Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার ২১ মে ২০১৯, ০৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬, ১৫ রমজান ১৪৪০ হিজরী।

জাতীয় দলের প্রস্তুতি ম্যাচ অনিশ্চিত

স্পোর্টস রিপোর্টার | প্রকাশের সময় : ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

ব্যাপক প্রচারণা চালাবে হকি ফেডারেশন
আসন্ন দশম এশিয়া কাপ হকি টুর্নামেন্টকে সামনে রেখে ব্যাপক প্রচারনা চালানো হবে রাজধানীসহ সারাদেশে। এমনটাই পরিকল্পনা বাংলাদেশ হকি ফেডারেশনের (বাহফে)। বর্তমানে টুর্নামেন্ট আয়োজনের জোর প্রস্তুতি চলছে। যেন নতুন সাজে সাজছে মওলানা ভাসানী জাতীয় হকি স্টেডিয়াম। টুর্নামেন্ট উপলক্ষ্যে এই স্টেডিয়ামে জ্বলবে ফ্লাডলাইট। তাই জোরেসোরেই চলছে ফ্লাডলাইট টাওয়ার স্থাপনের কাজ। আধুনিকরণ সহ প্রেসবক্সের পরিসর বাড়ছে। এছাড়া স্টেডিয়ামের ভেতর ও বাইরে চলছে নানা ধরণের সংস্কার কাজ। তবে জাতীয় দলের প্রস্তুতি ম্যাচ এখনো অনিশ্চিত। বাহফে’র পরিকল্পনা ছিলো, এশিয়া কাপের আগে চীন বা মালয়েশিয়াকে বাংলাদেশে একটু আগেভাগে এনে কয়েকটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলানো হবে। কিন্তু দেশ দু’টি থেকে এখনো কোনো আশ্বাস পায়নি তারা।
আগামী ১১ অক্টোবর মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে উদ্বোধন হবে এশিয়া কাপের। শেষ হবে ২২ অক্টোবর। টুর্নামেন্টে এশিয়ার স্বীকৃত আট হকি শক্তি মোকাবেলা করবে। দলগুলো দু’গ্রæপে ভাগ হয়ে খেলবে। ‘এ’ পুলে খেলছে ভারত, পাকিস্তান, জাপান ও স্বাগতিক বাংলাদেশ। ‘বি’ পুলের দলগুলো হলো- মালয়েশিয়া, কোরিয়া, ওমান ও চীন।
এশিয়া কাপ আয়োজনের প্রস্তুতি সম্পর্কে টুর্নামেন্ট কমিটির সম্পাদক মামুন-উর রশিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে তিনি জানান, এশিয়া কাপ আয়োজনের পূর্বশর্ত হচ্ছে, মওলানা ভাসানী স্টেডিয়ামে ফ্লাডলাইট স্থাপন। এটি স্থাপনের জন্য বেশ তরিৎ কাজ হচ্ছে। মামুন বলেন,‘গেল দু’দিনে ফ্লাডলাইটের চারটি টাওয়ার দাঁড়িয়ে গেছে। এক দিনেই তা সম্ভব হতো। কিন্তু স্টেডিয়ামের পূর্ব প্রান্তে বিশাল ক্রেন চলাচলের রাস্তা না থাকায় সময় লেগেছে দু’দিন। পূর্ব প্রান্তের দু’টি টাওয়ার ম্যানুয়ালি বসানো হলেও পশ্চিম প্রান্তের দু’টি ক্রেন দিয়ে বসানো হয়েছে। এবার আমরা ব্যাপক প্রচারণার কাজ শুরু করবো।’ তিনি যোগ করেন,‘দীর্ঘ ৩২ বছর পর আমাদের দেশে বসছে এশিয়া কাপের আসর। তাই প্রচারণায় পিছিয়ে থাকতে চাই না আমরা। সেভাবেই কাজ করে যাচ্ছি। স্থানীয় একটি প্রতিষ্ঠানকে ব্র্যাান্ডিংয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে। তারা পুরো ঢাকা শহরে পোস্টার, ফেস্টুন, ব্যানার লাগানোসহ প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। তথ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে সব টিভি চ্যানেলে দেখানো হবে এশিয়া কাপের নানা অনুষ্ঠান। রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে এলইডিতেও প্রচারণা চলবে। আমরা দর্শকদের কথা চিন্তা করে কোনো প্রকার টিকিটের ব্যবস্থা করিনি। বিনা টিকিটে তারা সুশৃঙ্খলভাবে গ্যালারিতে বসে খেলা দেখতে পারবেন। এছাড়া স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের জন্য গ্যালারিতে বসার আলাদা ব্যবস্থা থাকবে। স্টেডিয়ামের ৯টি গেটের সবগুলোই খোলা থাকবে।’
তবে স্মরণীয় আয়োজনের পরিকল্পনা থাকলেও জাতীয় দলের প্রস্তুতি ম্যাচ নিয়ে যেন মাথা ব্যথা কম বাহফে’র। বলা যায় প্রস্তুতি ম্যাচ এখনো অনিশ্চিত। গেল মাসে চীনে ছয়টি প্রীতি ম্যাচ খেলার পর বলা হয়েছিল এশিয়া কাপের আগে চীন বা মালয়েশিয়াকে বাংলাদেশে একটু আগেভাগে এনে কয়েকটি প্রস্তুতি ম্যাচ খেলানো হবে। কিন্তু চীন বা মালয়েশিয়া থেকে এখনো কোনো আশ্বাস পায়নি বাহফে। অবশ্য সেই পরিকল্পনাতে এখনো আছে তারা। এ প্রসঙ্গে বাহফে’র সহ-সভাপতি খাজা রহমতউল্লাহ বলেন, ‘আমরা চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। দেশ দু’টিকে চিঠিও দেয়া হয়েছে। এখনো মালয়েশিয়া বা চীন থেকে কোনো সদুত্তর আসেনি। বিষয়টি এশিয়ান হকি ফেডারেশনকেও জানিয়েছি আমরা। তারা দু-তিন দিন সময় চেয়েছে। দেখি কি করা যায়।’



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন