Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৫ অক্টোবর ২০১৯, ৩০ আশ্বিন ১৪২৬, ১৫ সফর ১৪৪১ হিজরী

লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে চা উৎপাদন

প্রকাশের সময় : ১০ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

কর্পোরেট রিপোর্ট : দেশে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে চা উৎপাদনে। গত বছর অর্থাৎ ২০১৫ সালের উৎপাদিত চায়ের পরিমাণ ৬ কোটি ৭৪ লাখ কেজি। যা আগের বছরের চেয়ে ৩০ লাখ কেজির বেশি। ২০১৫ সালে চা উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৬ কোটি ৬০ লাখ কেজি। বছর শেষে এ লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে ১৪ লাখ কেজি উৎপাদন বেশি হয়েছে। গত বছরের এ উৎপাদন রেকর্ড পরিমাণ হয়েছে। এর আগের বছর চা উৎপাদন ছিল ৬ কোটি ৩৮ লাখ কেজি। ২০১৩ সালে সর্বোচ্চ ৬ কোটি ৬৩ লাখ কেজি চা উৎপাদন হয়েছিল। চা বোর্ড সূত্রে জানা গেছে, ২০১২ সালে ৬ কোটি ৩০ লাখ কেজি চা উৎপাদিত হয়, ২০১১ সালে ৫ কোটি ৯১ লাখ কেজি, ২০০৯ ও ২০১০ সালে ৬ কোটি কেজি, ২০০৮ সালে ৫ কোটি ৮৫ লাখ কেজি। বাংলাদেশ চা গবেষণা কেন্দ্রের (বিটিআরআই) পরিচালক ড. মাঈন উদ্দিন আহমেদ জানান, অনুকূল আবহাওয়া, উৎপাদন এলাকার সম্প্রসারণ, ক্লোন গাছের ব্যবহার বৃদ্ধি এবং চা বোর্ডের নজরদারির ফলে গত মৌসুমে চা উৎপাদন বেড়েছে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে চা আমদানির পরিমাণ কমে যাবে বলে জানান তিনি। বর্তমানে দেশে ১৬৩টি চা বাগান রয়েছে। দেশে মোট এক লাখ ১৬ হাজার হেক্টর চা চাষের উপযোগী জমি থাকলেও ২০১৩ সাল পর্যন্ত মাত্র ৫৪ হাজার হেক্টর জমিতে চা চাষ হতো। আর ৬২ হাজার হেক্টরের মতো জমি অব্যবহৃত ছিল। তবে দেশে ও বাইরে চাহিদা বাড়ায় সম্প্রতি দেশে চা উৎপাদনও বেড়ে যায়। ভবিষ্যতে চা উৎপাদন বাড়াতে বাংলাদেশ চা বোর্ডের নেওয়া প্রকল্পগুলো সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হলে ২০২১ সালে দেশে ১০ কোটি কেজি চা উৎপাদন সম্ভব বলে মনে করেন বিটিআরআই। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, চা উৎপাদন বাড়াতে আগামী ১২ বছরে ১০টি প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে বিটিআরআই। প্রকল্পগুলোর আওতায় সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, চট্টগ্রাম, রাঙামাটি ও পঞ্চগড় জেলার ছয় হাজার ৪৪০ হেক্টর পতিত জমিতে আরও ১০৬টি চা বাগান তৈরি করা হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন