Inqilab Logo

ঢাকা মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭, ১১ সফর ১৪৪২ হিজরী
শিরোনাম

রবের বাসায় পুলিশ কেন?

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদের প্রশ্ন

| প্রকাশের সময় : ১৬ জুলাই, ২০১৭, ১২:০০ এএম


স্টাফ রিপোর্টার : দেশে ‘এক ব্যক্তি’র শাসন চলছে অভিযোগ করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সংবিধান বিশেষজ্ঞ ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমেদ বলেছেন, বর্তমানে দেশে চলছে ‘আই অ্যাম দি স্টেট’ কর্তৃত্ববাদী শাসন। এ অবস্থার অবসানে ‘সুষ্ঠু অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের› এক দফা দাবিতে সব রাজনৈতিক দলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে।  গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। এ সময় স্বাধীনতার পতাকা উত্তোলক জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবের উত্তরার বাসায় কয়েকজন নেতার রাতের ঘরোয়া অনুষ্ঠানে পুলিশি বাধার কঠোর সমালোচনা করে  ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সভায় আ স ম রবের বাসার অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্নাসহ বেশ কয়েকজন নেতা উপস্থিত ছিলেন। ঘরোয়া বৈঠকে পুলিশী বাধার তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করে সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট ব্যারিষ্টার মওদুদ বলেন, আ স ম আবদুর রবের বাসায় বাংলাদেশের স্বনামধন্য অনেক রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। সেখানে তারা যা খুশি আলোচনা করতে পারেন, এটাতে আইনগত তো কোনো বাধা নাই। সেখানে পুলিশ যাবে কেন? আমি তীব্র ভাষায় এর নিন্দা জানাই। এটার একমাত্র কারণ রাজনৈতিক নেতৃত্বের মাইন্ডসেট যে আমিই সব কিছু করব।
 বর্তমানে দেশে ‘এক ব্যক্তি’র শাসন চলছে অভিযোগ করে তার অবসানে ‘সুষ্ঠু অবাধ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের› এক দফা দাবিতে সব রাজনৈতিক দলের জাতীয় ঐক্য প্রয়োজনীতার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমিই সব কিছু করব, আই অ্যাম দি স্টেট’- এই কর্তৃত্ববাদের আমরা অবসান চাই, এই কর্তৃত্ববাদ আমরা নির্মূল করে দিতে চাই। সেটা করার একমাত্র উপায় হল, জনগণের মাধ্যমে একটি সরকার প্রতিষ্ঠা করার মধ্য দিয়ে সেটা আমরা করতে পারি। আমি বলব, এই কারণে একটা ন্যুনতম কর্মসূচির উপরে ভিত্তি করে একটা জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করতে হবে। এর মূল্য লক্ষ্য হবে দেশে আমরা গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে আনতে চাই। মানুষের অধিকার, ভোটের অধিকার ফিরিয়ে আনতে চাই। এজন্য আমরা একটা সুষ্ঠু অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচন চাই, এক দফা। এখানে পাঁচ দফা ১০ দফার তো দরকার নাই।
উত্তরায় জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রবের বাসায় ‘চা চক্রে’ পুলিশী বাধার গণতন্ত্রহীনতার কারণে হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারীর পর ভোটের অধিকার গণতন্ত্র হারিয়ে গেছে। দেশে গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনা দরকার। এ জন্যই আমরা সমঝোতার কথা সবাই বলে এসছি। সরকার যদি সেটা না বুঝেন। আপনারা বলছেন যে, তারা (আওয়ামী লীগ সরকার) তো ক্ষমতাচ্যুত হতে চাইবেন না, তারা দুর্নীতির মাধ্যমে এত সম্পদের সম্ভার তৈরি করেছেন, সেই সম্ভার হারিয়ে ফেলতে পারে- এই ভয়ে তারা ক্ষমতা ছাড়তে চাইবে না। সেজন্য তাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করতে জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করতে হবে। আমাদের মধে্যঃ অনেকের ক্ষোভ-দুঃখ-বেদনা, অনেক অভিযোগ ও অনেক রকমের দ্বিমত থাকতে পারে। কিন্তু একটা বিষয়ে আমরা আসুন একমত হই দেশে গণতন্ত্রের চর্চা ফিরিয়ে আনতে আনব। জাতীয় ঐক্য সৃষ্টি করে দেশে গণতান্ত্রিক চর্চার সুরক্ষায় নির্বাচন কমিশন, দুর্নীতি দমন কমিশন, সরকারি কর্ম কমিশনসহ সংসদকে শক্তিশালী করতে জনগণের সঙ্গে চুক্তিপত্র হতে হবে। গত কয়েকটি সংসদে বিরোধী দলের কোনো মুলতবি প্রস্তাব আলোচনা হয়নি বলে দাবি করে মওদুদ বলেন, মুলতবি প্রস্তাব- এই দুইটি সংসদের কথা বাদই দিলাম, এই দুটা তো কোনো সংসদ না। আগের সংসদেও একটা মুলতবি প্রস্তাব আলোচনা হয় নাই। নট এ সিঙ্গেল ওয়ান। এগুলো আমাদের রেকটিফাই করতে হবে। তিনি আরো বলেন, আমরা যারা ভুল করেছি, আমাদের সেই ভুল সংশোধন করতে হবে। তা না হলে খামাখা সবাইকে নিয়ে আন্দোলন করে ক্ষমতায় এসে গেলাম, তারপরে যদি। আমরা সেজন্য আমাদের বেগম খালেদা জিয়া ‘ভিশন ২০৩০’ বিষয়ে আমরা অনেক প্রশংসা পেয়েছি। সেখানে সব কিছু বিস্তারিত আছে- আমরা কি করতে চাই। আমিতো মনে করি বর্তমান নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ নয়। তারপরও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বিষয়ে কমিশনের সংলাপে বিএনপি অংশ নেবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন