Inqilab Logo

ঢাকা বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ০৯ আশ্বিন ১৪২৭, ০৬ সফর ১৪৪২ হিজরী

কুষ্টিয়ায় ভুল চিকিৎসায় প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ

| প্রকাশের সময় : ১৩ আগস্ট, ২০১৭, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার, কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়া শহরের আদ্বদীন হাসপাতালে শুক্রবার চম্পা খাতুন নামের এক প্রসূতি মা সিজার করাতে গিয়ে হাসপাতালেই মারা গেছেন। ওই প্রসূতি মা মারা গেলেও তিনি একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তান জন্ম দিয়েছেন। রোগির স্বজনরা বলছেন, ডাক্তারের ভুল অপারেশন ও মাত্রাতিরিক্ত ওষুধ প্রয়োগে কারনে রোগি মারা গেছেন।
জানা যায়, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার জগতি এলাকার লিটন মোল্লার স্ত্রী চম্পা খাতুন (২৫) এর প্রসব বেদনা উঠলে শুক্রবার দুপুর ১২ টার দিকে তাকে শহরের আদ্বদীন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ডাঃ নওয়াব আলী একজন সার্জন বিশেজ্ঞ না হয়েও রোগির অবস্থা দেখে সিজার করার জন্য রোগির স্বজনদের পরামর্শ দেয়। রোগির স্বজনরা বলেন, ডাঃ নওয়াব আলী বিকেল ৪ টার দিকে রোগিকে অপারেশন করার জন্য অপারেশন টেবিলে নিয়ে যায়। অপারেশনের আধাঘন্টা পর সিজারে চম্পা একটি ফুটফুটে কন্যা সন্তান জন্ম দেয়। পরে রোগির সিজার সম্পন্ন হলে ওয়ার্ডে দিয়ে যায় নার্সরা। কিছুক্ষন পর নার্সরা এসে রোগির শরীরে মাত্রাতিরিক্ত ওষুধ ট্রাইজন টু গ্রাম ইনজেকশন পুশ করলে রোগি ছটফট করতে থাকে। এক পর্যায়ে পুনরায় চম্পা খাতুনকে অপারেশন থিয়েটারে নিয়ে যাবার কিছুক্ষন পর মারা যায়।
চম্পার স্বামী লিটন বলেন, ডাঃ নওয়াব আলী তড়িঘড়ি করে অপারেশন থিয়েটার থেকে দ্রæত বের হয়ে হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়ে চলে যায় এবং আমাকে বলে যায় আপনার রোগি সুস্থ আছে। তারপর আমি গিয়ে দেখি আমার স্ত্রী আর বেঁচে নেই। সে অপারেশন থিয়েটারেই মারা যায়। এ বিষয়ে ডাঃ নওয়াব আলীর সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, অপারেশন থিয়েটারে রোগির মৃত্যু হয়নি। অপারেশন সম্পন্ন করে থিয়েটার থেকে রোগি বের করে বেডে দিলে নার্সরা ভূল বসত মাত্রাতিরিক্ত এনট্রিবাইটিক ইনজেকশন দিলে রোগির মৃত্যু হয়।
কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্য(ওসি) নাসির উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমি শুনেছি আদ্বদীন হাসপাতালে অপারেশন করাতে গিয়ে একজন প্রসূতি মায়ের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় রোগির স্বজনরা আদ্বদীন হাসপাতাল বেরিগেড দিয়ে রেখেছে, তবে পুলিশ পরিস্থিতি শান্ত করার চেষ্টা করছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন