Inqilab Logo

ঢাকা, বুধবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ০৬ ফাল্গুন ১৪২৬, ২৪ জামাদিউস সানি ১৪৪১ হিজরী

সউদী নেতৃত্বাধীন জোটের দেয়া শর্ত বাস্তবতা বিবর্জিত : কাতার

চার আরব দেশের তীব্র কূটনৈতিক সংকট নিরসনে মধ্যস্থতা করার চেষ্টা করছে কুয়েত

| প্রকাশের সময় : ২৫ জুন, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : কাতারের সঙ্গে সম্পর্ক স্বাভাবিক করার জন্য সউদী আরবের নেতৃত্বাধীন চার আরব দেশ যেসব শর্ত দিয়েছে তাকে বাস্তবতা বিবর্জিত বলে জানিয়েছে দোহা। গতকাল শনিবার কাতারের গণযোগাযোগ দপ্তরের পরিচালক শেখ সাইফ বিন আহমেদ আল-থানি এক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা জানান। তিনি বলেন, বাস্তবসম্মত না হওয়া সত্তে¡ও আমরা আঞ্চলিক নিরাপত্তার স্বার্থে এবং প্রস্তাবের প্রতি সম্মান জানানোর জন্য এগুলো বিবেচনা করে দেখছি। শিগগিরই আমাদের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া জানাবে। এদিকে গত শুক্রবার গণমাধ্যমে প্রকাশিত এ সংক্রান্ত খবরের সত্যতা নিশ্চিত করে কাতারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, দোহা সউদী আরব, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও মিশরের পক্ষ থেকে বেশ কিছু চাহিদার একটি তালিকা গ্রহণ করেছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে বলা হয়েছিল, ওই চার আরব দেশের পক্ষ থেকে কুয়েত ১৩টি চাহিদা সম্বলিত একটি তালিকা দোহার কাছে হস্তান্তর করেছে। কাতারের সঙ্গে চার আরব দেশের তীব্র কূটনৈতিক সংকট নিরসনে মধ্যস্থতা করার চেষ্টা করছে কুয়েত। সউদীর নেতৃত্বাধীন চার আরব দেশের পক্ষ থেকে দেয়া ১৩ দফা তালিকার কয়েকটি শর্ত হচ্ছে, কাতারকে ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন এবং তুরস্কের সঙ্গে সামরিক সহযোগিতা ও আল-জাজিরা টেলিভিশন নেটওয়ার্ক বন্ধ করতে হবে। ওই চার দেশের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে হলে আগামী ১০ দিনের মধ্যে দোহাকে এসব শর্ত মেনে নেয়ার আহŸান জানানো হয়েছে। কাতারের পক্ষ থেকে অবশ্য এর আগে বলা হয়েছিল, দেশটি নিজের সার্বভৌমত্বের বিষয়ে প্রতিবেশীদের হস্তক্ষেপ মেনে নেবে না। এছাড়া, অবরোধ তুলে না নেয়া পর্যন্ত চার আরব দেশের সঙ্গে কোনো আলোচনা হবে না। গত ৫ জুন সউদী আরবসহ চারটি আরব দেশ একতরফাভাবে কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে এবং দেশটির বিরুদ্ধে অবরোধ আরোপ করে। বিবিসি, রয়টার্স।



 

Show all comments
  • Minhajur Rahman ২৫ জুন, ২০১৭, ১:০২ পিএম says : 0
    Khan It seems Saudi is working for Israil... Very sad...
    Total Reply(0) Reply
  • সিফাত ২৫ জুন, ২০১৭, ১২:৩৩ পিএম says : 0
    সউদী বেশি বাড়াবাড়ি করছে
    Total Reply(0) Reply
  • Md Akbar Shahin ২৫ জুন, ২০১৭, ১২:৫৬ পিএম says : 1
    সৌদি আরবের এই অনৈতিক দাবি মানার কোন প্রশ্নই আসেনা।
    Total Reply(0) Reply
  • Muhammad Samim ২৫ জুন, ২০১৭, ১২:৫৭ পিএম says : 0
    Allah apnar hifajot korun amin
    Total Reply(0) Reply
  • Zulfikar Mahmood ২৫ জুন, ২০১৭, ১:০১ পিএম says : 0
    আল্লাহ আপনার সহায় হোন।
    Total Reply(0) Reply
  • Mohammad Manik ২৫ জুন, ২০১৭, ১:০১ পিএম says : 0
    ঠিক আমিও একমত আপনার সাথে।।
    Total Reply(1) Reply
    • abdal ২৭ জুন, ২০১৭, ৬:৩৬ এএম says : 0
      সাউদি আরব কি বলে? টাম্প যা বলে। আল্লাহ্ যেন কাতার কে জুলুম মুনাপেক থেকে বাচান দোয়া করুণ সবাই।
  • Md. Kafil Uddin ২৭ জুন, ২০১৭, ৯:৪০ এএম says : 0
    May Allah bless and peace, equality in muslim countries.
    Total Reply(0) Reply
  • MOHAMMAD ALI ২৯ জুন, ২০১৭, ৭:১৭ পিএম says : 0
    D R SIR, IN FUTURE QATAR CAN STAY WITHOUT GCC. LIKE INDIA, B.DESH, NEPAL INDEPENDANTLY. SO THEY SHUD.NOT THINK MORE. THIS PROBLEM IS TEMPORARY. HOW SAUDI CAN ASK QATAR 2 GIVE REPLY WITHIN 10 DAYS. ASTONISHING.B.COZ A SOVERIGN COUNTRY CANNOT TELL 2 ANOTHER SOVERIGN COUNTRY 2 REPLY WITHIN TIMELIMIT.
    Total Reply(0) Reply
  • harun ur rashid ৩০ জুন, ২০১৭, ২:৫৯ পিএম says : 0
    Time is nor far away the fall down of manrachy system of KSA. Iran is the symbol of Islamic courage and heritage. We all Muslim in the world support to Qatar and Iran. Hope KSA try to realize the reality.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ