Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার , ২৩ নভেম্বর ২০১৯, ০৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ২৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

রাজধানীতে দু’জনকে কুপিয়ে পিটিয়ে হত্যা

| প্রকাশের সময় : ২৯ জুন, ২০১৭, ১২:০০ এএম

বিশেষ সংবাদদাতা : রাজধানীর বনানীতে এক ডিশ কর্মচারীকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। নিহতের নাম মো.শফিকুল ইসলাম(৩৫)। গত সোমবার রাতে এ ঘটনা ঘটে। এছাড়া কদমতলীতে ঈদের আগের দিন সজীব (২৩) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করা হয়েছে। একইদিনে মোহাম্মদপুরে ছিনতাইকারী সন্দেহে আরেক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করে জনতা।
ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির এএসআই মো.বাবুল মিয়া জানান, সোমবার রাতে বনানী থেকে শফিককে গুরুতর অবস্থায় হাসপাতালে আনার পর তার মৃত্যু হয়। মঙ্গলবার দুপুরে স্বজনরা হাসপাতাল থেকে লাশ নিয়ে গেছে বলে জানান তিনি।
স্বজনদের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, দক্ষিণ মহাখালীর দাবিল পাড়ার ৯২/২ নম্বর বাসায় থাকতেন শফিক। মহাখালী এলাকায় এক কেবল টিভি ব্যবসায়ীর কর্মচারী ছিলেন তিনি। শফিককে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া একই এলাকার বাসিন্দা মো.জামান বলেন, ঈদের রাতে একজন ফোন করে জানায় শফিকের মতো দেখতে একজন মহাখালী দক্ষিণপাড়া বাজার গেইটের সামনে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। পরে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে মহাখালীর মেট্রো হাসপাতাল ও পরে ঢাকা মেডিকেলে নেয়া হয় বলে জানান তিনি। শফিককে আহতাবস্থায় যেখানে পাওয়া গেছে তার একশ গজের মধ্যে ওর শ্বশুর বাড়ি আর এক হাজার গজের মধ্যে নিজের বাসা। ডিস ব্যবসা নিয়ে কোনো ঝামেলায় তাকে খুন করা হতে পারে বলে জানা গেছে। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। কদমতলীর থানার ওসি (তদন্ত) সাজু মিয়া জানান, ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে পরিবারের সঙ্গে থাকতেন সজীব। গত ২৫ জুন সকাল সাড়ে ১১টার দিকে কদমতলীর নতুন শ্যামপুর বাজার এলাকা দিয়ে গাড়িতে যাছিলেন স্থানীয় প্রভাবশালী হাবিবুর রহমান। এ সময় তার গাড়ি পথচারী সজীবকে ধাক্কা দেয়। সজীব এর প্রতিবাদ করলে গাড়িচালক আলমগীর হোসেনের সঙ্গে ঝগড়া বেঁধে যায়। এর জের ধরে তাকে চড়-থাপ্পড় মারা হয়। একপর্যায়ে তাকে ধরে নিয়ে যাওয়া হয় একই এলাকায় হাবিবের বাসায়। সেখানে হাবিব, আলমগীর ও কর্মচারী সুজন তাকে বেধড়ক পেটায়। এতে সজীব অচেতন হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। চিকিৎসক তাকে পরীক্ষা করে জানান, হাসপাতালে নেয়ার আগেই মৃত্যু হয় তার।
পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মোহাম্মদপুরের চাঁন মিয়া হাউজিংয়ের এক নম্বর গেট এলাকায় ছিনতাইকারী সন্দেহে শামীম (৩০) নামে এক যুবককে পিটিয়ে হত্যা করেছে স্থানীয় জনতা। ঈদের আগের দিন সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে। পরে রাত ৮টার দিকে আশংকাজনক অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। সেখানে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ