Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী

ভিজিএফের চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগ

| প্রকাশের সময় : ১৪ জুলাই, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) উপজেলা সংবাদদাতা
ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে ভিজিএফ’র চাল বিতরণে অনিয়ম ও দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। গত সোমবার ট্যাগ অফিসারের অনুপস্থিতিতে জাটিয়া ইউনিয়নের চাল বিতরণে ওজনে কম ও একই ব্যক্তিকে একাধিক কার্ড দিয়ে চাল উত্তোলন করানোর অভিযোগ উঠে চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। জানা যায়, উপজেলার জাটিয়া ইউনিয়নের জন্যে বরাদ্দকৃত ঈদের বিশেষ ভিজিএফের ৩৯টন গম ও ৩৩টন চাল বিতরণের জন্যে দেয়া হয়। এতে ৬হাজার ২৫১জন কার্ডধারীকে ১৩কেজি গম বা ১০কেজি চাল বিতরণের কথা, কিন্তু চেয়ারম্যান ট্যাগ অফিসারের উপস্থিতি ছাড়াই গত সোমবার থেকে বিতরণ করা শুরু করে। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, ভিজিএফের কার্ড দুস্থ্যদের মধ্যে বিতরণ কাজ শেষ না করেই ভিজিএফ’র চাল দেয়া হচ্ছে। প্রতিটি লোকের হাতে ৭/৮টি করে কার্ড নিয়ে লাইনে দাঁড়িয়ে আছে। একজনের হাতে এতো কার্ড কেন জানতে চাইলে অনেকেই কোন উত্তর দিতে পারেনি এবং নাম উল্লেখ ছাড়াই মাস্টার রোলে টিপ সহি নেওয়া হচ্ছে কারণ জানতে চাইলে তাদের হাতে কোন তালিকা নেই বলে জানান। জাটিয়া গ্রামের সৈয়দ আলীর ছেলে কফিল উদ্দিন জানান, ইউপি চেয়ারম্যানের ভগ্নিপতি তাকে দিয়ে ৩ বারে ১২টি কার্ডের চাল উত্তোলন করেছেন। চাল উত্তোলন করে দেয়ায় তাকে চা-পানের কিছু খরচ দিয়েছেন। ইউনিয়ন আ.লীগের সাধারণ সম্পাদক ফজলুল করিম রতন বলেন, দলীয় নেতাকর্মীদের মাধ্যমে দুস্থ্যদের মধ্যে বিতরণের জন্যে কার্ড বরাদ্দের প্রচার দিয়ে চেয়ারম্যান নিজ হাতে রেখে চাল না দিয়ে কালোবাজারে বিক্রির করছে। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল গনী খান বলেন, বিষয়টি নিয়ে ইউএনওর সাথে কথা হলে তিনি ওয়ার্ড ভিত্তিক তালিকার মাধ্যমে কার্ডদারীদের উপস্থিতি নিশ্চিত করে চাল বিতরণের নির্দেশ দেন। কিন্তু চেয়ারম্যান ওই নির্দেশ উপেক্ষা করে নিজ ইচ্ছা মাফিক চাল বিতরণ করছেন। ট্যাগ অফিসার (সমাজসেবা অফিসার) মিজানুল ইসলাম আকন্দ বলেন, গত সোমবার ইউএনও স্যারকে সাথে নিয়ে পরিষদে গিয়ে চাল বিতরণের জন্যে নিষেধ করা হয়। মঙ্গলবার বাহিরে ছিলাম তাই চাল বিতরণে যাওয়া হয়নি। ইউপি চেয়ারম্যান শামছুল হক ঝন্টু বলেন, ট্যাগ অফিসার অন্য কাজে ব্যস্ত থাকায় আসতে পারেনি। একই পরিবারের একাধিক ব্যক্তির নামে কার্ড থাকলে ওই পরিবারের পক্ষে একজন এসে চাল উত্তোলন করছেন। নতুন কোন তালিকা করা হয়নি। উপজেলা নির্বাহী অফিসার মিতু মরিয়ম বলেন, সোমবার পরিষদে গিয়ে ওয়ার্ড মেম্বারদের মাধ্যমে তালিকা করে প্রকৃত দুস্থদের মধ্যে চাল বিতরণের জন্যে বলা হয়। এক ব্যক্তি একাদিক কার্ডের চাল উত্তোলনের বিষয়ে নিষেধ দেওয়া হয়েছে। ট্যাগ অফিসার ছাড়া কোন ভাবেই বিতরণ করতে পারে না। আমি বিষয়টি দেখছি।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন