Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ আশ্বিন ১৪২৭, ০৬ সফর ১৪৪২ হিজরী

অর্থাভাবে আব্দুল জব্বারের চিকিৎসা ব্যাহত হচ্ছে

প্রকাশের সময় : ৩০ জুলাই, ২০১৭, ১২:০০ এএম | আপডেট : ৯:৫৮ পিএম, ২৯ জুলাই, ২০১৭

বিনোদন রিপোর্ট: অর্থের অভাবে কিংবদন্তী সঙ্গীতশিল্পী আবদুল জব্বারের চিকিৎসা ব্যহত হচ্ছে। তিনি ঠিক মতো চিকিৎসা পাচ্ছেন না। গত তিন মাস ধরে তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ৬২০ নম্বর কেবিনে চিকিৎসাধীন। দিন দিন তার শারীরিক অবস্থার চরম অবনতি ঘটছে। এই শিল্পীর দুটি কিডনিই নষ্ট। এছাড়া শারিরীক আরও অনেক সমস্যা রয়েছে। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে দ্রুত দেশের বাইরে নেয়া প্রয়োজন বলে মনে করছেন তার চিকিৎসক ও পরিবারের সদস্যরা। আবদুল জব্বারের ছোট ছেলে বাবু জানিয়েছেন, গত কয়েক দিন ধরে বাবার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে। তিনি এখন কাউকে ভালো করে চিনতে পারছেন না। ডাক্তার বলেছেন উন্নত চিকিৎসার জন্য বাবাকে দ্রুত দেশের বাইরে নিয়ে যাওয়া প্রয়োজন। নইলে তাকে বাঁচানো সম্ভব নয়। কিন্তু সেই সামর্থ্য আমাদের নেই। তাই অসহায়ভাবেই বাবার মৃত্যু দেখতে হবে হয়তো। বাবু বলেন, যে পিতা এত স্নেহ, সম্মানে বেড়ে ওঠার পরিবেশ দিলেন সেই পিতার জন্য সন্তান হিসেবে কিছুই করতে পারছি না। চোখের সামনে দেখতে হচ্ছে বাবা কষ্ট পাচ্ছেন। এদিকে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, একটি কিডনি হলে তাকে বাঁচানো সম্ভব। বাবু জানান, প্রতিদিন ইনজেকশন দিতে হচ্ছে। অনেক টাকা যাচ্ছে। যা অর্থ ছিল তার সবই প্রায় শেষ। এত টাকা কোথায় পাব? মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দুই বছর আগে ২০ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র দিয়েছিলেন। সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, স্বাস্থ্যমন্ত্রী নাসিম, সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর হাসপাতালে দেখতে এসেছিলেন। তারা উন্নত চিকিৎসার জন্য সহযোগিতার আশ্বাসও দিয়েছেন। কিন্তু এখন পর্যন্ত আমরা কোনো সাহায্য পাইনি। আমরা নিজেরাও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চেষ্টা করছি। পারছি না। শেষ জীবনে এসে তার পাশে তেমন কাউকে আমরা পাচ্ছি না।



 

Show all comments
  • মো রিপন ৩০ জুলাই, ২০১৭, ১:২২ এএম says : 0
    আবদুল জব্বার সাহেব কে শেখ হাসিনার সঙ্গে দেখা করতে হবে নিজে।
    Total Reply(0) Reply
  • Hira ৩০ জুলাই, ২০১৭, ৬:০২ পিএম says : 0
    Nobody care anybody doesn't matter die or go astray. Power holders or their own peoples don't care for the peoples but by the peoples they are in power. One day all will be same. Northing worry about that.
    Total Reply(0) Reply

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন