Inqilab Logo

শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ রবিউস সানী ১৪৪৩ হিজরী

‘হে আল্লাহ! লাশ দাফনের শুকনো মাটি দাও!!’

| প্রকাশের সময় : ১৫ আগস্ট, ২০১৭, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : ‘হে আলাহ, তুমি আমাদের শক্তি দাও, সাহস দাও, লাশ দাফন করতে একখন্ড শুকনো জমিন দাও’ লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নে পূর্ব বড়ুয়া গ্রামের স্বজন হারানো আছিয়া বেগম- মনছুর মিয়া যখন স্বজনদের লাশ নিয়ে বিলাপ করছিলেন; তখন উপস্থিত কেউ চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। প্রতিবেশি সবাই বানভাসী। দূর্বিসহ জীবন যাপন করছেন পানিতে। তাই সান্তনা দেয়া ছাড়া তাদের সামনে আর কোনো পথ খোলা ছিল না। অতপর কয়েক মাইল দুরের আত্মীয়-স্বজনদের বাড়িতে দাফন করা হয়। স্থানীয় সাংবাদিকদের ভাষায় সেই করুণ দৃশ্য চোখে না দেখলে বিশ্বাস করা কঠিন।
যেদিকে চোখ যায় শুধু পানি আর পানি। বন্যায় উত্তরাঞ্চলের সব হারানো মানুষ পানির কারণে তাদের মৃত স্বজনদের দাফনও করতে পারছেন না। অনেকেই দশ গ্রাম দূরে অথবা পার্শ্ববর্তী জেলায় নিয়ে দাফন করছেন। শোকের সঙ্গে বানভাসিদের মাতম, ‘হে আলাহ, তুমি আমাদের শক্তি দাও, সাহস দাও, লাশ দাফন করতে একখন্ড শুকনো জমিন দাও’।
বানের পানিতে ঘরবাড়ি ডুবে গেছে ক’দিন আগেই। নিরাপদ আশ্রয়ের খোঁজে গত রেরাববার বিকেলে কলার ভেলা বানিয়ে তাতে চেপে বসেন ৫ বছরের ছেলে নাদিম বাবুকে নিয়ে লালমনিরহাট সদর উপজেলার কুলাঘাট ইউনিয়নে পূর্ব বড়ুয়া গ্রামের আবু হানিফ (৩৫) প্রতিবেশী দম্পতি মোজাম উদ্দিন (৪৫) ও আসমা বেগম (৪০) ছিল ভেলায়। হঠাৎ ধরলা নদীর পানির শ্রোত ভেলা ভাসিয়ে নিয়ে যায়। এরপর কেউ তাদের খুঁজে পায়নি। যখন পাওয়া গেল, তখন সব শেষ হয়ে গেছে। রাতেই শিশু নাদিমের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে সোমবার ভোরে বাকি তিনজনের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। বানভাসিদের স্বজন হারানোর শোকের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে মরদেহ দাফন না করার কষ্ট। চতুর্দিকে পানি; শুকনো যায়গা নেই। পরে আবু হানিফ ও তার ছেলে নাদিমকে সদর উপজেলার মহেন্দ্রনগর গ্রামে দাফন করা হয়। আর আছমা বেগম ও তার স্বামী মোজাম উ্িদ্দনকে রংপুরে নিয়ে দাফন করা হয়। মৃতদের স্বজন আছিয়া বেগম, মনছুর মিয়া ও হামিদ আলী কান্নাজড়িত কণ্ঠে বিলাপ করতে থাকেন, ‘আলাহ, তুমি এদের তো নিয়েই গেছো, বাকিদের হেফাজত কর। মালিক, বন্যার অভিশাপ থেকে আমাদের মুক্তি দাও।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: বন্যা


আরও
আরও পড়ুন