Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ২৪ জুলাই ২০১৭, ০৯ শ্রাবণ, ১৪২৪, ২৯ শাওয়াল ১৪৩৮ হিজরী

গ্রন্থ পরিচিতি

| প্রকাশের সময় : ৭ জুলাই, ২০১৭, ১২:০০ এএম

হাফেজ ক্বারী নেছার আহমাদ আন নাছিরী সারা বিশ্বে এখন আলোচিত একটি নাম, একটি বিপ্লব, মারকাজুত তাহফিজ ফাউন্ডেশন বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান, যে সংস্থাটির সরকারী নিবন্ধন নাম্বার এস-১২৫৭০ এই সংস্থাটির অধিনে রয়েছে বিভিন্ন জেলা ও বিভাগে মারকাজুত তাহফিজ ইন্টারন্যাশনাল নামে অনেকগুলি শাখা এই মাদরাসা গুলো থেকে প্রতিবছর ছাত্ররা বিভিন্ন দেশে কুরআন প্রতিযোগিতায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি হয়ে লাল সবুজের পতাকাকে তুলে ধরেছেন সারাবিশ্বে। প্রায় শতাধিক দেশকে পিছনে ফেলে সৌদি আরবে ১ম, ২য়, ৩য় সহ সৌদি আরবে ৭ বার , মিশরে ৩ বার, আলজেরিয়া ২ বার, লিবিয়া ১ বার, ইরান ৫ বার, কুয়েত ১ বার, কাতার ১ বার, গাম্বিয়া ১ বার, বাহরাইন ১ বার, দুবাই ২ বার ও জর্দানে ৪ বার বিশ্ব কুরআন প্রতিযোগিতায় ১ম, ২য়, ৩য় স্থান অধিকার করে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশের সম্মানকে আরো উচ্চতায় পৌঁছিয়েছেন, ফলে আরব দেশে এখন বাংলাদেশী হাফেজদের মূল্যায়ন আকাশচুম্ভী। সম্প্রতিক সময়ে কাতার সরকার আরবদেশ থেকে ইমাম না নিয়ে বাংলাদেশ থেকে ইমাম নিচ্ছেন। যাদের বেতন লক্ষাধিক টাকা, যাদের যোগ্যতা হিফজুল কুরআন পর্যন্ত। তাদের অনেকেরই বয়স তুলনামূলকভাবে কম। কিন্তু তারা হিফজুল কুরআনে এতটা দক্ষ যে আরব দেশগুলোর সহী সহী কুরআনের প্রতিযোগিতা করে শতাধিক দেশকে পিছনে পেলে ১ম স্থান করে নিতে সক্ষম হচ্ছে বারবার আলহামদুলিল্লাহ!। যিনি এই কাজ সফলতার সাথে আঞ্জাম দিয়ে যাচ্ছেন তিনি হলেন হাফেজ গড়ার কারিগড় হাফেজ ক্বারী নেছার আহমাদ আন নাছিরীর ছাত্ররা। সরকারী ভাবেও বিবেচনা করলে হাজার হাজার ইমামগণ অর্থনৈতিক দূর্বলতা কাটিয়ে উঠতে সামনে অনেক বড় ভূমিকা রাখবেন। দেশের হাফেজগণের জন্য বিশুদ্ধভাবে তেলাওয়াত এবং আরবী ভাষা ও কুরআনিক ব্যাকরণ সহকারে প্রথমবারের মত তাহফিজ কুরআন শরীফ প্রণয়ন করা হয়েছে। এছাড়াও তিনি ইলমে তাজভীদ, বিশ্বখ্যাত হাফেজে কুরআনদের জীবনী, মুতাশাবিহাত, হিফজ করার সহজ পদ্ধতি ও হিফজ সিলেবাস। তাহফিজ কুরআন শরীফটি নকল থেকে বাচাঁর জন্য সরকারী নিবন্ধন ও করা হয়েছে। তথ্য মন্ত্রণালয় (প্রকাশনা অধিদপ্তর) কর্তৃক নিবন্ধন ও দ্বিতীয় নিবন্ধন হল কপিরাইট নিবন্ধন। কওমী মাদরাসা শিক্ষাবোর্ড (বেফাক) সভাপতি আল্লামা শাহ আহমাদ শফি দা.বা. সহ আরব বিশ্বে বিভিন্ন দেশের শায়েখগণ যারা এটা দেখে অভিমত দিয়েছেন তাদের এ বিশাল তালিকার মধ্যে মাননীয় ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের নামও রয়েছে। তাহফিজ কুরআন শরীফের বৈশিষ্ট হল।
(১) বয়স কম/ বেশী, শ্বাস ছোট, বড় আয়াত এক দমে পড়া যায় না অথবা কোথায় থামতে হবে এবং কোথায় থেকে শুরু করতে হবে, তা দেওয়া আছে সুন্দরভাবে ।
এই কুরআনে চিহ্ন দেওয়া আছেÑ বড় আয়াতের কোথায় থামতে হবে, আর কোথা থেকে শুরু করতে হবে। তখন অর্থও ঠিক থাকবে। শুনতেও ভালো লাগবে। আল্লাহও পছন্দ করবেন।
(২) পড়তে গেলে মুশাব্বাহ লেগে যায়: তিলাওয়াত করছিলো ১২ পারায় তেলাওয়াত চলাকালে কখন ২২ পারায় চলে যাওয়ার মত সমস্যার সমাধান রয়েছে এই কুরআনে। এর পাতায় পাতায় আয়াতের মুশাব্বাহগুলো লেখা রয়েছে। কোথায় কোথায় সমস্যা হতে পারে, কোথায় প্যাঁচ লাগতে পারে, তার উল্লেখ রয়েছে এই কুরআনে। ফলে মুশাব্বাহ লাগবে না আর কখনোই, ইনশাআল্লাহ!
এই বিশেষ তাহফিজ কুরআন শরীফ দ্রæততার সাথে হিফজ করা এবং সহজেই ইয়াদ রাখতে সাহায্য করবে।
(৩) আন্তর্জাতিক/জাতীয় প্রতিযোগিতা কিংবা নামাজে বা কোন অনুষ্ঠানের তিলাওয়াত করতে হলে পড়া চাই এই তাহফিজ কুরআন শরীফটি। অর্থ না জানলেও তিলাওয়াত শুরু ও শেষ করা যাবে নির্ভুলভাবে। কেননা কুরআনের বিষয়ভিত্তিক আলোচনাগুলো চিহ্নিত করা আছে এই তাহফিজ কুরআন শরীফে।
-মুফতি আলআমিন ফয়সাল
আল কোরআনের কাব্যানুবাদ
মুহিবুর রহমান খান
সূরা আ’রাফ
মক্কায় অবতীর্ণ : আয়াত ২০৬ রুকু : ২৪
আশ্রয় চাহি আল্লাহর, যেন শয়তান দূরে রয়,
(শুরু করিলাম) আল্লাহর নামে পরম করুণাময়


৭৯। তোমাদেরকে হিতোপদেশ দিয়েছি কিন্তু (দুঃখ বড়)
উপদেশ দানকারীকে তোমরা পছন্দ নাহি কর।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।