Inqilab Logo

ঢাকা, সোমবার, ১৬ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১ আশ্বিন ১৪২৬, ১৬ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী।

চীন-ভারত সংক্ষিপ্ত সংঘর্ষ

| প্রকাশের সময় : ১৭ আগস্ট, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ইনকিলাব ডেস্ক : হিমালয় পর্বতের মালিকানা নিয়ে বিরোধপূর্ণ একটি এলাকায় ভারতীয় ও চীনা সৈন্যদের মধ্যে সংক্ষিপ্ত সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। গত মঙ্গলবার ভারতের জম্মু ও কাশ্মীর রাজ্যের অন্তর্ভুক্ত লাদাখের প্যাঙ্গং হ্রদ এলাকায় চীনা সৈন্যরা ভারতীয় সৈন্যদের লক্ষ্য করে পাথর ছুঁড়েছে বলে গতকাল বুধবার জানিয়েছেন ভারতীয় এক প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা। গত কয়েকমাস ধরে সিকিম সীমান্ত এলাকায় দু’পক্ষের সেনাবাহিনীর মুখোমুখি অবস্থান নিয়ে আছে। সিকিম সীমান্তের কাছাকাছি মালিকানা নিয়ে বিরোধপূর্ণ ডোকলাম এলাকায় চীনা বাহিনীর রাস্তা নির্মাণ নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে উত্তেজনা সৃষ্টি হয়। ডোকলাম এলাকার মালিকানা নিয়ে চীন ও ভুটানের মধ্যে বিরোধ থাকলেও ভুটানের পক্ষ হয়ে ভারতীয় বাহিনী ডোকালামে চীনের রাস্তা নির্মাণে বাধা দেয়। এরপর থেকে ওই এলাকায় মারমুখী অবস্থান নিয়ে আছে দু’পক্ষের বাহিনী। এই নিয়ে চলা উত্তেজনার ধারাবাহিকতায় এবার লাদাখ সীমান্ত এলাকায় দু’পক্ষের মধ্যে মৃদু সংঘর্ষের ঘটনা ঘটল। অপর এক খবরে বলা হয়, ভারত-চীনের মধ্যে তুমুল উত্তেজনার ভিতরেই দু’দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যে মারাত্মক বাক-বিতÐা হয়েছে সীমান্তে। এমনকি তা হাতাহাতিতেও রূপ নিয়ে থাকতে পারে। এতে উভয় পক্ষে অনেকে আহত হয়েছেন। ভারতীয় সূত্রের উদ্ধৃতি দিয়ে এ খবর দিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স। এতে বলা হয়, মঙ্গলবার হিমালয়ের পশ্চিমাঞ্চলে প্যাঙ্গোং লেক এলাকায় লাদাখে এ ঘটনা ঘটেছে। প্যাঙ্গোং লেক এলাকাটি কাশ্মিরের ভিতরে পড়েছে। পরিস্থিতি সম্পর্কে জানানো হয়েছে নয়া দিল্লির এমন একটি সূত্র বলেছেন, চীনের সেনাবাহিনী লাদাখে প্রবেশ করার চেষ্টা করেছিল। তাদেরকে প্রতিহত করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনীর সদস্যরা। এ সময় চীনের সেনারা লোহার রড ও পাথর নিয়ে আসে সঙ্গে করে। তবে এ বিষয়ে চীনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় বা পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কোনো মন্তব্য করেনি। প্যাঙ্গন হ্রদ এলাকাটি সমুদ্র পৃষ্ঠ থেকে চার হাজার মিটার উচ্চতায় তিব্বতের মালভূমিতে অবস্থিত। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ভারতীয় কর্মকর্তা জানিয়েছেন, চীনা সৈন্যরা দুইবার ভারতীয় এলাকায় প্রবেশের চেষ্টা করে, দুইবারই তাদের ঠেলে দেওয়া হয়। আন্তর্জাতিক এক সংবাদ মাধ্যমকে ওই সেনাকর্মকর্তা বলেন, সেখানে ছোট একটি ঘটনা ঘটেছে। চীনাপক্ষ থেকে পাথর ছোঁড়া হয়েছিল, কিন্তু দ্রæত পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়। ভারতীয় কর্মকর্তাদের বরাতে এনডিটিভি জানিয়েছে, চীনের পিপলস লিবারেশন আর্মির (পিএলএ) সৈন্যরা ভোর ৬টা থেকে সকাল ৯টার মধ্যে দুবার লাদাখ সীমান্তের দুটি এলাকা, ফিঙ্গার ফোর ও ফিঙ্গার ফাইভ দিয়ে ভারতীয় এলাকায় প্রবেশের চেষ্টা করে। উভয়ক্ষেত্রেই সতর্ক ভারতীয় সেনারা তাদের প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে দেয়। যখন চীনা সৈন্যরা দেখতে পায় ভারতীয় সেনারা মানববন্ধন তৈরি করে পথ আটকে রেখেছে তখন তারা পাথর নিক্ষেপ শুরু করে, সঙ্গে সঙ্গে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীরাও চীনাদের লক্ষ্য করে পাথর নিক্ষেপ শুরু করে। এ সময় উভয়পক্ষের বেশ কয়েকজন সেনা ছোটোখাট আঘাত পান। পরে উভয়পক্ষ নিজ নিজ অবস্থানে ফিরে গেলে পরিস্থিতি শান্ত হয়। জম্মু ও কাশ্মীরের পুলিশ জানিয়েছে, লাইন অব অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল (এলএসি) নামে পরিচিত ওই সীমান্তে সংঘর্ষ তুলনামূলকভাবে একটি সাধারণ ঘটনা। উল্লেখ্য, এমনিতেই দোকলাম নিয়ে ভারত ও চীনের মধ্যে যুদ্ধংদেহী অবস্থান। তার মধ্যে আবার নতুন করে এ খবর সচেতনদের ভাবিয়ে তুলেছে। ওই দোকলামে চীনা সেনাবাহিনীর একটি রাস্তা নির্মাণে বাধা দেয় ভারতীয় সেনারা। এই এলাকাটি ভারত ও চীন উভয়েই নিজেদের বলে দাবি করে। এ নিয়ে উত্তেজনা তুঙ্গে রয়েছে। মুখোমুখি অবস্থানে রয়েছে সেখানে দু’দেশের সেনারা। চীন বার বার বলছে, দোকলাম থেকে একতরফাভাবে নিজ দেশের সেনাদের প্রত্যাহার করে নিতে হবে ভারতকে। যদি তা করা না হয় তাহলে উত্তেজনা আরো বাড়বে। ওদিকে চীনের রাষ্ট্রীয় মিডিয়া ভারতকে হুঁশিয়ার করে দিয়েছে। বলা হয়েছে, সীমান্ত ইস্যুতে ১৯৬২ সালে যে যুদ্ধ হয়েছিল তার চেয়ে ভয়াবহ পরিণতি ভোগ করতে হবে ভারতকে। ডন, এনডিটিভি, রয়টার্স, টাইমস অব ইন্ডিয়া।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ