Inqilab Logo

ঢাকা, শুক্রবার , ২৪ জানুয়ারী ২০২০, ১০ মাঘ ১৪২৬, ২৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪১ হিজরী

ইসলামী প্রশ্নোত্তর


প্রশ্ন : মোবাইল ফোনে আমার স্ত্রীর সাথে কথা বলার সময় কিছু একটা বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। সে বেশী উত্তেজিত অবস্থায় ছিল এবং আমাকে গালিগালাজ করছিল। এমন করতে তাকে নিষেধ করে বলি যে, আবার এমন কথা বললে আমি তাকে তিন কথা বলে ফেলবো। তারপরও সে না থামায়, প্রচন্ড রাগের মাথায় আমি বলি যে, ‘তুই আমার মা, আমি তোর ছেলে’। এখন আমার প্রশ্ন হলো, আমার কি করণীয়? আমি আমার ভুল বুঝতে পেরেছি।

উত্তর : লিখিত প্রশ্ন ছাড়া এসব জিজ্ঞাসার জবাব দেওয়া হয় না। কারণ, জবাব পাওয়ার পর প্রশ্নটি মানুষ পাল্টে ফেলে অথবা পরিস্থিতির আসল চিত্র, নিজের আচরণ, বক্তব্য সঠিকভাবে উল্লেখ করে না। এখানে আমরা যা লেখা আছে তার ভিত্তিতে এতটুকু বলতে চাই...




প্রশ্ন : আমি দু’সন্তানের জনক। দু’টি সন্তান নেওয়ার পর দু’জনে মিলে চিন্তা করি যে, আর কোনো সন্তান নেব না। সেই মতে আমার স্ত্রী সাময়িক জন্ম বিরতিকরণ পদ্ধতি ব্যবহার করছে। তাতে করে সে শারীরিক বিভিন্ন সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে। শুনেছি, এসব পদ্ধতিতে জরায়ু ক্যান্সার হওয়ার সমূহ সম্ভাবনা থেকে যায়। প্রশ্ন হচ্ছে, এমতাবস্থায় কি আমার স্ত্রী স্থায়ী বন্ধ্যা হতে পারবে?

উত্তর : আর সন্তান না নেওয়ার চিন্তায় স্থায়ী বন্ধ্যাকরণ জায়েজ নয়। এমন করার জন্য শরীয়ত সম্মত ও গ্রহণযোগ্য কারণ থাকতে হবে।  উত্তর দিয়েছেন : আল্লামা মুফতি উবায়দুর রহমান খান নদভীসূত্র : জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামী ফিক্হ ও ফাতওয়া বিশ্বকোষ।প্রশ্ন পাঠাতে নিচের ইমেইল...





আর্কাইভ