Inqilab Logo

বৃহস্পতিবার, ১১ আগস্ট ২০২২, ২৭ শ্রাবণ ১৪২৯, ১২ মুহাররম ১৪৪৪

ইসলামী প্রশ্নোত্তর

প্রশ্ন : আমি ছোট বেলা থেকে নিয়ত করেছি যে, যেহেতু যৌতুক হারাম তাই আমি আমার বিয়ের মধ্যে যৌতুক নিব না। কিন্তু আমার পরিবার থেকে যৌতুক ছাড়া বিয়ে করাবে না। এখন আমি কি করতে পারি?

উত্তর : প্রচলিত জুলুমের যৌতুক হারাম। মূলত:ই যদি কেউ তার কোনো অভিভাবক বা আত্মীয় স্বজন তাদের মেয়েকে কোনোরূপ প্রকাশ্য বা গোপন চাপ ছাড়া কোনো কিছু দেন, তাহলে তা গ্রহন করা মেয়েটির জন্য হালাল। ছেলেকে এভাবে দিলে ছেলের জন্যও হালাল। আপনি যৌতুক নিবেন না একথাটি আপনার পরিবারের নেওয়ার অবস্থার সাথে সমন্বয় করতে হবে। চাহিদা বা চাপ সৃষ্টি করে নিলে আপনি প্রতিবাদ করুন। স্বাভাবিক ও নির্দোষ উপহার হলে নিতে পারেন। আপনি যেভাবে হারাম বলছেন, বিষয়টি কি আসলে সেই পর্যায়ের জুলুম কি না,...






আমার এক নিকটাত্মীয় মদ-গাঁজা সেবন করত। স্বামী-স্ত্রী প্রায় সময়মই ঝগড়া হতো, স্বামী তার স্ত্রীর গায়ে অনেক সময় হাত তুলত। স্ত্রীও খুব বেশী একটা ছাড় দিত না। আবার স্ত্রীর বিরুদ্ধে অন্য পুরুষের সাথে দীর্ঘ দিন রাতে-বিরাতে গোপন ফোনালাপের অভিযোগ ছিল। তাদের দুই ছেলে আছে। স্বামী তার স্ত্রীর নামে ব্যাংক একাউন্টে ১৫-১৮ লাখ টাকার সম্পদ রেখেছিল। স্ত্রী বাপের বাড়ি গিয়ে সেগুলো হাত করে নেয় এবং নেশাখোর স্বামীর সংসার করবেনা বলে জানায়। এ অবস্থায় কয়েকটি ব্যর্থ আলোচনা বা বৈঠক হয়। প্রায় এক বছরের বেশী সময় পর স্ত্রী ওই স্বামীকে এক উকিলের মাধ্যমে ডাকযোগে ডিভোর্সলেটার পাঠায়। স্বামী বলে সে ওই লেটার রিসিভ ও সাইন করেনি। এর প্রায় এক বছর পর তার স্ত্রী ওই গোপন ফোনালাপের অভিযুক্ত ব্যক্তিকেই বিয়ে করে। প্রশ্ন হলো স্ত্রীর এ তালাক ও পরবর্তী বিয়ে ইসলামের বিধান মতে সঠিক ভাবে হয়েছে কি না? আর না হলে এখন করনীয় কি?

উত্তর : দেশের আইন অনুযায়ী এই তালাক হয়ে গেছে। পরবর্তী বিবাহও শুদ্ধ হয়েছে। আগে যেই ফোনালাপ বা দেখা সাক্ষাৎ করতো, একথাটি প্রমাণ করার জন্য শরীয়তসম্মত পদ্ধতিতে যথেষ্ট রশদ সাবেক স্বামীর হাতে নেই। তাদের মিল ছিল না কি অমিল এর সাথে...




আর্কাইভ
গত​ ৭ দিনের সর্বাধিক পঠিত সংবাদ