Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৪ জুলাই ২০১৭, ০৯ শ্রাবণ, ১৪২৪, ২৯ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী

কাতার-তুরস্ক প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা আঙ্কারায় বৈঠকে বসছেন আজ

| প্রকাশের সময় : ১ জুলাই, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : চলমান সঙ্কট নিয়ে আলোচনার জন্য কাতার এবং তুরস্কের প্রতিরক্ষামন্ত্রীরা আজ আঙ্কারায় এক বৈঠকে মিলিত হচ্ছেন। মন্ত্রণালয় সূত্রে একথা জানা গেছে।
কাতারের প্রতিরক্ষামন্ত্রী খালিদ বিন মোহাম্মাদ বিন আল-আতিয়াহ এবং তার কাতারি প্রতিপক্ষ ফিকরি আইসিকের মধ্যে বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র একথা জানিয়েছে। বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে মধ্যপ্রাচ্যে সঙ্কটের মুহূর্তে, যখন সউদী আরব, মিসর. আরব আমীরাত, বাহরাইন এবং ইয়েমেনসহ বেশ কয়েকটি আরব দেশ সন্ত্রাসে মদদ দেবার অভিযোগে কাতারের ওপর কূটনৈতিক ও অর্থনৈতিক অবরোধ করেছে। তুরস্ক এ সঙ্কটময় মুহূর্তে কাতারের পাশে দাঁড়িয়ে সউদী আরবের প্রতি আহŸান জানিয়েছে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিতে। জুনের প্রথম দিকে তুরস্কের পার্লামেন্ট দু’টি বিলে অনুমোদন দেয় যার ফলে কাতারে তাদের সৈন্য মোতায়েন এবং সেদেশের সেনাবাহিনীকে ট্রেনিং দেয়া তুরস্কের পক্ষে সম্ভব হয়েছে। গত সপ্তাহে ৪ হাজার টন খাদ্যশস্য ভর্তি জাহাজসহ বিপুল পরিমাণ সাহায্য কাতারে পাঠিয়েছে তুরস্ক। তুরস্কের অর্থমন্ত্রী নিহাত জেবেকসি জানিয়েছেন, ১০৫টি কার্গো বিমান তুরস্ক থেকে কাতারে পণ্য পরিবহন করে নিয়ে গেছে।
তুরস্কের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানালো কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী
কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শেখ মোহাম্মদ বিন আব্দুর রহমান আল থানি গত বৃহস্পতিবার বলেন, কাতারের সাথে প্রতিবেশী উপসাগরীয় দেশগুলোর বর্তমান কূটনৈতিক সঙ্কটের সময় তুরস্কের সমর্থনের জন্য আমরা অত্যন্ত কৃতজ্ঞ। তুরস্ক সবসময়ই কাতারের সাথে দীর্ঘ এবং শক্তিশালী সম্পর্ক রাখে কিন্তু এ সম্পর্কের অর্থ এই নয় যে, তারা অন্য উপসাগরীয় দেশগুলোর সাথে সম্পর্ক হ্রাস করবে। আসলে তুরস্ক সকল উপসাগরীয় দেশগুলোর সাথে ভালো সম্পর্ক বজায় রাখতে চায়। ‘কীভাবে কাতার সঙ্কট সমাধান করা যায়’ শীর্ষক মার্কিন গোলটেবিল আলোচনায় সময় একথা বলেন কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।
তিনি বলেন, ‘অবরোধ কার্যকরের সময় তুরস্ক কাতারকে অবিরাম খাদ্য সরবরাহ দিয়েছে এবং দেশগুলোকে সংলাপে অংশ নেওয়ার মাধ্যমে সঙ্কট সমাধানের আহŸান জানিয়েছে’।
গত ৫ জুন পাঁচটি আরব দেশ সউদী আরব, মিসর, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও ইয়েমেন কাতারের সাথে সম্পর্ক ছিন্ন করেছিল দোহার বিরুদ্ধে সন্ত্রাসবাদ সমর্থনের অভিযোগে। চরমপন্থার সঙ্গে কথিত যোগসাজশের যে অভিযোগ কাতারের বিরুদ্ধে উঠেছে, কাতার তা অস্বীকার করেছে। এছাড়া চার উপসাগরীয় দেশ কর্তৃক আরোপিত ১৩ দফা দাবিও প্রত্যাখ্যান করেছে কাতার।
আল-থানি বলেন, ‘কাতার সম্পর্কে বেশিরভাগ অভিযোগ ভিত্তিহীন এবং আমরা দেশের সমস্যা সমাধানের জন্য প্রতিবেশীদের সাথে কথা বলার জন্য সর্বদা প্রস্তুত আছি’। তিনি আরো বলেন, ‘যতদিন এটা আমাদের স্বাধীনতা এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন না করে, ততদিন আমরা আমাদের প্রতিবেশীদের সাথে সব সমস্যা নিয়ে আলোচনা করতে প্রস্তুত’।
আল-থানি বলেন, ‘আন্তর্জাতিক নেতাদের অংশগ্রহণের মাধ্যমে রাজনৈতিকভাবে এ সঙ্কটের অবসান ঘটনো উচিত’। আল থানি বিশ্বাস করে টিলারসন সঙ্কট সমাধানের জন্য কঠোর পরিশ্রম করছে এবং তিনি আশা করেন তার প্রচেষ্টা সফল হবে। সূত্র : আনাদোলু নিউজ এজেন্সি

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ সংক্রান্ত আরও খবর