Inqilab Logo

ঢাকা, রোববার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৭ আশ্বিন ১৪২৬, ২২ মুহাররম ১৪৪১ হিজরী

অবৈধ ভিওআইপিতে ব্যবহার সিম চিহ্নিত হওয়ার ৩ ঘণ্টার মধ্যে বন্ধ না হলে ব্যবস্থা

প্রকাশের সময় : ১৭ মার্চ, ২০১৬, ১২:০০ এএম

স্টাফ রিপোর্টার : অবৈধ ভিওআইপিতে (ভয়েস ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল) ব্যবহৃত সিম চিহ্নিত করার তিন ঘণ্টার মধ্যে তা বন্ধ না হলে মোবাইল ফোন অপারেটরদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।
সরকারি বা বেসরকারি অপারেটর না দেখে সকলের বিরুদ্ধে একই রকম ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানানো হয়। গতকাল (বুধবার) সচিবালয়ে বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনবিষয়ক মোবাইল অপারেটরদের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে এক বৈঠকে ডাক ও টেলিযোগাযোগ সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী এ কথা জানান। এ সময় ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম, গ্রামীণফোনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) রাজীব শেঠি, বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা এরিক আস, এয়ারটেলের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পিডি শর্মা, টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) গিয়াস উদ্দিন আহমেদসহ অন্যান্য অপারেটরের শীর্ষ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সম্প্রতি টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসিতে অবৈধ ভিওআইপি বন্ধে একটি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়, সেখানে টেলিটকসহ অন্যান্য সিম ব্যবহার করে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবহার নিয়ে আলোচনা হয়। এ বিষয়ে জানতে চাইলে সচিব বলেন, শুধু টেলিটকের সিম দিয়ে অবৈধ ভিওআইপি হয় তা ঠিক নয়। সব অপারেটরের সিম দিয়ে অবৈধ ভিওআইপি হতে পারে। সব অপারেটরের জন্য একই আইন। অপরাধীরা মনে করে, সরকারি মালিকাধীন টেলিটকের সিম দিয়ে অবৈধ ভিওআইপি করলে ধরাছোঁয়া যাবে না, তা ঠিক নয়। এ বিষয়ে কোনো অপারেটরকে ছাড় দেওয়া হবে না। বিটিআরসিতে ওই বৈঠকের বিষয়ে সচিব আরও বলেন, বৈঠক প্রতিমন্ত্রী বিটিআরসিকে সুস্পষ্ট নির্দেশনা দিয়েছেন, কোন কোন অপারেটরের সিমে অবৈধ ভিওআইপি হচ্ছে তা চিহ্নিত করার সাথে সাথে অপারেটরদের জানাতে হবে। এর সর্বোচ্চ তিন ঘণ্টার মধ্যে সেই সিম ‘ব্লক’ করতে হবে অপারেটরদের। এ সময়ের মধ্যে সিম ‘ব্লক’ করতে না পারলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনের বিষয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, এর মাধ্যমে গ্রাহকদের পরিচিতি নিশ্চিত হবে এবং অপরাধ প্রবণতা কমে আসবে। সব মোবাইল ব্যবহারকারীর বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন দেশ ও জাতির নিরাপত্তার জন্য অপরিহার্য। কোনোভাবে গ্রাহকের আঙুলের ছাপ সংরক্ষণ করা হচ্ছে না জানিয়ে তারানা হালিম বলেন, বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে নিবন্ধন ও ভেরিফিকেশন চলছে এবং চলবে। একটি পক্ষ অপপ্রচার চালাচ্ছে বলে জানিয়ে তিনি বলেন, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।



 

দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।

আরও পড়ুন
এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ