Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭, ০৯ কার্তিক ১৪২৪, ০৩ সফর ১৪৩৯ হিজরী

প্রবীণদের সাথে সদাচারণে জান্নাত মিলে

ফিরোজ আহমাদ | প্রকাশের সময় : ১২ অক্টোবর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

যে মানুষটি প্রতিদিন ঘুম উঠে পরিবারের সকল সদস্যের আহার, আবাসন, শিক্ষা, চিকিৎসা ও বিনোদনের খরচ যোগানোর জন্য কর্মক্ষেত্রে ছুটে গেছেন । সে মানুষটি জীবনের কোনো একটি সময়ে যৌবনের সাথে হার মেনে বয়সের ভারে নুয়ে অপরের উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েন। যিনি সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত গায়ের গাম জড়িয়ে আয় রোজগার করেছেন। তিনি বৃদ্ধ বয়সে এসে দু’চারশ টাকার জন্য পরিবারের অন্য সদস্যদের দিকে চেয়ে থাকেন। পরিবারের সকল সদস্যরা যখন আধুনিক নগর জীবনের স্বাদ উপভোগ করা নিয়ে ব্যস্ত থাকেন তখন বয়স্করা ঘরের একটি কোনে বসে মৃত‚্যর প্রহর গুনেন। স্বাভাবিকভাবে চলাফেরা করার জন্য হাতের লাঠি কিংবা ছড়ি একমাত্র সঙ্গী। কোরআনে এরশাদ হয়েছে,‘আল্লাহ তা‘আলাই তোমাদের সৃষ্টি করেছেন, অতঃপর তিনিই তোমাদের মৃত্যু দেবেন। তোমাদের কোনো ব্যক্তি বৃদ্ধ বয়সের দুর্বলতম স্তর পর্যন্ত পৌঁছে যাবে, এতে করে জানার পর সে অজ্ঞ হয়ে যাবে, আল্লাহ তা‘আলা অবশ্যই সর্বজ্ঞ, সর্বশক্তিমান।’ (সূরা আন-নাহল:৭০)।
প্রবীণদের প্রতি ভালো আচরণ করা করুণার বিষয় নয়। ইহা প্রবীণদের অধিকার। কোরআনে এরশাদ হয়েছে,‘ আর তোমার প্রভ‚ নির্দেশ দিয়েছেন যে, তোমরা তাঁকে ছাড়া অন্য কারো ইবাদত করবে না এবং পিতা-মাতার সাথে উত্তম আচারণ করবে। তাদের একজন অথবা উভয়েই যদি তোমার নিকট বার্ধক্যে উপনীত হয়, তবে তাদেরকে ‘উফ’ বলো না এবং তাদেরকে ধমক দিও না। আর তাদের সাথে সন্মানজক কথা বল। আর তাদের উভয়ের জন্য দয়া পরবশ হয়ে মমতা ও ন¤্রতার ডানা বিছিয়ে দাও এবং বল, ‘ হে আমার রব, তাদের প্রতি দয়া করুন যেভাবে শৈশবে তারা আমাকে লালন-পালন করেছেন।’ ( সূরা বনী ইসরাইল:২৩-২৪)।
বয়স্ক তথা প্রবীণদের খোঁজ খবর নেয়া ও সেবা করা একটি উত্তম কাজ। প্রবীণদের প্রতি ভালো আচরণ করা, সালাম বিনিময় করা, শারীরিক অবস্থার খোঁজ খবর নেয়া, অসুস্থ হলে ডাক্তারের নিকট নিয়ে যাওয়া, সময় মতো পুষ্টিকর খাবার পরিবেশন করা, তাদেরকে নিয়ে এক সাথে খাওয়া, একসঙ্গে বেড়াতে যাওয়া, ভালো জামা কাপড় পরিধান করানো ও তাদের বিছানাপত্র পরিস্কার পরিচ্ছন্ন রাখা নেক আমলের পর্যায়ভ‚ক্ত। কোরআনে এরশাদ হয়েছে,‘যে ব্যক্তি কোনো ভালো কাজ করবে - নর কিংবা নারী, সে যদি ঈমানদার অবস্থায়ই তা (সম্পাদন) করে তাহলে সব লোক অবশ্যই বেহেস্তে প্রবেশ করবে, তাদের উপর বিন্দুমাত্রও অবিচার করা হবে না। ইহার চাইতে উত্তম জীবন বিধান আর কার হতে পারে, যে আল্লাহ পাকের জন্যে মাথানত করে দেয়, মূলত সে-ই হচ্ছে নিষ্ঠাবান ব্যক্তি, সে ইব্রাহিমের আদর্শের অনুসরণ করে; আর আল্লাহ পাক ইব্রাহিমকে স্বীয় বন্ধুরূপে গ্রহণ করেছেন।’ (সূরা আন-নিসা:১২৪-১২৫)।
যে মা সন্তানের নিরাপত্তার জন্য চোখের ঘুমকে হারাম করেছেন। শিশুবস্থায় সন্তানের জন্য মা সারারাত জেগে থাকতেন। নিজে ভালো কাপড় চোপড় না পড়ে সন্তানকে পড়িয়েছেন। সন্তানের সুন্দর একটি ভবিষ্যতের জন্য নিজের সকল সুখকে বিসর্জন দিয়েছেন। অথচ সে ছেলে মেয়েরা বড় হয়ে কর্ম ব্যস্ততার জন্য বয়স্ক মাতা পিতার খোঁজ খবর নেয়ার মতো সামান্য সময়টুকু পান না। অনেকে বাবা মাকে বৃদ্ধাশ্রমে ফেলে রেখে আসেন। কোরআনে এরশাদ হয়েছে,‘ আর আমি মানুষকে মাতা-পিতার সাথে সদয় ব্যবহারের নির্দেশ দিয়েছি। তার মা তাকে অতি কষ্টে গর্ভে ধারণ করেছেন এবং অতি কষ্টে তাকে প্রসব করেছেন। তার গর্ভধারণ ও দুধ পান ছাড়ানোর সময় লাগে ত্রিশ মাস।’ (সূরা আহকাফ:১৫)। ‘ আর আমি মানুষকে তার মাতাপিতার সাথে (সদাচারণের) নির্দেশ দিয়েছি। তার মা কষ্টের পর কষ্ট সহ্য করে তাকে গর্ভেধারণ করেছেন। আর দুই বছর পর্যন্ত স্তন্যদান করেছেন।’ (সূরা লোকমান:১৪)। হযরত আবু হোরায়রা (রা) থেকে বর্ণিত হয়েছে, হযরত রাসূল (সা) এরশাদ করেছেন,‘তোমরা তোমাদের পিতা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়ো না। কেননা যে ব্যক্তি আপন পিতা থেকে মুখ ফিরিয়ে নিল সে কুফরী করল।( বুখারী:৬৩১১)।
প্রবীণদের সেবা করলে বান্দার নিত্যদিনের গোনাহ মাফ হয়ে যায়। আমল নামায় নেকির পরিমান বৃদ্ধি পায়। ভালো কর্ম গুলো আমল নামা থেকে মন্দ কাজ গুলোকে ধুয়ে মুছে সাফ করে দেয়। কোরআনে এরশাদ হয়েছে ‘যারা ভালো (কাজ) দ্বারা মন্দ (কাজ) দূরীভূত করে, তাদের জন্যই (পরকালে) শুভ পরিণাম।’ (সূরা রা’দ: ২২)। আর যারা প্রবীণদের সাথে সদাচারণ করবে না এবং মাতা-পিতার অবাধ্য হবে তাদের জন্য পরোকালে জাহান্নামের আগুন নিশ্চিত হয়ে যাবে। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে আমর (রা) থেকে বর্ণিত, হযরত রাসূল (সা) এরশাদ করেছেন, উপকার করে খোঁটা দানকারী, মাতা-পিতার অবাধ্য সন্তান এবং মদপানকারী জান্নাতে প্রবেশ করবে না।’ (নাসাঈ, দারেমী, মেশকাত, পৃ. নং-৪২০)। (চলবে)

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।