Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২১ অক্টোবর ২০১৯, ০৫ কার্তিক ১৪২৬, ২১ সফর ১৪৪১ হিজরী

অধিনায়কত্ব ছাড়লেন মালিঙ্গা

প্রকাশের সময় : ৯ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্পোর্টস ডেস্ক : আসন্ন টি-২০ বিশ্বকাপকে সামনে রেখে দলে বেশ কিছু পরিবর্তন এনেছে শ্রীলঙ্কা। চোটের সাথে লড়তে থাকা দলের বর্তমান অধিনায়ক লাথিস মালিঙ্গা অধিনায়কের পদ থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন। চোটের কাছে হার মেনেই বোলিং তারকার এই সিদ্ধান্ত। তার জায়গায় দলের নেতৃত্ব দেবেন এঞ্জেলা ম্যাথিউস। তবে দলের একজন গুরুত্বপূর্ণ সদস্য হয়ে দলেই থাকবেন মালিঙ্গা। আগামী ১৭ মার্চ আসরে তাদের প্রথম ম্যাচে মালিঙ্গার খেলার ব্যপারে আশাবাদী শ্রীলঙ্কা। যদিও তা নির্ভর করছে কতটুকু তিনি সেরে উঠেছেন তার ওপর। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেটের (এসএলসি) সচিব মোহন ডি সিলভা মালিঙ্গার নেতৃত্ব থেকে সরে যাওয়া নিয়ে বলেনÑ‘সে কেবল নেতৃত্ব থেকে সরে গেছে।’ টোয়েন্টি বিশ্বকাপের শেষ চার আসরের তিনটিতেই ফাইনালে খেলে শ্রীলঙ্কা। যেখানে সবচেয়ে বড় অবদান ছিল মালিঙ্গার। এছাড়া লঙ্কান নতুন নির্বাচক কমিটি বিশ্বকাপ দলে পরিবর্তন এনেছে আরো দু’টি। জাফরি ভ্যান্ডারসি ও নিরোশান ডিকোলার জায়গায় দলে নেওয়া হয়েছে লাহিরু থিরিমান্নে ও সুরঙ্গা লাকমলকে।
এশিয়া কাপের ব্যর্থতার পর বিশ্বকাপরে মাত্র ৯ দিন আগে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট কমিটিতে এসেছে আমুল পরিবর্তন। নির্বাচক কমিটির প্রথান নির্বাচন হয়েছেন অরভিন্দ ডি সিলভা। এছাড়া পাঁচ সদস্যের নির্বাচক প্যানেলের অপর দুই বিশেষ নাম হল কুমার সাঙ্গাকারা ও সাবেক উইকেট কিপার ব্যাটসম্যান রমেশ কালুভিথারানা। আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত এই কমিটি বলবৎ থাকবে বলে জানানো হয়। নতুন কমিটির অধীনেই লঙ্কান ক্রিকেটে এই পরিবর্তন।
এবারের এশিয়া কাপে মাঠে থেকে দলকে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন মাত্র এক ম্যাচে। সংযুক্ত আরব আমিরাতের বিপক্ষে ওই একমাত্র ম্যাচেই জয় পায় শ্রীলঙ্কা। কিন্তু পুরোনো চোট আবার মাথাচাড়া দেওয়ায় পরের ম্যাচগুলোয় থাকতে হয় মাঠের বাইরে। সাইড বেঞ্চে বসে শুধু দেখেছেন দলের একের পর এক পরাজয়। না, শুধু যে এজন্যই যে লাথিস মালিঙ্গা অধিনায়কত্ব ছেড়েছেন তা নয়। চোটের কাছে একের পর এক কাবু হওয়া মালিঙ্গার বয়সটাও তো প্রায় ৩৩ ছুই ছুঁই। এশিয়া কাপে চরমভাবে ব্যর্থ হলেও ক্রিকেটের ছোট দৈর্ঘ্যে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন শ্রীলঙ্কা। মালিঙ্গার অধীনেই শিরোপা জিতেছিল দীপ রাষ্ট্রটি। এশিয়া কাপে দুর্বল প্রতিপক্ষ আরব আমিরাতের বিপক্ষে অল্পের জন্য হারের হাত থেকে বেঁচে গিয়েছিল মালিঙ্গার দল। সেই ম্যাচে তার ব্যক্তিগত পারফরম্যান্স দুর্দান্ত হলেও দলের বাকি সদস্যের পারফর্ম্যান্স তেমন চোখে পড়েনি। টুর্নামেন্টের বাকি ম্যাচগুলো ইনজুরির কারনে সাইড বেঞ্চে বসেই কাটাতে হয় তাকে।
ক্রিকেট বিশ্বের অন্যতম এই তারকা বোলার দীর্ঘদিন ধরেই হাঁটুর ইনজুরিতে ভুগছেন। তিন মাসের বেশি সময় ধরে ছিলেন ক্রিকেটের বাইরে। এরপর দলে ফিরে আবার একই পরিস্থিতি অবশ্যই তার জন্য দুর্ভাগ্যজনক। দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার মত তিনি পুরোপুরি ফিট নন বলেও জানান। এ প্রসঙ্গে মালিঙ্গা বলেনÑ ‘আমি দীর্ঘ ১২ বছর ধরে জাতীয় দলের প্রতিনিধিত্ব করছি। ইদানিং আমি খুবই বাজে ইনজুরিতে ভুগছি। আমার বয়স এখন ৩২ বছর চলছে। শীঘ্রই আমি ৩৩-এ পা দেব। আর এ মুহূর্তে যদি আমাকে দেড়-দুই বছরের জন্য বিশ্রামে যেতে হয়, তার থেকে বরং ক্যারিয়ারের ইতি টানাই শ্রেয়।’ এছাড়াও তিনি জানান, ইনজুরি স্বত্তে¡ও তিনি টি২০ বিশ্বকাপ খেলবেন। সেটা পেইন কিলার খেয়ে হোক কিংবা ইনজেকশন নিয়ে হোক। কেননা টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে দলে এখন তিনিই সবচেয়ে বেশি অভিজ্ঞতা সম্পন্ন ক্রিকেটার। তাই এটাকে তিনি বিশ্রামের উপযুক্ত সময় মনে করছেন না। টুর্নামেন্ট অবধি তিনি খেলা চালিয়ে যাবেন বলে জানান। সাথে এটাও জানান, অবসর নিলেও তিনি জাতীয় দল এবং ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে তার দল মুম্বাই ইন্ডিয়ানসের হয়ে কাজ করবেন। শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট সূত্রে জানা যায়, ওয়ানডে এবং টেস্ট ফরম্যাটের অধিনায়কের দায়িত্বে থাকা অলরাউন্ডার অ্যাঞ্জেলো ম্যাথিউসই তিন ফরম্যাটে অধিনায়কের দায়িত্ব পালন করবেন।
৬২টি আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টি ম্যাচ থেকে ৭৮টি উইকেট নিয়েছেন মালিঙ্গা। এছাড়াও ওয়ানেডে ও টেস্ট ফরম্যাটে তার উইকেট সংখ্যা যথাক্রমে ২৯১ ও ১০১টি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন