Inqilab Logo

ঢাকা, শনিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৯, ০৩ কার্তিক ১৪২৬, ১৯ সফর ১৪৪১ হিজরী

চৌদ্দগ্রামে যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা

ইভটিজিংয়ে বাধা দেয়ায়

চৌদ্দগ্রাম (কুমিল্লা) উপজেলা সংবাদদাতা | প্রকাশের সময় : ৪ অক্টোবর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে ইভটিজিংয়ে বাধা দেয়ায় হাবিবুর রহমান নামের এক যুবলীগ নেতাকে কুপিয়ে হত্যা করেছে ছাত্রলীগ ক্যাডারা। তিনি উপজেলার জগন্নাথদীঘি ইউনিয়নের আতাকরা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার হোসেনের পুত্র ও ইউনিয়ন যুবলীগের স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক। সোমবার রাত সাড়ে এগারটায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে দশটায় তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন নিহত হাবিবুর রহমানের ভাই কামাল উদ্দিন ও ভাবি হাজেরা বেগম।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, হাবিবুর রহমান জগন্নাদীঘি ইউনিয়নের কাকৈরখোলা কমিউনিট ক্লিনিকে স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে চাকরী করে। তিনি দীর্ঘদিন ধরে পার্শ্ববর্তী দক্ষিণ সোনাপুর গ্রামের আলী এরশাদের পুত্র ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি আতিকুল ইসলাম আজাদ, জিদু মিয়ার পুত্র মোতালেব হোসেন, আলী আকাব্বরের পুত্র মোঃ ইয়াছিন, কোদালিয়া গ্রামের মোঃ জয়নালের পুত্র ছালেহ আহমেদ সুবজ কর্তৃক স্থানীয় মেয়েদেরকে ইভটিজিংয়ে বাধা দিয়ে আসছিল। এনিয়ে হাবিবের উপর ক্ষিপ্ত হয় চারজন। এক পর্যায়ে গত ২২ সেপ্টেম্বর শুক্রবার রাত আটটার পরে হাবিব, তার বন্ধু এমদাদুল হক জুয়েল ও নবী হোসেনকে নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে চৌধুরী বাজার যাওয়ার সময় পথিমধ্যে নারানকরা দক্ষিণ পাড়ায় রাস্তার উপর যুবলীগ নেতা আজাদের নেতৃত্বে সন্ত্রাসীরা তাদের গতিরোধ করে। পরে তারা ধারালো অস্ত্র দিয়ে হাবিবের শরীরের বিভিন্নস্থানে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। এসময় হাবিবের সাথে থাকা জুয়েল ও নবীর চিৎকারে আশ-পাশের লোকজন ঘটনাস্থলে পৌঁছলে সন্ত্রাসীরা পালিয়ে যায়। স্থানীয়রা আহত হাবিবকে উদ্ধার শেষে চৌদ্দগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়। অবস্থা আশঙ্কাজনক হওয়ায় তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ ও পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সোমবার রাত সাড়ে এগারটায় তার মৃত্যু হয়েছে। এঘটনায় নিহত হাবিবের ভাই কামাল উদ্দিন বাদি হয়ে ছাত্রলীগ নেতা আজাদ, মোতালেব, ইয়াছিন ও ছালেহ আহমদ সবুজের নাম উল্লেখ্যসহ অজ্ঞাতনামা আরও ১০/১২ জনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেছেন।
এ ব্যাপারে চৌদ্দগ্রাম থানার ওসি (তদন্ত) শুভ রঞ্জন চাকমা জানান, নিহত হাবিবের ভাই কামাল উদ্দিন বাদি হয়ে থানায় একটি মামলা করেছেন। আসামী ছালেহ আহমদ সবুজকে আটক করা হয়েছে। বাকিদেরও গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

ঘটনাপ্রবাহ: ইভটিজিং


আরও
আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ