১২টা ২০ মিনিটের পর তাদের পথচারীদের ওপর গাড়ি চালিয়ে দেয়ার খবর জানানো হয়।
ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী তেরেসা মে মুসল্লিদের ওপর এ হামলার ঘটনাকে ‘সম্ভাব্য সন্ত্রাসবাদী হামলা’ ও ‘ভয়ঙ্কর ঘটনা’ হিসেবে বিবেচনা করার কথা বলেছেন। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আজ মঙ্গলবার সকালে জরুরি বৈঠক ডাকা হয়েছে বলেও জানান তিনি। গতকাল বিকেলে তিনি দক্ষিণ লন্ডনে ঘটনাস্থলে ছুটে যান এবং স্থানীয় মুসলিম কমিউনিটির নেতা ও বিশেষ করে হামলাকারীকে জীবিত রাখতে ভূমিকা পালনকারী ইমাম মোহাম্মদ মাহমুদের সাথে সাক্ষাৎ করেন। ইমাম এখন ব্রিটেনে হিরোর মর্যাদা লাভ করেছেন।
এদিকে লেবার পার্টির নেতা করবিন এটাকে ‘পরিস্কারভাবেই লন্ডনবাসীর ওপর ইচ্ছাকৃত হামলা’ বলে আখ্যায়িত করেন। এই এলাকা থেকে নির্বাচিত এই নেতা তাৎক্ষণিক ঘোষণা দেন যে, সোমবার সন্ধ্যায় তিনি এই মসজিদে ইফতার করবেন এবং মুসলিমদের সাথে প্রার্থনায় যোগ দেবেন।
ব্রিটেনের খ্যাতনামা বক্সার আমির খান এই ঘটনার প্রতিক্রিয়ায় বলেছেন, আমি এখন আতঙ্কে আছি, কারণ মুসলিম নামের কারণে যেকোন সময় আমার ওপর প্রতিশোধমূলক আক্রমণ হতে পারে।
মুসল্লিদের ওপর হামলার ঘটনা নিয়ে এরই মধ্যে তদন্ত শুরু করেছে যুক্তরাজ্যের কাউন্টার টেরোরিজম কমান্ড। পবিত্র রমজান মাসে মুসল্লিদের ওপর এ হামলার ঘটনায় ক্ষোভ জানিয়েছে মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেন (এমসিবি)। সংগঠনটি যুক্তরাজ্যের মসজিদগুলোতে অতিরিক্ত নিরাপত্তার আহŸান জানিয়েছে।
এদিকে মুসল্লিদের ওপর যে ধরনের হামলা হয়েছে তার প্রকৃতি বিচার করে মুসলিম স¤প্রদায়কে আশ্বস্ত করতে বাড়তি তৎপরতা চালনো হবে বলে জানিয়েছে পুলিশ। সূত্র : ডেইলি টেলিগ্রাফ, বিবিসি ও ডেইলি মেইল। (এ সংক্রান্ত বিস্তারিত খবর পৃষ্ঠা-৬)

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর