Inqilab Logo

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৭, ০৯ কার্তিক ১৪২৪, ০৩ সফর ১৪৩৯ হিজরী

সূচকের বড় পতনে সপ্তাহ শেষ

অর্থনৈতিক রিপোর্টার : | প্রকাশের সময় : ১৩ অক্টোবর, ২০১৭, ১২:০০ এএম

সপ্তাহের শেষ কার্যদিবসে গতকাল বৃহস্পতিবার প্রধান শেয়ারবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) এবং অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) বড় দরপতন হয়েছে। এ নিয়ে টানা দুই কার্যদিবস বড় দরপতন হলো। এদিন ডিএসইর প্রধান মূল্য সূচক ডিএসইএক্স কমেছে ৪৪ পয়েন্ট এবং সিএসইর সার্বিক মূল্য সূচক সিএসসিএক্স কমেছে ১১৬ পয়েন্ট। মূল্য সূচকের সঙ্গে উভয় বাজারে কমেছে লেনদেনের পরিমাণ।
আগের দিনের মতো বৃহস্পতিবারও লেনদেন হওয়া প্রায় সবকটি ব্যাংক ও আর্থিক খতের প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম কমেছে। এর আগে পুঁজিবাজারে নিয়ম ভেঙে বিনিয়োগ করাসহ বিভিন্ন অসঙ্গতির দায়ে বাংলাদেশ ব্যাংক গত রোববার সাত ব্যাংককে জরিমানা করে। যার নেতিবাচক প্রভাব এখনও শেয়ারবাজারে অব্যাহত রয়েছে।
বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নিয়ম ভেঙে বিনিয়োগ করে একাধিক ব্যাংক জরিমানার শিকার হওয়ার কারণেই শেয়ারবাজারে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের এ পদক্ষেপের কারণে বিনিয়োগকারীদের ভায় পাওয়ার কিছু নেই। কারণ শেয়ারবাজারে ব্যাংকের বিনিয়োগ এখনো সেই পর্যায়ে পৌঁছেনি, যে ব্যাংকগুলোকে যে কোনো মুহূর্তে বিনিয়োগ তুলে নিতে হতে পারে। তাদের মতে, ২০১০ সালের সাধারণ বিনিয়োগকারীরা যেভাবে শেয়ারবাজারে হুমড়ি খেয়ে পড়েছিলেন, বর্তমান বাজারে সে অবস্থা নেই। এখন বাজারে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ বেশ কম। মূলত প্রাতিষ্ঠানিক ও বড় বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ এখন অনেক বেশি।
তথ্য পর্যালোচনায় দেখা যায়, আগের দিনের মতো বৃহস্পতিবারও লেনদেন হওয়া বেশির ভাগ ব্যাংক’র দরপতন হলেও লেনদেনে দাপট ধরে রাখে ব্যাংক খাত। লেনদেন হওয়া ব্যাংকগুলোর মধ্যে বাড়ার তালিকায় স্থান পেয়েছে ৭টি প্রতিষ্ঠান। আর দাম কমেছে ২১টি ব্যাংকের। অপরদিকে ডিএসইতে লেনদেনের শীর্ষ দশ কোম্পানির মধ্যে ব্যাংক রয়েছে ছয়টি।
ব্যাংক কোম্পানিগুলোর দরপতনের কারণে সূচকের বড় উত্থানে ডিএসইতে লেনদেন শুরু হলেও, লেনদেন শেষ হয় বড় পতন দিয়ে। দিনের লেনদেন শেষে ডিএসইর প্রধান সূচক ডিএসইএক্স আগের দিনের তুলনায় ৪৪ পয়েন্ট কমে ৬ হাজার ৬৪ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে। অপর দুটি মূল্য সূচকের মধ্যে ডিএসই শরিহ্ সূচক ৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৩৩৩ পয়েন্টে। আর ডিএসই-৩০ সূচক ১০ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ১৯৭ পয়েন্টে।
ডিএসইতে লেনদেন হওয়া ১৯৭টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দাম আগের দিনের তুলনায় কমেছে। অপরদিকে দাম বেড়েছে ৯৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৩৭টির দাম। লেনদেন হয়েছে ৭৪৩ কোটি ২৯ লাখ টাকা। আগের দিন লেনদেন হয় ১ হাজার ৯২ কোটি ৪ লাখ টাকা। সে হিসেবে লেনদেন কমেছে ৩৪৮ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।
টাকার অঙ্কে ডিএসইতে সবচেয়ে বেশি লেনদেন হয়েছে ব্র্যাক ব্যাংকের শেয়ার। এদিন কোম্পানির ৩৭ কোটি ৯৭ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। লেনদেনে দ্বিতীয় স্থানে থাকা ইফাদ অটোসের ৩৭ কোটি ৯৫ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেন হয়েছে। ৩৫ কোটি ২০ লাখ টাকার শেয়ার লেনদেনে তৃতীয় স্থানে রয়েছে শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক।
লেনদেনে এরপর রয়েছে- এক্সিম ব্যাংক, আমরা নেটওয়ার্ক, উত্তরা ব্যাংক, সিটি ব্যাংক, এসিআই, মার্কেন্টাইল ব্যাংক এবং লংকাবাংলা ফাইন্যান্স।
অপর শেয়ারবাজার চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) সিএসসিএক্স সূচক ১১৬ পয়েন্ট কমে দাঁড়িয়েছে ১১ হাজার ৩৭৭ পয়েন্টে। বাজারটিতে লেনদেন হয়েছে ৩৫ কোটি ২১ লাখ টাকা। লেনদেন হওয়া ২৩৪টি প্রতিষ্ঠানের শেয়ার ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ৫৪টির দাম আগের দিনের তুলনায় বেড়েছে। অপরদিকে দাম কমেছে ১৬১টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৯টির দাম।

 


দৈনিক ইনকিলাব সংবিধান ও জনমতের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। তাই ধর্ম ও রাষ্ট্রবিরোধী এবং উষ্কানীমূলক কোনো বক্তব্য না করার জন্য পাঠকদের অনুরোধ করা হলো। কর্তৃপক্ষ যেকোনো ধরণের আপত্তিকর মন্তব্য মডারেশনের ক্ষমতা রাখেন।