Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ১৮ আগস্ট ২০১৯, ০৩ ভাদ্র ১৪২৬, ১৬ যিলহজ ১৪৪০ হিজরী।

ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে মুয়াল্লেম ফির ৩০ লাখ ৩২ হাজার টাকা আত্মসাৎ

| প্রকাশের সময় : ১১ জুলাই, ২০১৭, ১২:০০ এএম

হাবের শীর্ষ নেতা জামানের কান্ড : ধর্ম মন্ত্রণালয়ে তোলপাড়
স্টাফ রিপোর্টার  : ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে হাবের সাবেক এক শীর্ষ নেতা ও ফকিরাপুলের একটি হজ এজেন্সি’র স্বত্বাধিকারী কর্তৃক জালিয়াতির মাধ্যমে হজযাত্রীদের মুয়াল্লেম ফি’র ৩০ লাখ ৩২ হাজার টাকা আত্মসাতের ঘটনায় মন্ত্রণালয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। দোর্দান্ড প্রতাপশালী হাবের সাবেক ঐ বিতর্কিত নেতা প্রায় প্রতিদিন ধর্ম মন্ত্রণালয়ের বিশেষ কক্ষে ঘন্টার পর ঘন্টা তদবিরে ব্যস্ত থাকেন বলে নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে। কোনো কোনো কর্মকর্তার অনুপস্থিতি’র সুবাধে ঐ হাব নেতা ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ শাখায় ঢুকে চেয়ারে বসে বিভিন্ন হজ এজেন্সি’র নানা তদবিরে নির্বিঘেœ ফাইল নাড়া-চাড়া করেন।
এছাড়া ধর্ম মন্ত্রীর বাসায় ঐ হাব নেতার যাতায়াতের সুবাধে হজ শাখার কর্মকর্তারা তার ব্যাপারে কোনো উচ্চ-বাচ্য করতে সাহস পান না। হাবের নাম ভাঙ্গিয়ে ঐ শীর্ষ নেতা ধর্ম মন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমানের সরকারী বাস ভবনে মাঝে মধ্যেই আড্ডা দেন নির্বিঘেœ। হজ ব্যবস্থা নিয়ে নানা সংকট সৃষ্টি হলেও ধর্মমন্ত্রীর বাস ভবনের বৈঠকে রাতের বেলায় হাবের পরিচয়ে কোনো কোনো সিদ্ধান্তের ব্যাপারেও ঐ নেতাকে প্রভাব খাটাতে দেখা যায় বলে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানান। ধর্ম মন্ত্রণালয়ে ঐ হাব নেতার অবাধ যাতায়াতে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা দীর্ঘ দিন যাবত অতিষ্ঠ। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সূত্র জানায়, নানা তদবিরের আয়ের কালো টাকায় রাজধানীর রুপসী হোটেলের (শেরাটন) অদূরে অত্যাধুনিক ফ্লাট তৈরি করেছেন ঐ হাব নেতা। এ নিয়ে নানা মুখ রোচক গল্পও শোনা যায়।
গত ৯ জুলাই ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব (হজ-২) বেগম হাসিনা শিরীনের স্বাক্ষরিত স্মারকের সরকারি অর্থ আত্মসাতের ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হওয়ায় কারণ দর্শানোর নোটিশে (নং শা: ৩/৭-১০৮/২০০২-১০৮৬ ) জানা গেছে, মুয়াল্লেম ফি বাবদ হজযাত্রী প্রতি ২০ হাজার ৩শ’ ৫১টাকা এজেন্সি’র অনুকূলে অর্থ ফেরত নেয়ার লক্ষ্যে হজ এজেন্সি আল-মাহমুদ ট্রাভেলস (হজ-লাইসেন্স নং-০০২১)-এর পক্ষ থেকে সাউথইষ্ট ব্যাংক লি: মতিঝিল শাখা ঢাকার হিসাব (নং-০০২৭১১১০০০০৬৭৩০) এর নাম উল্লেখ করে মন্ত্রণালয়ে আবেদন পাঠানো হয়। কিন্ত গত ৪ জুলাই সকাল ১০টায় আল-মাহমুদ ট্রাভেলসের স্বত্বাধিকারী ও হাবের সাবেক সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কবির খান জামান ধর্ম মন্ত্রণালয়ের হজ শাখায় ঢুকে কম্পিউটার অপারেটর মোজালেমিন রাজিবের সাথে আতাঁত করে অতিগোপনে এজেন্সি’র অনুকূলে পূর্বের ব্যাংকের নাম শাখার নাম ও হিসাব নম্বর পরিবর্তন করে প্রাইম ব্যাংক লি:, ইসলামিক ব্যাংকিং শাখা দিলকুশা হিসাব (নং-১০৮৩১০৮০০৩৩০৪৭) দ্বিতীয় তালিকায় পুনরায় এজেন্সি’র নাম অর্ন্তভুক্ত করে। এজেন্সি’র অনুকূলে ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে ইস্যুকৃত ১ম পে-অর্ডারটির হজযাত্রীর মুয়াল্লেম ফি’র ৩০ লাখ ৩২ হাজার ২শ’ ৯৯ টাকা দ্রæত উত্তোলন করা হয়। আল-মাহমুদ ট্রাভেলস এজেন্সি’র ২য় পে-অর্ডারটি’র মাধ্যমে ধর্ম মন্ত্রণালয়ের মুয়াল্লেম ফি’র ৩০ লাখ ৩২ হাজার ২শ’ ৯৯ টাকাও সোনালী ব্যাংক লি: স্থানীয় কার্যালয় থেকে উত্তোলন করে অন্য ব্যাংকে জমা করে আত্মসাত করা হয়েছে। দুর্নীতি ও জালিয়াতির মাধ্যমে ২য় পে-অর্ডারের মাধ্যমে মুয়াল্লেম ফি’র সরকারী অর্থ ৩০ লাখ ৩২ হাজার ২শ’ ৯৯ টাকা আত্মসাতের ষড়যন্ত্রের দরুণ হাবের সাবেক বিতর্কিত নেতা আব্দুল কবির খান জামানের বিরুদ্ধে কেন আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না সে বিষয়ে আজ মঙ্গলবারের মধ্যে কারণ দর্শানোর জন্য নোটিশে বলা হয়েছে। খোঁদ ধর্ম মন্ত্রণালয় থেকে হজযাত্রীদের মুয়াল্লেম ফি আত্মসাতের ঘটনা ফাঁস হওয়ায় হাবের বর্তমান নেতৃবৃন্দও হতবাক। হাবের বর্তমান কমিটি’র একজন শীর্ষ নেতা গতকাল সোমবার ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সরকারী কোষাগার থেকে মুয়াল্লেম ফি’র ৩০ লাখ ৩২ হাজার টাকা আতœ্সাতের ঘটনা হাবের সদস্যদের জন্য একটি কলংকিত অধ্যায় হয়ে থাকবে। এ ব্যাপারে হাবের পক্ষ থেকে হাবের সাবেক ঐ বিতর্কিত নেতাকে কোনো প্রকার সহায়তা করা হবে না।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: হজ

১০ আগস্ট, ২০১৯

আরও
আরও পড়ুন