Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫, ১০ মুহাররাম ১৪৪০ হিজরী‌

রামপুরায় ছিনতাইকারীর গুলিতে নিহত ১

অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়ে হাসপাতালে ৪ জন

প্রকাশের সময় : ১৪ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার
রাজধানীর রামপুরা হাজীপাড়া এলাকায় ইসমাইল নামে এক ব্যক্তিকে গুলি করে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তার কাছ থেকে নগদ ২ লাখ ৯০ হাজার টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায় তারা। গতকাল বেলা পৌনে ৩টার দিকে রামপুরার হাজীপাড়া এলাকার নতুন রাস্তার চশমা দোকানের সামনে এ ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে সায়েদাবাদ ও কাকরাইলে অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে দুই ব্যাংক কর্মকর্তাসহ চার ব্যক্তি সর্বস্ব খুইয়েছেন। পুলিশ পৃথক স্থান থেকে তাদের অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।
পুলিশ জানায়, রামপুরা হাজীপাড়ায় এক চশমার দোকানের সামনে ছিনতাইকারীরা গুলি করে হত্যা করে ইসমাইলকে। এ সময় তার সঙ্গে থাকা টাকাভর্তি ব্যাগ ছিনিয়ে নিয়ে তারা পালিয়ে যায়। পুলিশ আরো জানায়, নিহত ইসমাইল রামপুরা বিটিভি ভবনের পাশের ‘বাংলাদেশ সেনেটারি’ নামে একটি দোকানের ম্যানেজার। ওই দোকানের মালিক মিন্টু জানান, হাজীপাড়া এলাকার আল-আরাফাহ ইসলামী ব্যাংক থেকে ওই টাকা উত্তোলন করে রামপুরা এলাকায় ডাচ-বাংলা ব্যাংকে জমা দিতে যাচ্ছিলেন ইসমাইল। পথে দুর্বৃত্তরা তার ওপর হামলা চালায়। দুর্বৃত্তরা গুলি করে হত্যা করে টাকা ছিনিয়ে নিয়ে পালিয়ে যায়।
এদিকে অজ্ঞান পার্টির ঘটনা সম্পর্কে পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র জানায়, গতকাল (রোববার) বেলা আড়াইটায় বাসের ভেতরে একরাম হোসেন (৩৫) ও মাসুদ রানা (৩৬) নামে আইএফআইসি ব্যাংকের দুই কর্মকর্তা অজ্ঞান পার্টির খপ্পরে পড়েন। পরে বাস হেলপার তাদের অচেতন অবস্থায় কাকরাইল মোড়ে নামিয়ে দেন। সেখান থেকে তাদের সহকর্মীরা উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যালে ভর্তি করান।
আইএফআইসি ব্যাংকের অপর এক কর্মকর্তা দীপংকর দাস জানান, রামপুরার বনশ্রী থেকে তারা মতিঝিলে অফিসে আসার জন্য রওনা হন। পথে তারা দু’জনই ডাব খান। এর পরই বাসের ভেতরে অচেতন হয়ে পড়েন। পরে বাসটি কাকরাইল পৌঁছলে বাসের সুপারভাইজার ভাড়া চাইতে এলে তাদেরকে অচেতন অবস্থায় দেখতে পান। তাদের কাছে থাকা মোবাইল থেকে তাকে (দীপংকরকে) ফোন করা হয়। পরে তিনি নিজে তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন।
এদিকে এর ১৫ মিনিট আগে বেলা সোয়া ২টার দিকে পুলিশ সায়েদাবাদ বাস টার্মিনাল থেকে খোকন মিয়া (৪৫) ও রুবেল হোসেন (৩৭) নামে দুই ব্যক্তিকে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার করে ঢামেক হাসপাতালে ভর্তি করেন।
সায়েদাবাদ পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ হেমায়েত হোসেন জানান, বাস টার্মিনাল এলাকায় ওই দুই ব্যক্তিকে অচেতন অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। পরে তাদের অচেতন অবস্থায় হাসপাতালে নেয়া হয়। এ ব্যাপারে ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত ইনচার্জ জুলহাস উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, তাদের চেতনা ফিরলে আসল ঘটনা জানা যাবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ