Inqilab Logo

ঢাকা, রবিবার, ০৯ আগস্ট ২০২০, ২৫ শ্রাবণ ১৪২৭, ১৮ যিলহজ ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

এমপিওভুক্তদের নতুন পে-স্কেল ত্বরান্বিত করুন

প্রকাশের সময় : ১৬ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

অষ্টম বেতন কাঠামো কার্যকর হওয়ার আট মাস পেরিয়ে গেলেও এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের নতুন স্কেলে বেতন প্রাপ্তি শুরু থেকেই অনিশ্চয়তার চাদরে মোড়ানো রয়েছে। সরকারী কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানুয়ারি থেকেই তাদের বর্ধিত বকেয়া বেতন পেলেও একই বেতন স্কেলের অন্তর্গত শিক্ষকরা বারবার বঞ্চনার শিকার হচ্ছেন। গতকাল প্রকাশিত খবরে জানা যায়, বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহের প্রায় পাঁচ লাখ শিক্ষক-কর্মচারী আগামী জুলাইয়ের আগে নতুন স্কেলে এমপিও পাচ্ছেন না। অর্থাৎ চলতি অর্থবছরের মাঝামাঝিতে নতুন বেতন স্কেলের গেজেট প্রকাশিত হলেও শিক্ষক সমাজ এই অর্থবছরে বর্ধিত বেতনের সুফল থেকে বঞ্চিতই থাকছেন। গত বছরের ডিসেম্বরে অষ্টম বেতন কাঠামোর গেজেট প্রকাশিত হয়। গেজেট নোটিফিকেশন অনুসারে ২০১৫ সালের জুলাই মাস থেকে নতুন বেতন স্কেল কার্যকর করার কথা বলা হয়। একই সাথে ডিসেম্বর ও জানুয়ারি মাসের বেতনের সাথে ৬ মাসের বর্ধিত বকেয়া বেতন পরিশোধেরও ঘোষণা দেয়া হয়। তবে নতুন বেতন কাঠামোতে এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষকদের অন্তর্ভুক্ত করার বিষয়টি এক ধরনের শুভঙ্করের ফাঁকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। এমনিতেই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক-কর্মচারী এবং সরকারি কর্মকর্র্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা ও সুযোগ-সুবিধার মধ্যে বিস্তর বৈষম্য বিদ্যমান আছে। দেশের শিক্ষক সমাজ এসব বৈষম্য দূর করার পাশাপাশি সামাজিক মর্যাদা ও রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির জন্য দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছেন। শিক্ষামন্ত্রী বরাবরই শিক্ষক সমাজের মর্যাদার প্রশ্নে নিজের সমর্থন ব্যক্ত করে আসছিলেন। মূলত তার হস্তক্ষেপেই এমপিওভুক্ত শিক্ষকরা অষ্টম বেতন কাঠামোর সুবিধাভুক্ত হয়েছিলেন। চলতি অর্থবছরে অষ্টম বেতন কাঠামোর বর্ধিত বেতন-ভাতার সুবিধা থেকে শিক্ষকদের সঙ্গে টালবাহানা করার মধ্য দিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর প্রতিশ্রুতির ব্যত্যয় ঘটল।
অষ্টম বেতন কাঠামোতে পদমর্যাদার ক্ষেত্রে শিক্ষকদের মর্যাদার অবমূল্যায়ন এবং বেতন কাঠামো বাস্তবায়নের ক্ষেত্রে বৈষম্য নিয়ে শুরু থেকে সরকার এবং শিক্ষক সমাজের মধ্যে এক প্রকার দ্বন্দ্ব দেখা যাচ্ছিল। বিশেষত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরা এসব দাবিতে এখন আন্দোলনের নতুন ছক কষছেন। বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকদের দাবি-দাওয়া সম্পর্কে অর্থমন্ত্রীর অনাকাক্সিক্ষত মন্তব্যে বিক্ষুব্ধ শিক্ষকরা লাগাতার কর্মবিরতি পালনের মাঝখানে প্রধানমন্ত্রীর সাথে শিক্ষক নেতাদের বৈঠক এবং আশ্বাসের প্রেক্ষিতে তারা দাবি পূরনে আল্টিমেটাম দিয়ে ক্লাসে ফিরে গিয়েছিলেন। তবে শিক্ষকদের বেঁধে দেয়া সময়সীমা পেরিয়ে গেলেও তাদের দাবি-দাওয়া পূরণে কোনো উদ্যোগই দেখা যায়নি। আর এখন দেখা যাচ্ছে, শুধু পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকরাই নন, এমপিওভুক্ত পুরো শিক্ষক সমাজই সরকারের পক্ষ থেকে অস্বাভাবিক অবহেলার শিকার হচ্ছেন। গতকাল প্রকাশিত খবরে জানা যায়, নতুন বেতন স্কেলের আওতায় পাঁচ লাখ শিক্ষক-কর্মচারীর বর্ধিত বেতন প্রদান করতে শিক্ষা সচিবের ডিও লেটারে সাড়া দেয়নি অর্থ মন্ত্রণালয়।
নতুন বেতন স্কেলে শিক্ষকদের বেতন-ভাতা পরিশোধে অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্টদের অনীহা বা অপারগতার কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে, চলতি অর্থবছরের শিক্ষা বাজেটে বর্ধিত বেতনের সংস্থান নেই। সচেতন দেশবাসীর অজানা নেই যে, অর্থবছরের শুরুতে বরাদ্দকৃত ঘোষিত বাজেটে সারা বছরই নানাভাবে কাটছাঁট করা হয়। এমনকি এডিপির বিশাল অংশ অর্থবছরের শেষ সময় পর্যন্ত অনিষ্পন্ন থাকতে দেখা যায়। অথবা যেন-তেন প্রকারে বাজেট বরাদ্দের ক্ষেত্রে খরচ ও বাস্তবায়নের নামে জনগণের টাকা এক ধরনের হরিলুট হয়ে থাকে। সেখানে আড়াই লক্ষাধিক কোটি টাকার জাতীয় বাজেট থেকে সরকার ঘোষিত নতুন পে-স্কেলে পাঁচ লাখ শিক্ষক-কর্মচারীর বর্ধিত বকেয়া বেতন পরিশোধে দুই-আড়াই হাজার কোটি টাকার সংস্থান করা অসম্ভব নয়। এমনকি নতুন পে-স্কেলের জন্য বর্ধিত প্রয়োজন মেটাতে বাজেটে বরাদ্দকৃত ১৫ হাজার কোটি টাকা থেকেও শিক্ষকদের নতুন পে-স্কেলে শিক্ষকদের বেতন পরিশোধ করা সম্ভব বলে অর্থ মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বশীল সূত্রের বরাত দিয়ে খবর প্রকাশিত হয়েছে। কিছু প্রক্রিয়াগত কাজ বাকি থাকায় শিক্ষকদের নতুন স্কেলে বেতন দেয়া সম্ভব হচ্ছে না বলেও খবরে উল্লেখ করা হচ্ছে। তবে এসব তথ্যের গরমিল থেকে শিক্ষা মন্ত্রণালয় এবং অর্থ মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের মধ্যে এক ধরনের সমন্বয়হীনতা ধরা পড়ে। এ ক্ষেত্রে জটিলতা নিরসন করে শিক্ষক সমাজের প্রত্যাশিত নতুন পে-স্কেলে অবিলম্বে বেতন পরিশোধে সরকারের সর্বোচ্চ মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন শিক্ষক সমাজের প্রতিনিধিরা। শিক্ষক সমাজ তাদের ন্যায্য দাবি আদায়ের জন্য আবারো রাজপথে নেমে আসুন, এটা কারো কাছেই কাম্য নয়। অবিলম্বে এমপিভুক্ত শিক্ষকদের নতুন পে-স্কেলে বেতন পরিশোধ করা হোক।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: এমপিওভুক্তদের নতুন পে-স্কেল ত্বরান্বিত করুন
আরও পড়ুন